২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

রাঙ্গাবালীতে মাছের ঘের দখল

-

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় এক মুক্তিযোদ্ধাকে হুমকী দিয়ে মাছের ঘেরে দখলচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় প্রভাবশালী খোকন ভূইয়া ও তার ছেলে ‘স্কুল ছাত্র মহব্বত হত্যা’র অন্যতম আসামী বনি আমিনের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত খোকন ভূইয়ার বাড়ি উপজেলার বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের ভূইয়া কান্দা গ্রামে।

স্থানীয়দের সূত্রে জানাগেছে, মুক্তিযোদ্ধা গাজী সরোয়ার দীর্ঘ ১৫ বছর যাবৎ মৌডুবীতে মাছের ঘের প্রতিষ্ঠা করে মাছ চাষ করে আসছেন। তাঁর ছেলে বাবু গাজী ওই ঘেরের দেখভাল করতেন। সম্প্রতি বাবু গাজী মারা গেলে তিনি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরেন। এই সুযোগে ঘের দখলের জন্য পায়তারা শুরু করে খোকন ভূইয়া ও তার লোকেরা। জোরপূর্বক ঘেরে অংশীদার হতে গাজী সরওয়ারকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিতে থাকে। দীর্ঘদিন চেষ্টা করে মুক্তিযোদ্ধা সারওয়াকে রাজি করাতে না পারায় একপর্যায়ে গত ১৪ আগষ্ট কয়েকজন সন্ত্রাসী সহ খোকন ভূইয়া গাজী সরওয়ারের ঘেরের মাছ লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী সরওয়ার তাঁর ঘের থেকে আনুমানিক ২৫ হাজার টাকার মাছ লুট হয়েছে দাবি করে পটুয়াখালী জেলা পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ করেন।
এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা গাজী সরওয়ার জানান, ‘খোকন ভূইয়ার এক শতাংশ জমি না থাকলেও জোরপূর্বক সে ৮টি ঘেরের অংশীদার। সে আমার সাথে ঘেরে সহযোগীতার নামে বিভিন্ন সময় লুটপাট করে খেয়েছে। আমার গরু-মহিষ চুরি করে বিক্রি করে দিয়েছে। ঘের দেখাশুনা করতে মৌডুবীতে গেলে আমাকে খোকন ভূইয়া খুনের হুমকী দিয়েছে।
এ ব্যপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত খোকন ভূইয়া মাছ লুটের ঘটনা অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি দির্ঘদিন গাজী সাহেবের ঘেরে সহযোগীতা করে আসছি। আমার সহযোগীতায় তিনি ঘের করতে পেরেছেন। তাই আমি ওই ঘেরে অংশীদার হতে চাই।’
এ ব্যপারে রাঙ্গাবালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিলনকৃষ্ণ মিত্র জানান, অভিযোগ এলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ