২১ নভেম্বর ২০১৮

বরগুনায় আহত শিশু চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু

-

বরগুনার আমতলীর ছোট নীলগঞ্জ গ্রামে জমি নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনার আহত শিশু ইমাম হোসেন (২) সাত দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠিয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আমতলী উপজেলার ছোটনীলগঞ্জ গ্রামের ছোবাহান হাওলাদার ও তার চাচাত ভাই নুরুল ইসলাম হাওলাদারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে ২১ শতাংশ পৈত্রিক জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে কয়েক দফা সালিশ বৈঠক হয়। গত ৫ জুলাই দুপুরে এ জমি নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সোবাহান হাওলাদার, নসু হাওলাদার, জাফর হাওলাদার, জালাল হাওলাদার ও তার লোকজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে লিটন হাওলাদার , কুদ্দুস হাওলাদার, সুলতান প্যাদা ও আছমা বেগমকে কুপিয়ে আহত করে। এ সময় স্বামী লিটন হাওলাদারকে রক্ষায় শিমু এগিয়ে আসলে নসু হাওলাদার শিমুকে ধারালো অস্ত্র ও লাঠি দিয়ে আঘাত করে। এ সময় তার কোলে থাকা শিশু ইমাম হোসেনও আহত হয়। দ্রুত আহতদের আমতলী হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরন করেন। ওই হাসপাতালে সাত দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে শিশু ইমাম হোসেন মারা যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করেছে।

শিশুর চাচা নুরুল ইসলাম হাওলাদার জানান, জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে নসু হাওলাদার, জাফর হাওলাদার, সোবাহান হাওলাদার ও জালাল হাওলাদার আমার ভাইয়ের উনিশ মাসের শিশু পুত্রকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আমি এ শিশু হত্যার বিচার চাই।

এবিষয়ে আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মোঃ আলাউদ্দিন মিলন বলেন, ময়না তদন্তের জন্য শিশুটির লাশ বরগুনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরো সংবাদ