২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ড্যাফোডিল ভার্সিটিতে চালু হলো অভিভাবক ইন্স্যুরেন্স প্রকল্প

-

এক অভূতপূর্ব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ। প্রথমবারের মতো চালু হওয়া এ উদ্যোগের নাম ‘অভিভাবক ইন্স্যুরেন্স’ প্রকল্প। এ প্রকল্পে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। এ প্রকল্পের অধীনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবকদের এ পলিসির আওতায় আনা হয়েছে। ফলে কোনো অভিভাবক স্বাভাবিক বা দুর্ঘটনায় মারা গেলেও অভিভাবক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থী পাবেন আর্থিক সহায়তা, যার মাধ্যমে চলমান থাকবে তার অসমাপ্ত শিক্ষাজীবন। প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সহযোগিতায় গতকাল এ রকম তিন শিক্ষার্থীর অভিভাবক ইন্স্যুরেন্সের দাবি পরিশোধ করেছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। অভিভাবক ইন্স্যুরেন্সের দাবিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা হলেন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী খাদিজা খালিদ খুশবু, ইলমা আক্তার স্বর্ণা এবং ইলেকট্র্রিক্যাল ও ইলেকট্র্রনিকস প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্র বোরহান উদ্দিন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭১ মিলনায়তনে ‘অভিভাবক বীমা : চেক হস্তান্তর’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মো: জালালুল আজিম এবং সম্মানিত অতিথি ছিলেন ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো: সবুর খান। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ আয়োজনে আরো উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির প্রোভিসি প্রফেসর ড. এস এম মাহাবুব উল হক মজুমদার, ট্রেজারার হামিদুল হক খান, রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল হকসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। বিজ্ঞপ্তি।

 


আরো সংবাদ