১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

বিয়ের চার মাসের মাথায় নববধূকে হত্যা

প্রতীকী ছবি - সংগৃহীত

বিয়ের চার মাস যেতে না যেতেই স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে পাষন্ড স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায়। শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার বগডহর গ্রামের তারা মিয়ার ছেলে হাশেম তার নব-পরিণিতা স্ত্রী রিতাকে (১৯) শ্বাসরোধে হত্যা করে। পারিবারিক কলহের জের ধরে এ হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার।

এদিকে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় পুলিশ নিহত রিতার লাশ উদ্ধার ও নিহতের স্বামী হাশেম মিয়াকে (২১) আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত চার মাস আগে নবীনগর উপজেলার বগডহর গ্রামের তারা মিয়ার ছেলে হাশেমের সঙ্গে একই উপজেলার ধোপাকান্দা গ্রামের নুরুল ইসলামের মেয়ে রিতার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই পারিবারিক বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে কলহ শুরু হয়। এ কলহের জের ধরে শুক্রবার দিবাগত রাতে রিতাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে হাশেম।

নবীনগর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাজু আহমেদ জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত নিহতের স্বামী হাশেমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। অভিযোগ ও তদন্তের ভিত্তিতে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

আরো পড়ুন : মেহেদী রং না মুছতেই লাশ নববধূ, স্বামী আটক
নারায়ণগঞ্জ ও সিদ্ধিরগঞ্জ সংবাদদাতা, (০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)

হাতের মেহেদী রং এখনো রয়েছে তাজা। স্বপ্ন ছিল স্বামীকে নিয়ে সুখের সংসারে বসবাস করবে। কিন্তু সেই আশা চুরমার করে দিয়ে বিয়ের এক মাসের মাথায় দুনিয়া ছেড়ে চলে গেলো এক নববধূ। নিহত নববধূর নাম নাঈমা আক্তার(২১)।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টায় নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের নতুন বাজার এলাকার হান্নান মিয়ার ভাড়া বাসা থেকে নাঈমার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় নববধূ নাঈমা আক্তারের ঝুলন্ত লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ নাঈমার লাশ উদ্ধার ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহত নাঈমার স্বামী শহিদুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ।


জানা গেছে, মাসখানেক পূর্বে বাগেরহাট জেলার দেলোয়ারের কন্যা নাঈমা আক্তারকে বিয়ে করেন খুলনা জেলার রূপসা থানার তালিমপুরের বাসিন্দা নুরুল ইসলামের ছেলে শহিদুল ইসলাম। বিয়ের পর সিদ্ধিরগঞ্জের নতুন বাজার এলাকায় ছোটভাই আমিনুল ইসলামের বাসায় স্ত্রী নাঈমাকে নিয়ে বসবাস করছিল সে। বৃহস্পতিবার সকালে খাবারের জন্য আমিনুল ইসলামের স্ত্রী খাদিজা বেগম ডাক দিতে গেলে হাত, মুখ ও পা বাঁধা অবস্থায় ঘরের আড়ার সাথে নাঈমা আক্তারের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম জানান, ধারণা করা হচ্ছে, পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামী শহিদুল নববধূ নাঈমাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখে। তবে ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মোঃ শাহীন শাহ্ পারভেজ বলেন, গৃহবধূ নাঈমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এটা আত্মহত্যা নাকি হত্যা তা ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে। তবে এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্বামীকে থানায় আনা হয়েছে।


আরো সংবাদ

বন্দুকযুদ্ধে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ মামলার আসামি নিহত চীন-বিরোধী জোট গড়তে তৎপর ভারত জাতীয় স্মৃতিসৌধে লাল সবুজের মিলনমেলা জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিক্ষোভ : দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশের লাঠিচার্জ ব্যবসায় মন্দার পদধ্বনি মুক্তিযোদ্ধাদের চূড়ান্ত তালিকা ২৬ মার্চ যেকোনো মূল্যে ব্যাংকের আত্মসাৎকৃত টাকা আদায় করতে হবে : হাইকোর্ট টিকিট নিয়ে অনিয়মের অভিযোগে স্টেশন মাস্টারসহ ৪ জন বরখাস্ত আটাবে সম্মিলিত ফোরাম পূর্ণ প্যানেলে বিজয়ী সংগ্রাম সম্পাদক ও সাংবাদিক নেতাদের মামলা প্রত্যাহারে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম

সকল




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik