২০ জুন ২০১৯

মৃদু তাপপ্রবাহ, গরম আরো বাড়বে

মৃদু তাপপ্রবাহ, গরম আরো বাড়বে - সংগৃহীত

রাজশাহী, পাবনা, যশোর, রাঙামাটি ও কক্সবাজার অঞ্চলসমূহের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকা সহ বিস্তার লাভ করতে পারে।
সারাদেশে এ তাপমাত্রা ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আজ সকাল ৯ টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টার আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর সিলেট, ময়মনসিংহ, রাজশাহী ও ঢাকা বিভাগের দুএক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে বিরাজমান রয়েছে।
আজ ঢাকায় সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৬ টা ২২ মিনিটে এবং আগামীকাল সূর্যোদয় ভোর ৫ টা ৩১ মিনিটে।
সূত্র : বাসস

ওয়াসার পানি পানে অসুস্থ হলে এমডি কি দায়ভার নেবেন? : নাগরিক সমাজ

বাংলাদেশ সাধারণ নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন আহমেদ এক বিবৃতিতে বলেন, ওয়াসার পানি শতভাগ বিশুদ্ধ বলে ওয়াসার এমডি যে দাবি করছেন, তা আমরা প্রত্যাখ্যান করছি। ওয়াসার পানি পরিশোধিত হলেও সরবরাহকৃত পানি কোনোভাবেই বিশুদ্ধ নয়। সাম্প্রতিক হাসপাতালগুলোতে পানিবাহিত রোগীর সংখ্যা অত্যন্ত বেশি। টিআইবির গবেষণা সঠিক না বেঠিক এ বিষয়ে আমরা কোনো বিতর্কে যেতে চাই না। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, ওয়াসার এমডি নিজেও সরাসরি ওয়াসার সাপ্লাইয়ের পানি পান করবেন না। শুধু তিনি কেন ঢাকা শহরের মোটামুটি সচেতন কোনো নাগরিকই ওয়াসার পানি সরাসরি পান করেন না। সবাই ফুটিয়ে বা ফিল্টার করে পান করেন।

সরবরাহ লাইনের বেহাল দশা, সরবরাহ লাইন তদারকি না করা, বিভিন্ন বাড়ির মালিক কর্তৃক বাড়ির পানির ট্যাংকি দীর্ঘ দিন পরিষ্কার না করা এ পানিদূষণের অন্যতম কারণ। আমাদের কাছে এমন শত শত বাস্তব উদাহরণ রয়েছে, যাদের সাপ্লাইয়ের পানিতে দুর্গন্ধ বা ময়লার অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছে। আমরা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমেও বিভিন্ন সময়ে দেখেছি ওয়াসার পানির এই দুরবস্থা। ওয়াসার এমডির বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তার কাছে আমাদের প্রশ্ন যদি নগরীর বাসিন্দারা আজ থেকে ওয়াসার পানির পান করে অসুস্থ হন, তাহলে তার দায়ভার কি তিনি বহন করবেন? আমরা মনে করি, ওয়াসার পানি বিশুদ্ধ কি না তা নিয়ে টিআইবির সাথে তর্কযুদ্ধে যাওয়াটা বোকামি ছাড়া আর কিছুই নয়। টিআইবিসহ বিভিন্ন সংগঠনের গঠনমূলক সমালোচনাকে আমলে নিয়ে নিজেদের অব্যবস্থপনা দূর করাই শ্রেয়। সবাই মিলে কিভাবে আমরা সুস্থ ও সুন্দর থাকতে পারি তাই হোক আমাদের অঙ্গীকার। বিজ্ঞপ্তি।


আরো সংবাদ