২৪ মার্চ ২০১৯

সাড়ে তিন লাখ ইয়াবাসহ কারবারিদের আত্মসমর্পণ

আত্মসমর্পণ করা ইয়াবা কারবারিদের ফুল দিয়ে বরণ করে নিচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী - নয়া দিগন্ত

কক্সবাজারে ১০২ জন ইয়াবা কারবারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠের মঞ্চে তারা আত্মসমর্পণ করেন। আত্মসমর্পণকারীরা ৩ লাখ ৫০ হাজার ইয়াবা ও ৩০টি দেশীয় পিস্তল জমা দেন। এ সময় তাদেরকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।


এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ‘সেফহোম’ থেকে শীর্ষ ইয়াবা কারবারিদের কক্সবাজারের টেকনাফে আত্মসমর্পণ মঞ্চে আনা হয়। মঞ্চের কাছে একটি দোতলা ভবনে তাদের রাখা হয়।


পৌনে ১১টায় আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দিন, উখিয়া- টেকনাফের সংসদ সদস্য শাহিন আক্তার, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন ও জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন ও টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। কক্সবাজারের তিন সংসদ সদস্যও উপস্থিত ছিলেন সেখানে।


পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আত্মসমর্পণকারী ১০২ জন ইয়াবা ব্যবসায়ীর মধ্যে অন্তত ৩৫ জন গডফাদার রয়েছেন। প্রথমে কোনো মামলা দেয়ার কথা না থাকলেও শেষ পর্যন্ত ইয়াবা কারবারিদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও ইয়াবা মিলে মোট দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।


আত্মসমর্পণকারীদের দেখতে তাদের স্বজন ও এলাকার হাজারো মানুষ ভিড় জমান। তালিকাভুক্ত কয়েকজন ইয়াবা কারবারিকেও অনুষ্ঠানস্থলে দর্শক হিসেবে কাছে দেখা গেছে।

 

আত্মসমর্পণ করা ইয়াবা কারবারি
আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে রয়েছেন- টেকনাফ পৌরসভার চৌধুরী পাড়ার বাসিন্দা আবদুস শুক্কুর, শফিকুল ইসলাম শফিক, আমিনুর রহমান ওরফে আবদুল আমিন, ফয়সাল রহমান, বদির দুই ভাগিনা সাহেদ রহমান নিপু ও টেকনাফ পৌর ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নূরুল বশর ওরফে নূরশাদ, মং সিং থেইন ওরফে মমসি, কামরুল হাসান রাসেল, মারুফ বিন খলিল বাবু, বদির বেয়াই সাহেদ কামাল, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আলমের ছেলে দিদার মিয়া। টেকনাফের হ্নীলার ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার নুরুল হুদা, টেকনাফ সদরের ৮ নং ওয়ার্ডের এনামুল হক এনাম মেম্বার, সাবরাংয়ের ১ নং ওয়ার্ডের মোয়াজ্জেম হোসেন দানু মেম্বার, হ্নীলার ৭ নং ওয়ার্ডের জামাল মেম্বার, সাবরাং ইউপির শাহপরীর দ্বীপের ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার রেজাউল করিম রেজু মেম্বার, উত্তর আলী খালির শাহ আজম ও সাবরাং নয়াপাড়ার আলমগীর ফয়সাল লিটন, ইয়াবা ডন হাজী সাইফুল করিমের দুই শ্যালক জিয়াউর রহমান ও আবদুর রহমান। টেকনাফের পশ্চিম লেদার নুরুল কবির, হ্নীলা সিকদারপাড়ার সৈয়দ আহম্মদ সৈয়দ, বন্দুকযুদ্ধে নিহত নাজিরপাড়ার শীর্ষ ইয়াবা কারবারি জিয়াউর রহমানের ভাই আবদুর রহমান, নাজিরপাড়ার সৈয়দ হোসেন, নাইটংপাড়ার ইউনুস, ডেইলপাড়ার জাফর আলম, জাহাজপুরার নুরুল আলম, হ্নীলার রশিদ আহম্মদ ওরফে রশিদ খুলু, সদরের ডেইল পাড়ার আব্দুল আমিন ও নুরুল আমিন, টেকনাফ সদরের উত্তর লম্বরি এলাকার করিম মাঝি, হ্নীলা ফুলের ডেইলের রুস্তম আলী। শামলাপুর জুমপাড়ার শফিউল্লাহ, একই এলাকার সৈয়দ আলম, রাজাছড়ার আব্দুল কুদ্দুছ, মধ্যম জালিয়াপাড়ার মোজাম্মেল হক, জাহেলিয়াপাড়ার মোহাম্মদ সিরাজ, কচুবনিয়ার আব্দুল হামিদ, নাজিরপাড়ার মোহাম্মদ রফিক, পল্লানপাড়ার মোহাম্মদ সেলিম, নাইটংপাড়ার রহিমউল্লাহ, নাজিরপাড়ার মোহাম্মদ হেলাল, চৌধুরীপাড়ার মোহাম্মদ আলম, সদর ইউনিয়নের মৌলভীপাড়ার একরাম হোসেন। হ্নীলার পূর্ব পানখালির নজরুল ইসলাম, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের তুলাতলি এলাকার নুরুল বশর ওরফে কালা ভাই, হাতিয়ার ঘোনার দিল মোহাম্মদ, একই এলাকার হাসান, সাবরাং নয়াপাড়ার নূর মোহাম্মদ, কচুবনিয়ার বদিউর রহমান ওরফে বদুরান, জালিয়াপাড়ার জুবায়ের হোসেন, হ্নীলার পূর্ব লেদার জাহাঙ্গীর আলম প্রমূখ।

অভিযান শুরুর পর কক্সবাজারেই নিহত ৪২
অভিযান শুরুর পর প্রায় প্রতিদিনই ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সন্দেহভাজন মাদক কারবারিদের হতাহতের ঘটনা ঘটছে। এ সময় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শুধু কক্সবাজারেই ৪২ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে টেকনাফে নিহতের সংখ্যা ৩৯ জন। তাদের মধ্যে ২৫ জন টেকনাফের বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা। সেখানে রয়েছে দুইজন জনপ্রতিনিধি। ফলে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতংক দেখা দেয়। এদের মধ্যে অনেকে প্রাণ বাঁচাতে পথ খুঁজতে থাকে।

একপর্যায়ে বিভিন্ন মাধ্যমে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণের প্রস্তাব দেয়। পরে এতে সরকারও সম্মতি দেয়। এর প্রেক্ষিতে গত ১০ জানুয়ারি থেকে ইয়াবা কারবারীরা কক্সবাজার পুলিশ হেফাজতে চলে যায়। এরপর থেকে শুরু হয় দল বেঁধে নিজেদের সমর্পণ প্রক্রিয়া। পরে ফেসবুকে জানান দিয়ে টেকনাফ সদরের ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার এনামুল হক একদল ইয়াবা কারবারিসহ শো-ডাউনের মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করেন।

দেখুন:

আরো সংবাদ




iptv al Epoksi boya epoksi zemin kaplama Daftar Situs Agen Judi Bola Net Online Terpercaya Resmi

Hacklink

hd film izle instagram takipçi satın al ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme

instagram takipçi satın al