১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কারুশিল্প দেশের সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্ব করে : এইচ টি ইমাম

বাংলাদেশ হেরিটেজ ক্রাফটস ফাউন্ডেশনের কারুশিল্প মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অতিথিরা : নয়া দিগন্ত -

কারুশিল্প আমাদের দেশের সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্ব করে। তাই এ শিল্প দেশের গর্ব ও ঐতিহ্যের অংশ বলে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম। তিনি বলেন, বাঙালি জাতির কারুশিল্পের ঐতিহ্য অনেক পুরনো। বাংলাদেশ হেরিটেজ ক্রাফটস ফাউন্ডেশন এ শিল্প নিয়ে যে কাজ করছে, তাতে আমরা আনন্দিত।
গতকাল রাজধানীর হোটেল রেডিসনে বাংলাদেশ হেরিটেজ ক্রাফটস ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দুই দিনব্যাপী দ্বিতীয় কারুশিল্প মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
বাংলাদেশ হেরিটেজ ক্রাফটস ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি টুটলি রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত এইচ ই ট্রান ভান খোয়্যা ও সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ। বাংলাদেশে বক্তব্য রাখেন উৎসব উদযাপন কমিটির উপদেষ্টা রোকেয়া আফজাল রহমান, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব:) মনজুর কাদের, গুলশান সোসাইটির সভাপতি সাখওয়াত আবু খায়ের মোহাম্মদ, নারী উদ্যোক্তা দিলরুবা আহমেদ প্রমুখ।
এইচ টি ইমাম বলেন, আমাদের ক্রাফটস, হ্যান্ডি ক্রাফটস, হেরিটেজ আগের থেকেও সমৃদ্ধ হয়েছে। তাদের শুধু রূপান্তর হয়েছে তথ্য প্রযুক্তির দ্বারা। তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ফলে আমাদের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির প্রতিনিয়ত রূপান্তর করছে। তিনি বলেন, যারা এ শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে কাজ করবেন সরকার তাদের পাশে আছে। সরকারের পক্ষ থেকে যে সহযোগিতা করা দরকার, তা করা হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঢাকায় নিযুক্ত ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত এইচ ই ট্রান ভান খোয়া বলেন, বাংলাদেশের কারুশিল্পের ইতিহাস দীর্ঘ দিনের। এ শিল্প অনেক সমৃদ্ধ। ভিয়েতনাম ও বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের। ভিয়েতনামেও অনেক ঐতিহ্যবাহী পর্যটন স্পট রয়েছে। তাই বাংলাদেশী পর্যটকদের জন্য ভিয়েতনাম আকর্ষণীয় গন্তব্য বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, পরিবর্তন ধ্রুবসত্য। যত বেশি পরিবর্তন হবে তত বেশি আমরা সমৃদ্ধ হবো। একটা সময় আমরা ফোক মিউজিক এক ফরম্যাটে শুনতাম, এখন সেই ফোক মিউজিক বিভিন্ন ব্যান্ড এখন ভিন্নভাবে আমাদের কাছে পরিবেশন করছে। আমিও মনে করি আমাদের হেরিটেজ ক্ষয়িষ্ণু নয়, বরং বর্তমান সরকারের অধীনে এটি আরো উন্নত হচ্ছে।
স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ হেরিটেজ ক্রাফটস ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা টুটলি রহমান বলেন, মৃতপ্রায় তাঁতশিল্পকে জাগিয়ে তোলার স্বপ্ন নিয়ে আমি শুরু করেছিলাম হেরিটেজ ক্রাফটস ফাউন্ডেশন। আপনারা আমাকে যে সহযোগিতা করেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞ। অতিথিদের বক্তব্যের পর ফ্যাশন শো অনুষ্ঠিত হয়। এতে মডেলরা গামছা, মনিপুরি শাড়, খাদিসহ আবহমান বাংলার সংস্কৃতি তুলে ধরেন।
দুই দিনব্যাপী এ মেলার প্রদর্শনী প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। প্রদর্শনীতে প্রায় ১৫টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিখ্যাত খাদ্য, ঢাকাই পনির, মাটির হাড়ি, হারিকেন, পাটের পণ্য, বাখরখানি, পিঠা, ঢাকাইয়া জামদানি, রাজশাহী সিল্ক, নকশী কাঁথা, জামদানি শাড়ি, হাতপাখা, ছন দিয়ে তৈরি সামগ্রী, হুগলা পাতার সামগ্রী, মসলিনসহ দেশীয় তাঁতপণ্য স্থান পেয়েছে। সেই সাথে রয়েছে সাংস্কৃতিক আয়োজন।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিনে আজ প্রধান অতিথি থাকবেন থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এইচ ই আরুনরুং ফটং হুমফ্রেস। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন বিজিএমই-এর সভাপতি মিস রুবানা হক ।


আরো সংবাদ