১৯ আগস্ট ২০১৯

নবীনগরে তুচ্ছ ঘটনায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ : পুলিশের ফাঁকা গুলি, আহত ৩০

-

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের বড়িকান্দি ইউনিয়নে আম দিয়ে ঢিল দেয়ার ঘটনায় দুই গ্রামবাসীর মধ্যে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে পুলিশ সহ প্রায় অর্ধশত লোক আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১০৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় অজ্ঞাতনামা দুই হাজার জনকে আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ। বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র উদ্ধারসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
জানা যায়, উপজেলার বড়িকান্দি ইউনিয়নের থোল্লাকান্দি ও নুরজাহানপুর গ্রামের যুবকদের মাঝে আম দিয়ে ঢিল মারার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু-গ্রামের লোকজন দেশিয় অস্ত্রসস্ত্র ও বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ে গনিশাহ মাজার প্রাঙ্গণ এলাকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত দফায় দফায় ইট পাটকেল, টেটা ও তীর নিক্ষেপ এবং ককটেল বিষ্ফোফারণ ঘটানোর মধ্য দিয়ে সংঘর্ষ চলে। ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে ১০৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে ইব্রাহিম নামে এক পুলিশ সদস্য সহ উভয় পক্ষের ৩০ জন আহত হয়েছে। আশংকাজনক অবস্থায় মো. হুমায়ুন কবির মাস্টার (৪৮), মো. হাবিবুর রহমান(২২), রিফাত মিয়া (১৮) কে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া আহত, নূরুল ইসলাম (৬০), শাহজালাল মিয়া(৩০), খায়রুল(২২), জুয়েল মিয়া (২৫), মাহাবুব (১৮), হৃদয় মিয়া (২০), সাগর মিয়া (২৫), শাহজালাল (২৮), রহমত উল্লাহ (২০), মো.তুষার মিয়া (২৭), সজল (১৯), সুজন (১৮) কে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নবীনগর থানার অফিসার্স ইনচার্জ রনোজিত রায় বলেন, এই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা দুই হাজার জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে নুরজাহানপুর গ্রামের জুয়েল রেজা(২৫),ভুট্টু মিয়া(৪৭),মহিউদ্দিন (২৬), থোল্লাকান্দি গ্রামের রাজিব উদ্দিন (১৯), মো.আমিন (১৯) ও বড়িকান্দি গ্রামের রাসেল মিয়াকে (২২) গ্রেফতার সহ বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।


আরো সংবাদ




bedava internet