১৭ জুন ২০১৯

সিএমইউজের বার্ষিক মিলাদ ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

-

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, বর্তমান সময়ে সাংবাদিকেরা দুর্যোগময় সময় অতিক্রম করছে। যারা একসময় সাংবাদিকতায় এসেছিল অনেকেই সাংবাদিকতা করার মানসিকতা হারিয়ে ফেলেছে। আজকের প্রেক্ষাপটে অনেক সাংবাদিক নিজেদের পেশা ছেড়ে ব্যবসায় মনোনিবেশ করছে, অনেকে দেশের বাইরে চলে যেতে বাধ্য হচ্ছে। অনেকে অন্যত্র চাকরি করছে। সাংবাদিকেরা যে উদ্দেশ্য নিয়ে এই পেশায় এসেছিল সেটি এখন বাংলাদেশে অনুপস্থিত। মূলত অবদমিত ও নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে সত্যিকার অর্থে সাংবাদিকতা চর্চা অসম্ভব। দেশের সব শ্রেণী ও পেশার মানুষকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে যার যার অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখতে হবে।
তিনি গত সোমবার নগরীর একটি রেস্টুরেন্টে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিএমইউজে) আয়োজিত বার্ষিক মিলাদ ও ইফতার মাহফিলে বক্তৃতাকালে এ কথা বলেন।
আমীর খসরু বলেন, যে রাজনীতিতে মানুষের কোনো সম্মতি নেই সেই রাজনীতির কোনো ভিত্তি থাকে না। নিয়ন্ত্রিত ও জুলুমতন্ত্র কায়েমের মাধ্যমে সরকার যে তাসের ঘর গড়ে তুলেছে, তা যেকোনো মুহূর্তে ভেঙে পড়তে পারে। আগামী দিনে দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, আইনের শাসন, মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনার যে সংগ্রাম তাতে আমাদের জয়ী হতে হবে এবং এ সংগ্রামে জয়ী হলেই বেগম জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব হবে।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি রুহুল আমিন গাজী বলেন, আমরা এমন একটি সময় অতিক্রম করছি যখন দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই, যখন বাংলাদেশে মানুষের ভোটাধিকার অনুপস্থিত, যখন দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম জিয়া কারাগারে। এই সময়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করি আল্লাহ যেন দেশনেত্রীকে মুক্ত করেন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনেন ও দেশে যেন ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠা করেন।
নগর বিএনপির সভাপতি ডা: শাহাদাত হোসেন বলেন, আজ চিকিৎসক-সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ অতিমাত্রায় দলীয় রাজনীতির আবর্তে জড়িয়ে পড়ছি। বিভিন্ন পেশাজীবী প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনগুলো অতিমাত্রায় রাজনীতিকীকরণ হয়ে গেছে। এ ধরনের সঙ্কীর্ণ বিভাজনের রাজনীতি কারো জন্য কল্যাণকর নয়।
সিএমইউজে সভাপতি সামশুল হক হায়দরীর সভাপতিত্বে ও ইফতার মাহফিল উপ-কমিটির আহ্বায়ক সাইফুল্লাহ চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেনÑ সাবেক মন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, বিএফইউজের মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ, সিনিয়র সহসভাপতি নুরুল আমিন রোকন, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য অ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেন, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি বদরুল আনোয়ার, নগর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম, বিজিএমইর প্রথম সহসভাপতি এম এ ছালাম, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, নগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মোহাম্মদ ফরিদ, বিজিএমইএর সাবেক পরিচালক সাইফুল্লাহ মানসুর প্রমুখ।
মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেনÑ চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ নওয়াজ, সাংবাদিক নেতা ইসকান্দার আলী চৌধুরী, জাহিদুল করিম কচি, সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট কফিল উদ্দিন চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন, এ্যাব নেতা ইঞ্জিনিয়ার জানে আলম সেলিম, অ্যাডভোকেট কাসেম চৌধুরী, চিকিৎসক নেতা ডা: আব্দুল মান্নান, মহিলা নেত্রী মনোয়ারা বেগম মনি, ডা: নোমান খালেদ চৌধুরী, ডা: সারোয়ার আলম, ডা: বেলায়েত হোসেন ঢালী, ডা: লুসি খান প্রমুখ।


আরো সংবাদ