১৭ জুন ২০১৯

আ’লীগ নেতার খোঁজে জঙ্গলে জঙ্গলে তল্লাশি

বান্দরবানে অপহৃত আওয়ামী লীগ নেতা চ থোয়াই মং মারমার খোঁজে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে এবার স্থানীয় লোকজন উদ্ধার অভিযানে নেমেছে। শুক্রবার সকাল থেকে বান্দরবানের কুহালং, রাজবিলা, সদর, নোয়াপতংসহ বিভিন্ন এলাকার বেশ কয়েকটি পাড়ার সহস্রাধিক লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে সম্ভাব্য এলাকাগুলোতে তল্লাশি চালিয়েছে।

জানা যায়, দশটিরও বেশি দলে বিভক্ত হয়ে স্থানীয় লোকজন পাহাড়ি জঙ্গলগুলোতে অভিযান চালায়। তাদের সাথে পুলিশ সদস্যরাও অভিযানে নামে। শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত তল্লাশি অভিযানে অপহৃত আওয়ামী লীগ নেতা চ থোয়াই মং মারমার কোনো খোঁজ পাওয়া না গেলেও কুহালং ইউনিয়নের জর্ডান পাড়ার কাছে একটি জঙ্গলে মানুষের রক্ত দেখতে পেয়েছেন স্থানীয়রা। একটি স্থানে রক্তগুলো জমাট বেঁধে ছিল। রক্তের দাগ দেখে স্থানীয়দের মধ্যে সন্দেহ দানা বাঁধছে। চ থোয়াই মং মারমাকে সন্ত্রাসীরা হত্যা করেছে কিনা।

বান্দরবান সদর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, বেশ কয়েকটি পাড়ার সহস্রাধিক লোকজন সকাল থেকে বিভিন্ন জঙ্গলে কয়েকটি ভাগে ভাগ হয়ে তল্লাশি অভিযানে নামে। তাদেরকে পুলিশ সদস্যরা সহায়তা দিয়েছে। তবে একটি স্থানে কিছু রক্তের দাগ ছাড়া অপহৃত নেতার এখনো কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। রক্তগুলো মানুষের হলেও এটি অপহৃত চ থোয়াই মং এর কি না তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তবে রক্তের দাগ দেখার পর পুলিশ ও স্থানীয়রা আরো বিস্তীর্ণ এলাকায় তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা পাইহ্লা অং মারমা জানিয়েছেন, সম্ভাব্য স্থানগুলো ঘিরে স্থানীয়রা ব্যাপকভাবে তল্লাশি চালাচ্ছে। যেসব এলাকা দিয়ে সন্ত্রাসীরা অপহৃত নেতাকে নিয়ে গেছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে সেসব জায়গায় তল্লাশি চালানো হচ্ছে।

এদিকে রাজবিলা কুহালংসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় পুলিশ ও স্থানীয়দের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, বুধবার রাতে উজি মুখপাড়া এলাকার একটি খামার বাড়ি থেকে পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বান্দরবান পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর চ থোয়াই মং মারমাকে সন্ত্রাসীরা অপহরণ করে। ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগ আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জনসংহতি সমিতিকে দায়ী করছে। যদিও জনসংহতি সমিতির নেতৃবৃন্দ অপহরণ ঘটনার সাথে তাদের সম্পৃক্ততার অভিযোগ অস্বীকার করছে। গত ১৫ দিনের ব্যবধানে বান্দরবানের রাজবিলা কুহালং এলাকায় সন্ত্রাসীদের হাতে তিনজন নিহত ও দুজন অপহৃত হয়েছে। এরা সবাই জনসংহতি সমিতি ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থক।


আরো সংবাদ

অবশেষে বিএনপি নেতা হাসান মামুনকে গ্রেফতার দেখানো হলো বিএসআরএফের নির্বাচন অনুষ্ঠিত : তপন সভাপতি শামীম সেক্রেটারি ময়দানের যুদ্ধে জিতে গেলো ভারত ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও পানির প্লান্ট বাস্তবায়নে ডেনমার্ক সহযোগিতা করছে : রাষ্ট্রদূত খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে ২২ জুন বিএনপি অফিসের সামনে বিক্ষোভ আইনজীবীদের প্রত্যেক জেলায় বিকেএসপির শাখা হবে : ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী পরিকল্পিত নগর উন্নয়ন নাগরিকদের সেবা প্রাপ্তি সহজ করে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী রাজধানীতে বস্তির সংখ্যা ৩৩৯৪টি ঋণ না পাওয়াটা এসএমই শিল্প উন্নয়নে প্রধান বাধা ’৭৫-এর মতো গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধে মরিয়া সরকার : আমীর খসরু ব্রিটিশ বাংলাদেশীদের চামড়া শিল্পে বিনিয়োগের আহ্বান শিল্পমন্ত্রীর

সকল