২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

তামিমের ভিসা জটিলতার অবসান, ফ্লাইট বুধবার 

তামিম ইকবাল - নয়া দিগন্ত

অবশেষে ভিসা পেয়েছেন তামিম ইকবাল। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভিসা লাভ করেছেন বাঁহাতি এ ওপেনার। এতে করে তার এশিয়া কাপ খেলতে যাবার জটিলতার অবসান ঘটলো। দলের সব ক্রিকেটারই এক এক করে সবাই ভিসা পেলেও তামিমেরটা আটকে গিয়েছিল। অবশ্য তামিমের সাথে ছিলেন রুবেল হোসেনও। কিন্তু রুবেল পেয়ে গেছেন। এবং মঙ্গলবার তার রওয়ানা হয়ে যাবার কথা।

তামিম মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ভিসা প্রাপ্তিতে সম্ভবত বুধবার সকালেই বিমান ধরবেন তিনি। কারণ এমনিতেই দেরী হয়ে গেছে। দল যেখানে দুবাইয়ে দুদিনের মত অনুশীলন করে ফেলেছে। তামিম সেটা মিস করেছেন। তাছাড়া তামিমের ব্যাটিং অনুশীলনটা জরুরী হয়ে পরেছে। অনুশীলন করলে তিনি বুঝতে পারবেন তার আঙ্গুলের ইনজুরিটা কোন পর্যায়ে।

তিনি খেলতে পারবেন কি-না প্রথম ম্যাচ। বা যদি সমস্যা হয় তাহলে কী ব্যাবস্থা নিয়ে তিনি খেলতে পারবেন। শুধু তামিম নন। দলের জন্যও একটা দুশ্চিন্তা ছিল। তামিম অবশ্য যাবার জন্য শতভাগ প্রস্তুত। ক’দিন ধরে উসখুসও করছিলেন তিনি। রাতের মধ্যেই টিকেট কর্নফার্ম করতে পারলে আজ সকালেই ঢাকা ত্যাগ করবেন বলে জানিয়েছেন। এরপরও সব ঠিকমত অ্যারেঞ্জ করতে ব্যার্থ হলে সন্ধ্যার ফ্লাইট ধরে যেতে পারবেন তিনি। ফলে আজকের মধ্যেই তার ঢাকা ত্যাগের সম্ভাবনা।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ ১৫ সেপ্টেম্বর। আজ ১২ সেপ্টেম্বর। খুব কম সময়ই পাবেন তিনি অনুশীলনে। ফলে যত তাড়াতাড়ি তিনি পৌছুবেন ততই মঙ্গল।

আরো পড়ুন: এশিয়া কাপ নিয়ে যা বললেন পাকিস্তানের অধিনায়ক
জিও টিভি ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:৩৪

পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বলেন, বর্তমানে টিমের মনোবল খুবই ভালো। আসন্ন এশিয়া কাপে আমাদের দল দারুণ খেলবে।

এশিয়া কাপকে সামনে রেখে আমাদের টিম দারুণ প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। আমরা সব ক্ষেত্রেই আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্ঠা করে যাব। সোমবার লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের সাথে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের এশিয়া কাপের প্রস্তুতি নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন দলটির অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ।


তিনি বলেন, এশিয়া কাপ বড় ধরণের একটি প্রতিযোগিতা কারণ এখানে শক্তিশালী দলগুলো অংশগ্রহণ করে থাকে। এছাড়া ভারতের সাথেও আমাদের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ রয়েছে।

সেপ্টেম্বরের ১৫ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া এই ট্রুনামেন্টে স্পিনাররা বড় ধরণের পার্থক্য গড়ে দিতে পারে বলে মন্তব্য করেন সরফরাজ। প্রথমে ব্যাট করলে ৩০০ বা তার বেশি রান করতে হবে।

বর্তমানে পাকিস্তানের ‘এ’ দল্ও আরব আমিরাতে অবস্থান করায় দরকার হলে তাদের থেকেও সাহায্য নেয়া যাবে। দলের সবাই তিনটি নিজ অবস্থান থেকে ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে ভালো করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া আমাদের ব্যাটসম্যানরা ভালো স্কোর গড়তে পারবে বলে মনে করেন সরফরাজ।

আরো পড়ুন : যেভাবে পাল্টে গেল পাকিস্তান ক্রিকেট দল

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জয়ের কারণে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের চেহারা পাল্টে গেছে বলে মনে করেন দেশটির সাবেক অধিনায়ক আমির সোহেল। আসন্ন এশিয়া কাপে পাকিস্তানের সাফল্যের ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। এশিয়া কাপ নিয়ে সোহেল বলেন, ‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ের কারণে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছে পাকিস্তান। শিরোপা জয়ে পাকিস্তান দলের চেহারা পাল্টে গেছে। আসন্ন এশিয়া কাপে পাকিস্তান ভালো ফল করবে বলে আমি আত্মবিশ্বাসী।’

২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের হয়ে যাওয়া আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শিরোপা জিতেছিলো পাকিস্তান। অথচ ঐ টুর্নামেন্ট শুরুর আগে ফেভারিটের তকমা ছিলো না পাকিস্তানের। কিন্তু শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে দাপটের সাথেই শিরোপা জিতে নেয় পাকিস্তান। ঐ জয়ে পাকিস্তান দল আবারো সেরা ছন্দে ফিরে এসেছে বলে মনে করেন দেশটির সাবেক বাঁ-হাতি ওপেনার সোহেল। তিনি বলেন, ‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আগে পাকিস্তান দলের অবস্থা খুব বেশি ভালো ছিলো না। তবে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে আমরা অন্য এক পাকিস্তানকে দেখলাম। আমরা কখনোই ভাবতে পারিনি, এই দলটি ভালো ফল বয়ে আনতে পারবে। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জিতে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে পাকিস্তান। আমার মনে হয়, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ের কারণে পাকিস্তান দলের চেহারা পাল্টে গেছে।


সরফরাজের দল এখন অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী এবং মাঠে নিজেদের সেরাটা উজার করে দিতে প্রস্তুত।’
আসন্ন এশিয়া কাপেও পাকিস্তান ভালো ফল করবে বলে আশাবাদী দেশের হয়ে ১৫৬ ওয়ানডে খেলা সোহেল। তিনি বলেন, ‘অধিনায়ক, কোচ, স্টাফ ও খেলোয়াড়রা দলের জন্য নিজেদের সেরাটা দিয়ে যাচ্ছে। ছেলেরা ইতিবাচক ক্রিকেট খেলছে। আশা করি, এশিয়া কাপেও ভালো ক্রিকেট খেলবে পাকিস্তান এবং শিরোপা জিততে পারবে।’

নিজেদের পরিকল্পনায় কোনো পরিবর্তন না হলে দল হিসেবে এশিয়া কাপে ভালো করবে বলে মনে করেন সোহেল। তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি যেভাবে খেলছে পাকিস্তান, এটি প্রশংসনীয়। আমি আশা করবো, নিজেদের পরিকল্পনায় কোন পরিবর্তন আনবে না। যে ধারাতে খেলছে তারা, সেই পরিকল্পনাতেই অটুট থাকা উচিত দলের। কোচ, অধিনায়ক, স্টাফরা দলের অবস্থা অনুযায়ী ভালোভাবে সিদ্ধান্ত নিবে বলে আমি আশা করি।’

এশিয়া কাপের ‘এ’ গ্রুপে রয়েছে পাকিস্তান। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ভারত ও হংকং। ১৬ সেপ্টেম্বর হংকং-এর বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এশিয়া কাপের মিশন শুরু করবে পাকিস্তান। ১৯ সেপ্টেম্বর ভারতের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান।


আরো সংবাদ