১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ নাসির জামশেদ

ক্রিকেট
১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ নাসির জামশেদ - ছবি: সংগৃহীত

বর্তমান সময়ের ক্রিকেটে স্পট ফিক্সিং তথা ম্যাচ গড়াপেটার ঘটনা খুবই প্রকট হয়ে দাঁড়িয়েছে। একের পর এক বড় ধরনের শাস্তি দিয়েও থামানো যাচ্ছে না ম্যাচ পাতানোর ঘটনা। পাকিস্তান ক্রিকেটে এ পর্যন্ত ঘটছে বেশ ক’টি স্পট ফিক্সিংয়ের ঘটনা।

তবে ম্যাচ পাতানোর রীতি বন্ধের লক্ষ্যে ম্যাচ পাতানো খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। সেই ধারাবাহিকতায় পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) ম্যাচ পাতানোর দায়ে ১০ বছরের জন্য সবধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে দেশটির ওপেনার নাসির জামশেদ।

পিএসএলের ২০১৬-১৭ মৌসুমে ম্যাচ গড়াপেটার দায়ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার। যাদের মধ্যে অন্যতম শাহজাইব হাসানকে গত শুক্রবার ৪ বছরের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল পিসিবি। ঠিক এক সপ্তাহ পর ১০ বছরের নিষেধাজ্ঞা পেলেন জামশেদ।

চলতি বছরের এপ্রিলে নিজের উপরে আসা সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন জামশেদ। ফলে বাধ্য হয়েই পিসিবি চেয়ারম্যান নাজাম শেঠি একটি তিন সদস্যের অ্যান্টি করাপশন ট্রাইবুনাল গঠন করেন। যেখানে ছিলেন সাবেক তিন ক্রিকেট ফজলে মিরান চৌহান, শাহজাইব মাকসুদ ও আকিব জাভেদ।

এই ট্রাইবুনালের রায়েই ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন জামশেদ। শাহজাইব ও জামশেদ ছাড়াও একই ঘটনায় বিভিন্ন মেয়াদে নিষেধাজ্ঞা ভোগ করছেন শারজিল খান, খালিদ লতিফ, মোহাম্মদ ইরফান ও মোহাম্মদ নওয়াজ।

শারজিল, লতিফের পর নাসির জামশেদ
নয়া দিগন্ত অনলাইন, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
পাকিস্তানের দুই ক্রিকেটার শারজিল খান ও খালিদ লতিফের পর এবার নিষিদ্ধ হলেন নাসির জামশেদ। সব ধরনের ক্রিকেট থেকে তাকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। দুর্নীতিবিরোধী কোড ভাঙায় তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।

সোমবার এক সংবাদ বিবৃতিতে এ তথ্য জানায় পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত ক্রিকেটার হলেও পাকিস্তান সুপার লিগে কোন দল পাননি জামসেদ। আগের আসরেও দলশূন্য ছিলেন তিনি।

পিএসএলকে সামনে রেখে এবার শক্ত অবস্থান নিয়েছে পিসিবি। সে ধারায় তদন্তের অংশ হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে ইসলামাবাদের মোহাম্মদ ইরফান এবং করাচি কিংসের জুলফিকার বাবর ও শাহজাইব হাসানকে। যদিও তাদের কারোর ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা দেয়নি বোর্ড।

এ বিষয় নিয়ে পিসিসি প্রধান শাহরিয়ান খান বলেন, ‘আমরা খুব শিগগিরই শারজিল, লতিফ ও জামশেদকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠাবো। তবে শাহজাইব ও জুলফিকার নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছে তাই তাদের খেলতে পারবেন। তবে পর্যবেক্ষণে আছেন পেসার ইরফান।’

উল্লেখ্য, নিষিদ্ধ হওয়ার কারণে ইতোমধ্যেই আরব আমিরাত থেকে দেশে পাঠানো হয়েছে ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের দুই খেলোয়াড় শারজিল ও লতিফকে।

নাসির জামশেদ গ্রেফতার
নয়া দিগন্ত অনলাইন, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
স্পট ফিক্সিংয়ের দায়ে গ্রেফতার করা হয়েছে পাকিস্তানের ক্রিকেটার নাসির জামশেদকে। মঙ্গলবার ব্রিটেনের ন্যাশনাল ক্রাইম অ্যাজেন্সি তাকে গ্রেফতারের খবর জানায়।

এর আগের দিন সোমবারই জামশেদসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। তবে তাদের সনাক্ত করার কথা তখন অস্বীকার করা হয়।

এদিকে পাকিস্তানের জিও টিভি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড- পিসিবি ও আইসিসি’র বরাত দিয়ে জানায়, ব্রিটেনে আটককৃত তিনজনের একজন পাকিস্তানের ব্যাটসম্যান নাসির জামশেদ। বাকি একজনের নাম ইউসুফ, তিনি পাকিস্তান সুপার লিগে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সাথে জড়িত।

এছাড়া ব্রিটিশ ওই সংস্থা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, জাতীয় দুর্নীতি সংস্থার (এনসিএ) কর্মকর্তারা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার সন্দেহে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে।

সংস্থাটি আরো জানায়, চলমান তদন্তে তারা পিসিবি ও আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটের সাথে কাজ একযোগে করছেন।

এর আগে স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত সন্দেহে পাকিস্তানের দুই ক্রিকেটার শারজিল খান ও খালেদ লতিফকে নিষিদ্ধ করে পিসিবি।

সূত্র : ক্রিকইনফো ও হিন্দুস্তান টাইমস


আরো সংবাদ