২০ অক্টোবর ২০১৯

সোনারগাঁওয়ে অজ্ঞাত লাশের পরিচয় উদঘাটন

-

লাশের পাশে পড়ে থাকা এক টুকরো কাপড়ই জানিয়ে দিলো লাশের পরিচয়। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পিরোজপুরের পিয়ারনগর এলাকার একটি আমবাগানের ভেতরে অজ্ঞাত লাশের পরিচয় শনাক্ত করেছে পুলিশ। নাম জান্নাতুল জেবা। ঢাকার যাত্রাবাড়ীর কোনাপাড়া এলাকার মান্নান স্কুল অ্যান্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। সে গোপালগঞ্জ জেলার চরমানিকদা গ্রামের দিদার মিয়ার মেয়ে। তারা কোনাপাড়া এলাকায় মোশারফ হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া। উল্লেখ্য, গত ৪ অক্টোবর শুক্রবার একটি পরিচয়হীন অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে সোনারগাঁও পুলিশ। অজ্ঞাতনামাকে আসামি করে সোনারগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পংকজ কান্তি সরকার বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় সোনারগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদকে। দায়িত্ব পাওয়ার পর এসআই আজাদ আলামত হিসেবে লাশের পাশে পড়ে থাকা এক টুকরো কাপড় নিয়ে তদন্ত শুরু করেন।
সোনারগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ জানান, লাশ উদ্ধারের চার দিনের মাথায় অজ্ঞাত লাশের পরিচয় উদঘাটন করা সম্ভব হয়েছে। পরে ডেমরা থানার একটি সাধারণ ডায়েরির সূত্র ধরে নিখোঁজ ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে সংগ্রহ করা কাপড় ও পায়ের জুতো দেখালে ওই পরিবার লাশ তাদের মেয়ের বলে শনাক্ত করে। পরে ডিএনএ পরীক্ষার পর লাশের প্রকৃত পরিচয় উদঘাটন করা সম্ভব হয়। তিনি বলেন, লাশের পাশে পড়ে থাকা এক টুকরো কাপড়ই সন্ধান করে দিলো এ লাশের পরিচয়।
নিহত ছাত্রীর মা মানছুরা বেগম কান্নাজড়িতকণ্ঠে বলেন, গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাতে দুর্বৃত্তরা আমার মেয়েকে ফুসলিয়ে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও মেয়েকে পাইনি। এ ঘটনায় মেয়ের বাবা গত ৪ অক্টোবর ডেমরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। আমার মেয়ের হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের শনাক্ত করে সঠিক বিচার চাই।
সোনারগাঁও থানার ওসি মনিরুজ্জামান মনির জানান, লাশের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যেই জড়িত আসামিদের গ্রেফতার করা হবে।

 

 


আরো সংবাদ




portugal golden visa
paykwik