১৩ নভেম্বর ২০১৯

সিকান্দার আবু জাফর ছিলেন সম্মুখ সারির যোদ্ধা আসাদ চৌধুরী

-

কবি আসাদ চৌধুরী বলেছেন, সাম্প্রদায়িকতা, দুর্ভিক্ষ, গণতন্ত্রহীনতা ইত্যাদির বিরুদ্ধে আগাগোড়া সোচ্চার ছিলেন সিকান্দার আবু জাফর। নাগরিক অধিকার সংরক্ষণের ক্ষেত্রে সব সময় তিনি ছিলেন সম্মুখ সারির যোদ্ধা। জন্মশতবর্ষের শুভলগ্নে তার মতো অসাধারণ কবি, গীতিকার, পথিকৃৎপ্রতিম সম্পাদক এবং সর্বোপরি অনন্য মানবতাবাদী ব্যক্তিত্বের অভাব আজ বিশেষভাবে অনুভূত হচ্ছে। গতকাল কবি সিকান্দার আবু জাফর স্মরণে একক বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।
বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে দুপুরে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী। ‘কবি সিকান্দার আবু জাফর ও তার সময়’ শীর্ষক বক্তব্য দেন কবি আসাদ চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। আরো উপস্থিত ছিলেন কবি রুবি রহমান, কবি কাজী রোজী, ইসরাইল খান, নজরুল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক মানিক মোহাম্মদ রাজ্জাক এবং সিকান্দার আবু জাফরের কন্যা কবি সুমী সিকান্দার।
অনুষ্ঠানে একক বক্তা আসাদ চৌধুরী বলেন, সিকান্দার আবু জাফরের গল্প, উপন্যাস এবং প্রবন্ধ-নিবন্ধ, সম্পাদকীয় সর্বত্রই ছিল বাংলাদেশ ও তার শোষিত-বঞ্চিত মানুষের মুক্তি, মানবতার জয়গান। একই সাথে তিনি ছিলেন জাতীয়তাবাদী এবং আন্তর্জাতিকতাবাদী। তাই সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুক্তিকামী মানুষের স্বপক্ষে সোচ্চার ছিল তার ক্ষুরধার কলম। তার সম্পাদিত সাহিত্য পত্রিকা সমকালের সম্পাদকীয় নিবন্ধেও একজন প্রগতিশীল মানবতাবাদী লেখকের কণ্ঠস্বর শুনতে পাওয়া যায়। এই পত্রিকায় প্রতিকূল পরিস্থিতিতে তিনি বাঙালি জাতিসত্তার অনুকূলে লিখিত গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ প্রকাশ করেছেন অসম সাহসিকতায়। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রচিত তার বিখ্যাত কবিতা সঙ্কলিত হয়েছিল ‘বাঙলা ছাড়ো’ কাব্যগ্রন্থের।
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, কবি সিকান্দার আবু জাফরের কবি ও গীতিকার সত্তা অভিন্নপ্রায়। তবে তার জীবনের সেরা কীর্তি সমকাল পত্রিকা সম্পাদনা। এই পত্রিকার পাতায় পাতায় তার রুচি ও সাহসের পরিচয় মুদ্রিত আছে। এ দেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে তার ‘বাঙলা ছাড়ো’, ‘জনতার সংগ্রাম’ কিংবা ‘আমার অভিযোগ’-এর মতো রচনা নানাভাবে প্রেরণা জুগিয়েছে।
স্বাগত বক্তব্যে হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, সিকান্দার আবু জাফর ছিলেন বহুমুখী মননের মানুষ। তার কবি ও গীতিকার সত্তা উৎসর্গিত হয়েছে জনমানুষের মুক্তির আবাহনে। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে যেমন তার সাহসী সাহিত্যিক ভূমিকা ছিল, তেমনি স্বল্পায়ু জীবনে তিনি মানুষের মানবিক অধিকারের পক্ষে সব সময় ছিলেন সোচ্চার। তার সম্পাদিত সাহিত্যপত্র সমকাল বাংলা সাময়িকপত্রের ইতিহাসে অসাধারণ উচ্চতর স্থান অধিকার করে আছে।


আরো সংবাদ

ডা. শফিকুর রহমান জামায়াতে ইসলামীর আমীর নির্বাচিত (২৬৯৯৯)বাবরি রায় নিয়ে যা বললেন দিল্লির শাহী ইমাম (২৫২৯২)বিয়ের ২৮ দিন পর স্বামী হারানো সেই আফরোজার কোলে নতুন অতিথি (১২০৩৩)মন্দিরের আগে রামের বিশাল মূর্তি অযোধ্যায় (১১৯১২)হাসপাতালের মর্গে ছোঁয়ামনির নিথর দেহ, ইয়াছিনের খোঁজে স্বজনদের আহাজারি (১০৮৮৭)ট্রেন দুর্ঘটনা : বি.বাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি ৪৪, রক্তের প্রয়োজন (৯৭৮৬)ব্রিটেনের নির্বাচনে পাকিস্তান-ভারত লড়াই! (৮৪৯৬)বাবরি মসজিদের স্থানে রাম মন্দির নির্মাণ নিয়ে হিন্দু সংগঠনগুলোতে প্রকাশ্য মতপার্থক্য ও বাকযুদ্ধ (৮১১২)গোসলের পর কাফন পরানো হলেও জানাজা হল না কিবরিয়ার (৭৮২৫)মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করায় গাম্বিয়াকে ঢাকার অভিনন্দন (৭৭৫৬)