১৮ জুন ২০১৯

পটুয়াখালীতে জাপা মহাসচিব রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে ঝাড়ু ও জুতা মিছিল

পটুয়াখালীতে জাপা মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের বিরুদ্ধে ঝাড়ু ও জুতা মিছিল - নয়া দিগন্ত

জাতীয় পাটির মহাসচিব ও পটুয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারকে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করে শহরে ঝাড়ু মিছিল করেছে কয়েক হাজার নারী পুরুষ।

এছাড়াও মিছিল শেষে এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারের কুশ পুত্তলিকা দাহ করা হয়। মিছিল প্রদর্শনকালে কয়েক হাজার নারী ও পুরুষ রুহুল আমিনকে কুটক্তিসহ নানা স্লোগান দিতে থাকে। আজ বুধবার পটুয়াখালী জেলা শহরে এই কর্মসূচী পালিত হয়।

পটুয়াখালী-১ আসনের একাধিক দলের প্রার্থীদের মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন আজ বুধবার। এর আগে মঙ্গলবার জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হেলিকপ্টার যোগে পটুয়াখালীতে এসে জেলা প্রশাসকের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন।

এমন খবর সাধারন মানুষের কাছে গেলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং ওই দিনই পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাহান মিয়ার বাসার সামনে নারী-পুরুষ জড়ো হয়ে জাপা মহাসচিবের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে।

এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকাল থেকে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে হাজার হাজার নারী-পুরুষ ও নেতাকর্মী জড়ো হয়।

এসময় জাপা মহাসচিব রুহুল আমিনকে উল্লেখ করে নানা অশোভনীয় স্লোগান দেয় তারা। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আগত নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ঝাড়ু ও জুতা প্রর্দশন করে শহরে একটি বিশাল মিছিল বের করে।

এসময় তারা জাপা মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারের ছবিতে ঝাড়ু ও জুতা দিয়ে আঘাত করে। পরে লঞ্চ টার্মিনাল চত্বরে তার কুশপুত্তলিকা দাহ করে বিক্ষোভকারীরা।

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার হেলিকপ্টারে করে পটুয়াখালী-১ আসনের তিন উপজেলা পটুয়াখালী সদর, দুমকি ও মিজার্গঞ্জ উপজেলা সফর করেন এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার। তার এই সফরকে নির্বাচনী শোডাউন হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ নেতারা। এই সফরের মাধ্যমে রুহুল আমিন হাওলাদার নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন বলেও দাবি করেছেন তারা।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের নির্বাচনে তৎকালীন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ও এমপি অ্যাড্যাভোকেট শাহজাহান মিয়াকে বাদ দিয়ে এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদাকে পটুয়াখালী-১ আসনে মনোনয়ন দেয়া হয়।এবছরও তিনি মহাজোটের কাছে এ আসনে মনোনয়ন দাবি করেছেন।


আরো সংবাদ