০৬ ডিসেম্বর ২০১৯

টাকার পরিবর্তে পেঁয়াজ ভিক্ষা চাচ্ছেন ভিক্ষুকরা

পেঁয়াজের দাম নিয়ে নতুন করে জানান দেওয়ার কিছু নেই। দেশের অন্যান্য জায়গার মতো বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায় একই অবস্থা। এই নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম ইতোমধ্যে অনেকেরই ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।

এমনকি বাজার ঘুরতে গিয়ে দুজন ভিক্ষুকেরও দেখা মেলে যারা টাকা চাইছেন না, পেঁয়াজ ভিক্ষা চাইছেন।

শনিবার সকালে উপজেলার বিভিন্ন বাজা ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ পাইকারি ২৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৭০ টাকা কেজি দরে। পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যে ক্রেতারা হতাশা প্রকাশ করছেন।

তবে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, চাহিদার তুলনায় বাজারে আমদানি কম থাকায় এই উচ্চমূল্য।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ দোকানে পেঁয়াজ নেই। দুই একটি দোকানে অল্প পরিমাণে দেশি পেঁয়াজ থাকলেও প্রতি কেজি পেঁয়াজ খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৭০ টাকা কেজি দরে।

খুচরা ব্যবসায়ীরা বলেন, গত বুধবারও প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৫০ টাকা দরে। এক দিনের ব্যবধানে কেজি প্রতি প্রায় ৪০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। কিছুই করার নেই। পেঁয়াজের আমদানি খুব কম। দেশি পেঁয়াজ ছাড়া বাজারে কোনো পেঁয়াজ নেই।

যে অবস্থা দেখা যাচ্ছে, পেঁয়াজের মূল্য আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। বিদেশি পেঁয়াজ যেগুলো দেশে আসছে তা ঢাকা-চট্টগ্রামেই শেষ হয়ে যায়। মফস্বলে সে পেঁয়াজ আসে না। এ সময় দুই নারী ভিক্ষুককে দেখা যায় তারা টাকার পরিবর্তে দুইটা পেঁয়াজ ভিক্ষা চাচ্ছেন। দোকানিরা ভিক্ষুকদের দুই টাকা করে দিতে চাইলেও তারা টাকার বদলে পেঁয়াজ চান।

কিন্তু পেঁয়াজের দাম বেশি থাকায় কিছু কিছু ব্যবসায়ী ভিক্ষুকদের দু-একটি পেঁয়াজ দিলেও বেশির ব্যবসায়ীরা টাকা দিয়ে বিদায় দিচ্ছেন।

এব্যাপারে বাজার মনিটরিংয়ের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে এলাকাবাসী দাবী জানান।


আরো সংবাদ




Paykwik Paykasa
Paykwik