২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ডিএসইতে গত সপ্তাহে বেড়েছে দর কমেছে লেনদেন

-

বিদায়ী সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দর বেড়েছে। তবে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। আলোচ্য সময়ে ৩৫৭টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে বেড়েছে ২১২টি, কমেছে ১৩০টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৩টি এবং লেনদেন হয়নি দু’টি কোম্পানির শেয়ার। সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছে দুই হাজার ৩০৩ কোটি ৪৬ লাখ ৬৭ হাজার ২৮৯ টাকা। আগের সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবসে লেনদেনের পরিমাণ ছিল দুই হাজার ৩৬৯ কোটি ৫৯ লাখ ৭৬ হাজার ৭০৩ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে লেনদেন কমেছে ৬৬ কোটি ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪১৪ টাকা। গড়ে লেনদেন কমেছে ১৩ কোটি ২২ লাখ ৬১ হাজার ৮৮৩ টাকা। গত সপ্তাহে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৪৬০ কোটি ৬৯ লাখ ৩৩ হাজার ৪৫৮ টাকা এবং তার আগের সপ্তাহে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৪৭৩ কোটি ৯১ লাখ ৯৫ হাজার ৩৪১ টাকা।
বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, বিদায়ী সপ্তাহে সব ক্যাটাগরির শেয়ারের লেনদেনে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এতে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। আলোচ্য সময়ে ডিএসইর মোট লেনদেনে ‘এ’ ক্যাটাগরির শেয়ারের দখলে ছিল ৮০ দশমিক ৭২ শতাংশ। ‘এ’ ক্যাটাগরিতে শেয়ারের লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৮৫৯ কোটি ৩৮ লাখ ৯৪ হাজার ২৮৯ টাকার। আগের সপ্তাহে লেনদেনের পরিমাণ ছিল এক হাজার ৯১৩ কোটি ৩৩ লাখ ১৪ হাজার ৭০৩ টাকা। লেনদেনে গেল সপ্তাহে ‘বি’ ক্যাটাগরির শেয়ারের অংশগ্রহণ ছিল ১১ দশমিক ১৭ শতাংশ। এসব শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৫৭ কোটি ১৯ লাখ ৪৫ হাজার টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৪৯ কোটি ছয় লাখ ১৯ হাজার টাকা।
তবে সদ্য শুরু হওয়া নতুন কোম্পানির শেয়ারের লেনদেন আগের সপ্তাহের চেয়ে কমেছে। ডিএসইর মোট লেনদেনে ‘এন’ ক্যাটাগরির অংশগ্রহণ ছিল ৭ দশমিক ৬ শতাংশ। এসব শেয়ারের লেনদেন হয়েছে ১৬২ কোটি ৬৬ লাখ ৩১ হাজার টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১৯০ কোটি ৯৩ লাখ ৩৫ হাজার টাকা। ডিএসইর লেনদেনে গেল সপ্তাহে ‘জেড’ ক্যাটাগরির দখলে ছিল ১ দশমিক ৫ শতাংশ। এসব শেয়ারের লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৪ কোটি ২১ লাখ ৯৭ হাজার টাকা, আগের সপ্তাহে এসব শেয়ারের লেনদেন হয়েছে ১৬ কোটি ২৭ লাখ ৮ হাজার টাকা।
এ দিকে গত সপ্তাহে বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দর বেড়েছে। দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহ শেষে লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করছে ফার্মাসিউটিক্যাল খাত। দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত। ডিএসইতে মোট লেনদেনে ফার্মাসিউটিক্যাল খাতের দখলে রয়েছে ১৮ শতাংশ। খাতটির লেনদেন হয়েছে ৩৯৮ কোটি ৫০ হাজার টাকা। এর পরই জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত খাতের অবস্থান। ডিএসইর লেনদেনে খাতটির অংশগ্রহণ ১৫ শতাংশ। খাতটির লেনদেন হয়েছে ৩৪৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে প্রকৌশলী খাত। এ খাতের অংশগ্রহণ ১৩ শতাংশ। খাতটির লেনদেন হয়েছে ২৮৮ কোটি ৮৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা।
এ দিকে ডিএসইর লেনদেনে বস্ত্র খাতের অংশগ্রহণ ১২ শতাংশ। এ খাতের লেনদেন হয়েছে ২৬৯ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। এ ছাড়া বীমা খাতের ৯ শতাংশ, বিবিধ খাতের ৬ শতাংশ, ব্যাংক খাতের ৫ শতাংশ, সিরামিক ও খাদ্য এবং আনুষঙ্গিক খাতের প্রত্যেকের ৪ শতাংশ করে। মিউচুয়াল ফান্ড ও ট্যানারি খাতের প্রত্যেকের ৩ শতাংশ করে। আর্থিক, আইটি ও টেলিকমিউনিকেশন খাতের প্রত্যেকের ২ শতাংশ করে। সিমেন্ট, ভ্রমণ এবং অবকাশ ও সেবা এবং আবাসিক খাতের প্রত্যেকের ১ শতাংশ করে লেনদেন হয়েছে।
সপ্তাহের লেনদেনে শীর্ষে উঠে এসেছে ইউনাইটেড পাওয়ার। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির ৪০ লাখ ৮২ হাজার ৩৮টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজারমূল্য ১৬৩ কোটি ৩৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা। তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে খুলনা পাওয়ার কোম্পানি। কোম্পানিটির এক কোটি ৩৫ লাখ ৭৯ হাজার ৭৭৭টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজারমূল্য ৮১ কোটি ১৪ লাখ ৪ হাজার টাকা। জেএমআই সিরিঞ্জ রয়েছে তালিকার তৃতীয় স্থানে। কোম্পানিটির ১৩ লাখ ৮১ হাজার ৫৬২টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজারমূল্য ৭০ কোটি ৪৬ লাখ ৯ হাজার টাকা।
শীর্ষ লেনদেনকারী কোম্পানির তালিকার চতুর্থ স্থানে রয়েছে ওরিয়ন ইনফিউশন। কোম্পানিটির এক কোটি তিন লাখ ৪২ হাজার ৪৯২টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজারমূল্য ৬৯ কোটি ৬৯ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। ফরচুন সুজ রয়েছে তালিকার পঞ্চম স্থানে। কোম্পানিটির এক কোটি ৪৩ লাখ ৫৭ হাজার ৬০৫টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজারমূল্য ৫৮ কোটি ৭৩ লাখ ২২ হাজার টাকা। তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছেÑ মুন্নু সিরামিক, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস, সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালস ও কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ।
এ দিকে গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টপটেন গেইনার বা দর বাড়ার তালিকায় প্রথম তিন স্থানেই রয়েছে অভিহিত মূল্যের চেয়ে কম মূল্যের কোম্পানি। দর বাড়ার শীর্ষে উঠে এসেছে ফ্যামিলি টেক্সটাইল। সপ্তাহে কোম্পানির সর্বোচ্চ দর বেড়েছে ৩০ শতাংশ। শেয়ারটি সর্বশেষ তিন টাকা ৯০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটি সর্বমোট পাঁচ কোটি ২৬ লাখ ১৩ হাজার টাকা লেনদেন করে, যা গড়ে প্রতিদিন এক কোটি পাঁচ লাখ ২২ হাজার ৬০০ টাকা। গেইনারের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে জেনারেশন নেক্সট। সপ্তাহে শেয়ারটি সর্বোচ্চ দর বেড়েছে ২৭ দশমিক ৫০ শতাংশ। শেয়ারটি সর্বশেষ ৫ টাকা ১০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটি সর্বমোট সাত কোটি ৮৫ লাখ আট হাজার টাকা লেনদেন করে; যা গড়ে প্রতিদিন এক কোটি ৫৭ লাখ এক হাজার ৬০০ টাকা।
অ্যাপোলো ইস্পাত রয়েছে গেইনারের তৃতীয় স্থানে। সপ্তাহে শেয়ারটির সর্বোচ্চ দর বেড়েছে ২৫ শতাংশ। শেয়ারটি সর্বশেষ ৬ টাকা ৫০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। সপ্তাহজুড়ে শেয়ারটি সর্বমোট ছয় কোটি ৮৫ লাখ ৮৬ হাজার টাকা লেনদেন করে; যা গড়ে প্রতিদিন এক কোটি ৩৭ লাখ ১৭ হাজার ২০০ টাকা। তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছেÑ স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, এস এস স্টিল, ওরিয়ন ইনফিউশন, এসইএমএল আবিবিএল শরিয়াহ ফান্ড, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স, সায়হাম টেক্সটাইল ও আর এন স্পিনিং মিলস।
বিদায়ী সপ্তাহে ব্লক মার্কেটে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩১টি কোম্পানির ৩১ কোটি ১৪ লাখ ৭৩ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। মোট শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৭৭ লাখ ৪১ হাজার ৪৮০টি। লেনদেনের শীর্ষ স্থানে ছিল ব্র্যাক ব্যাংক। গত সপ্তাহে ব্লক মার্কেটে ব্র্যাক ব্যাংকের সাত কোটি ৭০ লাখ ৬৯ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্রাইম ব্যাংকের চার কোটি ৭৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। তৃতীয় স্থানে রয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল। কোম্পানির মোট চার কোটি ১৮ লাখ তিন হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে।
এ দিকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের উদ্দেশ্যে আজ ২৫ আগস্ট আবেদন শুরু হবে বস্ত্র খাতের কোম্পানি রিং সাইন টেক্সটাইল লিমিটেডের। চলবে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। গত ১২ মার্চ বিএসইসির ৬৭৯তম কমিশন সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেয় পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। ৩০ জুন ২০১৮ সালের হিসাব বছর অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১ টাকা ৯৯ পয়সা আর ওয়েটেড এভারেজ অনুযায়ী ইপিএস হলো ১ টাকা ৮৬ পয়সা। একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ২৩ টাকা ১৭ পয়সা। প্রতিটি শেয়ার ১০ টাকা দরে ১৫ কোটি সাধারণ শেয়ার ছেড়ে আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১৫০ কোটি টাকা পুঁজি উত্তোলন করবে কোম্পানিটি।


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat Paykasa buy Instagram likes Paykwik Hesaplı Krediler Hızlı Krediler paykwik bozdurma tubidy