২১ নভেম্বর ২০১৮

ফাহিমার হ্যাটট্রিক, অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ

ফাহিমার হ্যাটট্রিক, অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ - ছবি : সংগৃহীত

এশিয়া কাপে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েদের বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশের সামনে কোনো দলই দাঁড়াতে পারছে না। বিশ্ব টি-টোয়েন্টির বাছাইয়ে নিজেদের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্যপূরণের মাত্র দুই ম্যাচ দূরে এখন বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। গ্রুপপর্বে টানা তিন ম্যাচ জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই শেষ চারে পা রাখলেন সালমা-রুমানারা। লেগস্পিনার ফাহিমা খাতুনের হ্যাটট্রিকে আরব আমিরাতের মেয়েদের ৮ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ দল। আর এই পরিক্রমায় এবার রেকর্ড বইয়ে নাম লেখালেন ফাহিমা খাতুন। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের মেয়েদের হয়ে করেছেন প্রথম হ্যাটট্রিক।

আমিরাতের মেয়েদের করা ৩৯ রানের জবাবে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় নারী দল। তখনো নিজেদের ইনিংসের বাকি ৭৯টি বল। নিগার সুলতানার ২২ ও সানজিদা ইসলামের ১৫ রানের ইনিংসে মাত্র ৬.৫ ওভার ব্যাট করেই কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

এর আগে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই করেছিল আরব আমিরাত। দলীয় ২৮ রানের মাথায় সাজঘরে ফিরেছিল তাদের মাত্র একজন ব্যাটসম্যান। পরের ১১ রানেই বাকি ৯ ব্যাটসম্যানকে প্যাভিলিয়নের টিকিট ধরিয়ে দেন ফাহিমা, রুমানা, নাহিদারা।

ইনিংসের ১৩তম ওভারের শেষ ৩ বলে টানা ৩ উইকেট তুলে নিয়ে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন ফাহিমা। পরের ওভারেই ২ বলে ২ উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন আরেক স্পিনার রুমানাও। সবমিলিয়ে মাত্র ১৬.২ ওভারে ৩৯ রানে গুটিয়ে যায় আরব আমিরাতের ইনিংস।

বাংলাদেশের পক্ষে ৪ ওভারে ৮ রান খরচায় ৪ উইকেট নেন ফাহিমা। এছাড়া ২ ওভারে ১ মেইডেনের সহায়তায় ৪ রান খরচায় রুমানা ২টি ও ২.২ ওভারে ২ রান খরচায় ২ উইকেট নেন নাহিদা।

আগামী ১২ জুলাই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদশের মেয়েরা। সেই ম্যাচে জিতলে পূরণ হবে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য, মিলবে নভেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজে হতে যাওয়া বিশ্ব টি-টোয়েন্টির টিকিট। পরে ফাইনাল জিতলে পূরণ হবে প্রত্যাশামাফিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্নটাও।

আরো পড়ুন :

কেমন উইকেট অপেক্ষা করছে স্যাবাইনা পার্কে
ক্রীড়া প্রতিবেদক

অ্যান্টিগার সবুজ উইকেট দেখেও চিন্তিত ছিল না বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়েরা। কিন্তু উইকেটে নেমে নিজেদের সামর্থ দেখে লজ্জিতই তারা। এখন প্রস্তুতি তাদের দ্বিতীয় টেস্টের। ওয়েস্টইন্ডিজের বিপক্ষে কাল শুরু হতে যাচ্ছে দ্বিতীয় টেস্ট কিংস্টনে। কিন্তু উইকেট কেমন হবে সেটি এখনো ধারণায় আনতে পারেনি। যেহেতু প্রথম টেস্টে ফার্স্ট বোলারদের সহায়ক সবুজ উইকেটে বাংলাদেশ দল বিধ্বস্ত। বাংলাদেশ দল ধারণা করছে দ্বিতীয় টেস্টেও একই ধরনের উইকেটে খেলা অনুষ্ঠান করবে। প্রথম টেস্ট আড়াই দিনে শেষ হওয়ার পর থেকেই সম্ভাব্য অমন উইকেট ধরেই তামিম, সাকিব, মুমিনুল, রিয়াদ, মুশফিকরা তাদের প্রস্তুতিটা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু আসলেই কী সবুজ উইকেট পাচ্ছে তারা কিংস্টনের স্যাবাইনা পার্ক?

ওয়েস্ট ইন্ডিজের অন্যতম ফার্স্ট উইকেট ছিল স্যাবাইনা পার্ক। কিন্তু ইদানীংকালে এখানে তেমনটা দেখা যায় না। সর্বশেষ এখানে যে পাঁচ ম্যাচ হয়েছে তাতে একটি ম্যাচে জিততে পেরেছে ওয়েস্টইন্ডিজ। সেটিও ২০১২তে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। শেষ ম্যাচটা হেরেছিল তারা পাকিস্তানের বিপক্ষে সাত উইকেটে। গত বছরের এপ্রিলে অনুষ্ঠিত সে ম্যাচে প্রথম ব্যাটিং করতে নেমে ওয়েস্টইন্ডিজ অল আউট হয়েছিল ২৮৬ রানে। জবাবে পাকিস্তান ৪০৭ রান করে। এরপর ওয়েস্টইন্ডিজ ১৫২ রানে অল আউট হলে পাকিস্তানে সহজেই পৌঁছে যায় জয়ের লক্ষ্যে। ম্যাচে মোহাম্মাদ আমির আগুনঝরা বোলিং করে প্রথম ইনিংসে নিয়েছিলেন ৬ উইকেট। পাকিস্তানের বিপক্ষে গ্যাব্রিয়েল ও জোসেফ নেন তিনটি করে। এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে ওয়েস্টইন্ডিজের ব্যাটিং লাইনে ধস নামান ইয়াসির শাহর স্পিন! ৬ উইকেট নিয়েছিলেন। 

ফলে এ ম্যাচ থেকে বাংলাদেশ কিছুটা হলেও শিক্ষা বা ধারণা নিতে পারে বৈকি। এ স্টেডিয়ামে তার ঠিক আগের ম্যাচ ড্র হয়। ভারতের বিপক্ষে। ওই ম্যাচে রবিচদ্রণ আশ্বিন এক ইনিংসে নিয়েছিলেন পাঁচ উইকেট। ওয়েস্টইন্ডিজের স্পিনার রোস্টন চেজও নিয়েছিলেন পাঁচ উইকেট।


আরো সংবাদ