২১ জুলাই ২০১৯

খুনি লবু দাস সম্পর্কে পুলিশের চাঞ্চল্যকর তথ্য

-

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে মন্দিরে ঘুমন্ত ব্যক্তিকে খুন করে শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ব্যাগে ভরে থানায় গিয়ে হাজির হওয়া লবু দাস (৪৮) সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, লবু দাসের আরেক নাম নবকৃষ্ণ দাস। তার বিরুদ্ধে আপন চাচাকেও হত্যার অভিযোগ ছিলো। কয়েক বছর আগে নবকৃষ্ণ ওরফে লবু দাস তার আপন চাচা ও নাসিরনগর সদর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের তৎকালীন মেম্বার মতিলাল দাসকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। সম্প্রতি মতিলাল দাস হত্যার অভিযোগ থেকে সে বেকসুর খালাস পেয়েছে।

এদিকে একাধিক সূত্র দাবি করছে রহস্যজনক কারণে আদালতে যথাযথভাবে সাক্ষ্য-প্রমাণ ও তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন না হওয়ায় সে ওই হত্যার অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছে।

এই ব্যাপারে গৌরমন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্মল চন্দ্র চৌধুরী বলেন, নাসিরনগর পশ্চিমপাড়ায় বাজারের কাছে মতিলাল মেম্বার হত্যা ঘটনাটি সংঘটিত হয়েছিল। তখন এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় স্থানীয়রা লবু দাসকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছিল। কিন্তু আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে সে কীভাবে খালাস পেল আমাদের বোধগম্য নয়।

তিনি বলেন, কার দুর্বলতায় প্রকাশ্য দিবালোকের হত্যার অভিযোগ থেকে সে খালাস পেল তা এখন দেখার বিষয়। আরেকটি হত্যাকান্ড সংঘটিত হবার পর এখন শোনা যাচ্ছে জেল থেকে বের হয়ে আসার পরেও সে অনেককে হুমকি-ধামকি দিয়েছে। কিন্তু তারা পুলিশের কাছে অভিযোগ দেয়নি। তার চালচলনে তাকে মানসিক রোগী মনে করায় কেউ তার হুমকি আমলে নেয়নি বলে নির্মল চন্দ্র চৌধুরী উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নাসিরনগর গৌর মন্দিরের নাট মন্দিরে ঘুমন্ত অবস্থায় লিটন ঘোষ নামে এক যুবককে খুন করে শরীর থেকে মাথা দ্বিখণ্ডিত করে ব্যাগে ভরে থানায় গিয়ে হাজির হয় লবু দাস (৪৮)। লিটন ঘোষ কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচরের মৃত লাল ঘোষের ছেলে। সে নাসিরনগরে তার বোনের বাড়িতে বেড়াতে এসে দুপুরে গৌর মন্দিরের নাট মন্দিরের মঞ্চে ঘুমাচ্ছিল। এসময় লবু দাস দা দিয়ে কুপিয়ে লিটন ঘোষের শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। পরে কাটা মাথা ও দা নিয়ে নাসিরনগর থানায় হাজির হয় লবু দাস। বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে লিটন ঘোষের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। কিন্তু কী কারণে লবু এই পাশবিক হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে তা এখনো আবিষ্কার করতে পারেনি পুলিশ।


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi