২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ফেনীতে নিখোঁজ স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার

-

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার চর দরবেশ ইউনিয়নের মান্দারী গ্রামে রোববার রাতে নিখোঁজ হওয়ার চার ঘন্টা পর পাশের বাড়ির পুকুর থেকে এক স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে।

নিহত আছমা আক্তার (১৩) স্থানীয় কাজীরহাট মডেল উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

পরিবার, পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বাড়ির পেছনের দিকের নলকূপ থেকে পানি আনতে যায় আছমা। দীর্ঘ সময় পরও পানি নিয়ে ঘরে ফিরে না আসায় আছমার মা বাইরে বের হয়ে ডাকাডাকি করতে থাকেন। সাড়াশব্দ না পেয়ে চিৎকার করতে থাকেন। পরে বাড়ির লোকজন মিলে আছমাকে আশপাশসহ বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে থাকেন। একপর্যায়ে বাড়ির পশ্চিম পাশের সড়কের কিছুটা দূরে আছমার জুতা পাওয়া যায়। মাটিতে তার পায়ের চিহ্ন দেখা যায়। সামনের দিকে আরেকটু এগোলে একটি পুকুরের পাড়ে আছমার ওড়না মেলে। পুকুরে তার লাশ ভাসতে দেখা যায়। খবর পেয়ে সোনাগাজী মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

আছমার বাবা দুলাল হোসেন জানান, তার স্কুলপড়–য়া মেয়েকে দুর্বৃত্তরা তুলে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে বলে ধারণা করছেন। ঘটনার বিচার দাবি করেন তিনি।

এদিকে কে বা কারা আছমাকে হত্যা করেছে, তা জানাতে পারেনি পরিবার। হত্যার রহস্য উদ্ঘাটনে মাঠে নেমেছে পুলিশ।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সুজন হালদার জানান, নিখোঁজ হওয়ার প্রায় চার ঘন্টা পর রাত সাড়ে ১১টার দিকে একটি পুকুর থেকে আছমার লাশ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, আছমাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধর্ষণের শিকার হয়েছে কি না, তা ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেলে বলা যাবে।

অন্য একটি সূত্র বলছে, ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়েও তাকে হত্যা করা হতে পারে।


আরো সংবাদ