মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮
বেটা ভার্সন

বাজেটে শিক্ষার মান উন্নয়নে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখা হয়নি : ছাত্রশিবির

-

ইসলামী ছাত্রশিবিরের সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত ও সেক্রেটারি জেনারেল ড. মোবারক হোসাইন বলেছেন, ২০১৮-১৯ সালের প্রস্তাবিত বাজেটে শিার গুণগত মান উন্নয়নে পর্যাপ্ত বরাদ্দ না রেখে গতানুগতিক বাজেট পেশ করা হয়েছে। গতকাল এক বিবৃতিতে তারা বলেন, ভোটারবিহীন অনির্বাচিত সরকার কখনো জনগণের কল্যাণে কাজ করতে পারে না। তা ২০১৮-১৯ সালের বাজেটের মাধ্যমে আবারো প্রমাণ হয়েছে। এ বাজেটে সরকারের চরম অযোগ্যতারও বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে জনগণকে ধোকা দিতে ভোটারবিহীন, অবৈধ, অনির্বাচিত সরকার বিশাল ঘাটতির ঋণনির্ভর চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছে। এই অবাস্তব ও উচ্চাবিলাষী বাজেটকে ইতোমধ্যেই রাজনৈতিক বাজেট বলে অভিহিত করেছে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদরা। কেন না এ বাজেটের মধ্যে ৫১ হাজার ৩৩৮ কোটি টাকা বা ১৮.০১ শতাংশ অর্থই ব্যয় হবে সরকারের নেয়া ঋণের সুদ পরিশোধে। বিশাল অঙ্কের ঋণ ও ঋণের সুদ পরিশোধ করতে গিয়ে জনগণের ঘাড়ে করের বাড়তি বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়েছে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, এবারও বাজেটে শিাখাতকে যথাযথ গুরুত্ব দেয়া হয়নি। এই খাতে গত বছরের চেয়ে এ বছরে বরাদ্দের পরিমাণ বাড়লেও শতাংশ কমেছে। বিগত বছরে শিাখাতে বরাদ্দ ছিল ৫০ হাজার ৪৩৯ কোটি টাকা যা মোট বাজেটের ১২.২৯ শতাংশ। কিন্তু এ বছরে বরাদ্দ বেড়ে ৫৩ হাজার ৫৪ কোটি টাকা হলেও তা মোট বাজেটের ১১.৪১ শতাংশ যা গত বছরের তুলনায় ০.৮৮ শতাংশ কম। শিা উপকরণের দাম কমানোর জন্য দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্রসমাজ দাবি করে আসছে। কিন্তু বিভিন্ন পণ্যের দাম কমানো হলেও শিা উপকরণের দাম কমানো হয়নি। বিশেষ করে, সরকার কওমি মাদরাসা সনদের স্বীকৃতি প্রদান করলেও তাদের জন্য বাজেটে সুনির্দিষ্ট কোনো বরাদ্দ রাখেনি। বিজ্ঞান শিার সুযোগের েেত্র সরকারি কলেজ ও স্কুলের ব্যাপারে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে কিন্তু বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে এ ব্যাপারে উদ্যোগ পরিলতি হয়নি। এই বাজেট শিাখাতে যথাযথ গুরুত্ব প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি।


আরো সংবাদ