১৮ জুন ২০১৯

পদবঞ্চিত ছাত্রলীগ নেত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা : অভিযোগের কাঠগড়ায় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক

-

এবার আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছেন পদবঞ্চিত সেই ছাত্রলীগ নেত্রী জারিন দিয়া। গত সোমবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রোকেয়া হলের ছাত্রী দিয়া বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য। সদ্যঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে তার কোনো পদ নেই।
দিয়ার ঘনিষ্ঠজনের সূত্রে জানা গেছে, হামলার শিকার হয়েও বিচার না পেয়ে উল্টো সংগঠন থেকে সাময়িক বহিষ্কার হন দিয়া। ব্যক্তিগত আক্রোশের শিকার হন তিনি। এ থেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন এবং ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান।
সূত্র জানায়, ওষুধ খাওয়ার পরে তাকে অসুস্থ অবস্থায় রাত সোয়া ৩টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে জরুরি বিভাগে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে সেখান থেকে তার পাকস্থলী ওয়াশ করার পরে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্রে রাখা হয়। পরে সেখান থেকে কিছুটা স্বাভাবিক অবস্থায় এলে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে তিনি আশঙ্কামুক্ত অবস্থায় বাসায় আছেন।
রাত সোয়া ৪ টার দিকে ছাত্রলীগের সাবেক সমাজসেবাবিষয়ক সম্পাদক রানা হামিদ জানান, এখন তিনি শঙ্কামুক্ত। আমরা তাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মেডিক্যাল সেন্টারে নিয়ে যাচ্ছি।
প্রসঙ্গত, গত ১৩ মে সদ্য ঘোষিত ছাত্রলীগের বিতর্কিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে ঢাবির মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে গেলে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর অনুসারীরা তাদের ওপর হামলা চালায়। হামলায় শ্রাবণী দিশা, জারিন দিয়াসহ অন্তত ১৪ জন আহত হন। এ ঘটনায় বিষোদগার করে এবং ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক কর্তৃক দলীয় ছাত্রী নেত্রীদের প্রতি তাদের মনোভাব ব্যক্ত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি। আলোচনায় বসতে গিয়েও টিএসসিতে ফের হামলার শিকার হন তারা। তবে এসব ঘটনায় মূল জড়িতদের পাশ কাটিয়ে দিয়াসহ কয়েকজনকে সাময়িক ও স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়। গত রাতে আত্মহত্যা চেষ্টা করেন দিয়া।
এ দিকে ভুক্তভোগী হওয়ার পরও দিয়ার বহিষ্কার এবং আত্মহত্যার চেষ্টায় ছাত্রলীগের ভিতর-বাইরে সমালোচনার ঝড় বইছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সমালোচনা করেছেন ভুক্তভোগী ও সচেতন নেতাকর্মীরা। যার পদই নেই তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কারের ব্যাপারেও সমালোচনা করেন তারা। সমালোচনার কেন্দ্রে রয়েছে কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএম লিপি আক্তার নয়া দিগন্তকে বলেন, ওর সাথে যে আচরণ করা হয়েছে তা সবাই জানে। আন্দোলন করতে গিয়ে হামলার শিকার হলো। সেলফ ডিফেন্স করেছে সে। অথচ তাকেই বহিষ্কার করা হলো। দিয়ার বহিষ্কারের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, ফেসবুকে স্ট্যাটাসের কারণেও যদি বহিষ্কার হয়, তবে সেটা তো গ্রহণযোগ্য হলো না। এটাকে তিনি ব্যক্তিগত আক্রোশ বলে অভিহিত করেন।
সাবেক প্রচার সম্পাদক এবং পদবঞ্চিতদের আন্দোলনের সমন্বয়কারী সাইফ বাবু বলেন, আহত হওয়ার পরও ওই ঘটনায় দিয়াকে বহিষ্কার করা থেকেই প্রমাণিত হয় এটা একটা প্রহসন। এটা ব্যক্তিগত আক্রোশ ছাড়া আর কিছুই নয়। তিনি বলেন, আমরা একটা সুষ্ঠু সমাধান চেয়েছিলাম, কিন্তু বিষয়টা যে দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তা কোনো সমাধান নয়। দিয়ার ভাইরাল হওয়া স্ট্যাটাসের জেরেই বহিষ্কার হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি মন্তব্য করতে রাজি হননি।

 


আরো সংবাদ

আফগানদের পঞ্ম হারের ‘স্বাদ’ দিলো ইংলিশরা সাকিবকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় অস্ট্রেলিয়া আমরা সেমিফাইনাল খেলতে চাই : সাকিব ৮ দিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে মারা গেলেন মেধাবী ছাত্র রাজু মোবাইল চার্জ দিতে গিয়ে নারীর মর্মান্তিক মৃত্যু রোহিঙ্গাদের রক্ষায় পদ্ধতিগতভাবে ব্যর্থ হয়েছে জাতিসঙ্ঘ : পর্যালোচনা প্রতিবেদন গাজীপুর সদর উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী জয়ী, স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভোট বর্জন সাইফউদ্দিন-মোস্তাফিজে ভারতকে পিছনে ফেলল বাংলাদেশ ভোটার শূন্য কেন্দ্রে জালভোটের মহোৎসব ঘাপটি মেরে বসে থাকলেও তাদের ষড়যন্ত্র থেমে নেই : নাসিম ওয়ানডে ক্রিকেটে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন মরগান

সকল