২২ জুন ২০১৮

রাঙ্গামাটিতে টানা বৃষ্টিপাতে দেয়াল ও পাহাড় ধস

-

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে রাঙ্গামাটিতে টানা ভারী বৃষ্টিপাতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। রবিবার সকাল থেকে বৃষ্টি শুরু হলেও রাত থেকে একটানা ভারী বর্ষণে রাঙ্গামাটি জনজীবন থমকে যায়। শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে। টানা বৃষ্টিতে রাঙ্গামাটি শহরের পুরাতন বাস ষ্ট্যন্ডে এলাকা, চম্পক নগর, লোকনাথ আশ্রম ও ভেদভেদীসহ আশেপাশে কিছু এলাকায় ছোটখাটো দেয়াল ও পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। ফলে ঘরবাড়ির উপর দেয়াল চাপা পড়লেও হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।
রাঙ্গামাটি আবাহাওয়া অফিস জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় রাঙ্গামাটিতে ২৫৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আরো দুই এক দিন হালকা থেকে মাঝারী ধরণের বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।
রাঙ্গামাটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের এসও মোঃ মুছা জানান, রাঙ্গামাটি চট্টগ্রাম সড়কের ছোটখাটো কিছু পাহাড় ধ্বসের সৃষ্টি হলেও সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মীরা সড়ক থেকে মাটি অপসারণ করে সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে চেষ্ঠা করা হচ্ছে। যেখানে সড়কে মাটি ধস হচ্ছে সেখানে গিয়ে তারা মাটি সরানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।
রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম, মামুনুর রশিদ বলেন, ভারী বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় রাঙ্গামটি জেলা প্রশাসন উপদ্রুত এলাকাগুলোতে ফায়ার সার্ভিস ও উদ্ধারকর্মীদের পাঠিয়ে লোকজনকে বাড়ি ঘর থেকে সরিয়ে নিয়ে ৫টি অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্রে তাদের নিয়ে আসা হয়েছে। পাহাড় ধ্বসে যাতে গত বছরের ন্যায় মানুষের ক্ষয়ক্ষতি না হয় তার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরণের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।
এদিকে, রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের বেতবুনিয়ার ঠান্ডাছড়ি এলাকার ভারী বর্ষণে পাহাড়ী ঢলের পানির তোড়ে রাস্তা ডুবে যাওয়ায় সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত যানবাহন চলাচল সাময়িক বন্ধ থাকে। দুপুরের দিকে বৃষ্টিপাত কমে যাওয়ায় যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে। অন্যদিকে প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢল নেমে আসায় রাঙ্গামাটি কাপ্তাই হ্রদের পানি বাড়তে শুরু করেছে।


আরো সংবাদ