১২ নভেম্বর ২০১৯

ফেনীতে ৩৭ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

-

সোনাগাজীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গোয়েন্দা পুলিশের সাথে 'বন্দুকযুদ্ধে' আন্ত:জেলা ডাকাত দলের সর্দার ইকবাল হোসেন (৩৫) ওরফে ইকবাল ডাকাত নিহত হয়েছেন। আজ বুধবার রাত ৩টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের পাঠান বাড়ি সংলগ্ন আজম খান মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ডাকাতের হামলায় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি এক নলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গোপন সংবাদে পুলিশ জানতে পারে ছাড়াইতকান্দি গ্রামে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। সংবাদে ফেনীর ডিবি ও সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের একটি দল ওই গ্রামে যৌথ অভিযান চালায়। পুলিশের আভিযানিক দল ছাড়াইতকান্দি গ্রামের পাঠান বাড়ি সংলগ্ন আজম খান মার্কেটের সামনে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সঙ্ঘবদ্ধ ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এসময় পুলিশ পাল্টা গুলি করলে ইকবাল গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে এবং তার সহযোগিরা পালিয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি এক নলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করে।

ইকবালকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। তার লাশ ময়না তদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া থানা ছাড়া জেলার পাঁচটি থানা ও মীরসরাই থানায় মোট ৩৭টি মামলা রয়েছে।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ চলতি বছরের ২৫ জুলাই রাত ২টার দিকে তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. সিএস করিমের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় ইকবালের নাম উঠে আসে। গ্রেফতারকৃত চারজন তার নেতৃত্বে ডাকাতি করেছে মর্মে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। ইকবাল গ্রেফতারের জন্য হন্য হয়ে খুঁজতে থাকে পুলিশ। পুলিশের দাবি ইকবাল জেলখানায় থেকেও তার শিষ্যদের দিয়ে ডাকাতি করাতো। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি ও হত্যা সহ ৩৭টি মামলা রয়েছে। এর আগে একাধিক ঘটনায় তার বাড়ি থেকে ডাকাতির মালামাল উদ্ধার করা হয়েছিল।

সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঈন উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


আরো সংবাদ

সকল