২৪ জানুয়ারি ২০১৯

জাতিকে মাদক মুক্ত করা হবে : র‌্যাব মহাপরিচালক

আত্নসমর্পনকারী বনদস্যুদের পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী ও সেলাই মেশিন বিতরণ করেন বেনজীর আহমেদ। ছবি - নয়া দিগন্ত।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) বলেছেন, মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী যুদ্ধ ঘোষনা করেছেন। এক শ্রেণীর মানুষ মাদকের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান নস্যাৎ করার অপতৎপরতা চালাচ্ছে। সকল ষড়যন্ত্রকে পন্ড করে দিয়ে, যারা এটাকে বানচাল করতে চায় তাদের মুখে ছাই দিয়ে সবাইকে সাথে নিয়ে দেশকে বাঁচাতে হবে। আমাদের সন্তানদের বাঁচাতে হবে, আগামী প্রজন্মকে বাঁচাতে হবে। তিনি আরও বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। মাদকের অভিশাপ থেকে জাতিকে মুক্ত করতে হবে। মাদক সরবরাহ বন্ধের সাথে সাথে মাদকের চাহিদা নির্মূল করতে র‌্যাব কাজ করছে।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, সুন্দরবন থেকে আমরা ইতোমধ্যে অসংখ্য দস্যু বাহিনীকে আত্মসমর্পনের সুযোগ দিয়েছি। এতে প্রায় আড়াইশ’র মতো জলদস্যু আমাদের কাছে আত্মসমর্পন করেছে। তবে এখনও কিছু জলদস্যু বাহিনী রয়ে গেছে। আমরা চাই অক্টোবর মাসের মধ্যে গোটা সুন্দরবনকে জলদস্যুমুক্ত করবো। এটাই আমাদের লক্ষ্য, এজন্য আমরা সবার সহযোগীতা চাই।

বরিশাল নগরীর রুপাতলীস্থ র‌্যাব-৮ এর সদর দফতরে আত্মসমর্পনকৃত জলদস্যুদের মাঝে মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় ঈদ উপহার বিতরণ ও পুনর্বাসন প্রকল্পের (সুন্দরবনের হাসি) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে র‌্যাবের মহাপরিচালক হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, অক্টোবরের মধ্যে সুন্দরবনের বাকী দস্যুরা আত্মসমর্পণ না করলে কঠিন পরিস্থিতির শিকার হতে হবে। তিনি বলেন, দস্যুরা যে মুক্তিপন আদায় করেছে সে অর্থ কোথায়, কোথা থেকে আসে, অস্ত্র-গুলি, খাবার, রেশন কারা গহিন জঙ্গলে পৌঁছে দেয়, কারা তাদের বিকাশে টাকা কালেকশন করে দেয় এসবই খুঁজে বের করা হবে।

র‌্যাব-৮ এর পরিচালক আতিকা ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার মোঃ শহিদুজ্জামান, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) মাহফুজুর রহমান, জেলা প্রশাসক মোঃ হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

সূত্রমতে, বরিশালে র‌্যাব ৮ এর সদর দফতর কার্যালয়ে অনুষ্ঠানে ২০টি পরিবারের মাঝে সেলাই মেশিন, চারটি পরিবারে চিকিৎসা সহায়তা ও শিক্ষা সহায়তায় আর্থিক অনুদান এবং আত্মসমর্পনকারী সকল জলদস্যুদের পরিবারের মাঝে ঈদের উপহার তুলে দেয়া হয়। র‌্যাব-৮ সূত্রে জানা গেছে, র‌্যাবের কঠোর তৎপরতার কারনে সুন্দরবন কেন্দ্রিক বনদস্যু/জলদস্যু বাহিনীর অপতৎপরতা বহুলাংশে কমে এসেছে। বিগত ২৪ মাসে সর্বমোট ২৩টি বাহিনীর ২৪৩ জন জলদস্যু ৩৭৯টি অস্ত্র ও ১৮ হাজার ৮০৪ রাউন্ড গোলাবারুদসহ র‌্যাব-৮ এর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে। আত্মসমর্পণকৃত জলদস্যু পরিবারবর্গের অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে র‌্যাব কর্তৃক ‘সুন্দরবনের হাসি’ (প্রস্তাবিত) প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এ প্রকল্পের মাধ্যমে আত্মসমর্পণকৃত সকল জলদস্যুদের পরিবারবর্গের মাঝে কর্মসংস্থানমূলক প্রশিক্ষণ এবং সেবা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সাহায্য প্রদান করা হবে। 

 


আরো সংবাদ

স্ত্রীর পরকীয়া দেখতে এসে বোরকা পরা স্বামী আটক (১৬৩৩৪)ইসরাইল-ইরান যুদ্ধ যেকোনো সময়? (১৫৮১৫)মেয়েদের যৌনতার ওষুধ প্রকাশ্যে বিক্রির অনুমোদন দিল মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটি (১৫৪৭৯)মানুষ খুন করে মাগুর মাছকে খাওয়ানো স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গ্রেফতার (১৫২৩২)ইরানি লক্ষ্যবস্তুতে প্রচণ্ড ইসরাইলি হামলা, নিহত ১১ (১৩৮১২)মাস্টার্স পাস করা শিক্ষকের চেয়ে ৮ম শ্রেণি পাস পিয়নের বেতন বেশি! (১১৪৪৩)৩০টি ইসরাইলি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ভূপাতিত (৯৩৬২)একসাথে চার সন্তান, উৎসবের পিঠে উৎকণ্ঠা (৮২৮৫)করাত দিয়ে গলা কেটে স্বামীকে হত্যা করলেন স্ত্রী (৬০৭৯)শারীরিক অবস্থার অবনতি, কী কী রোগে আক্রান্ত এরশাদ! (৫৩৪৫)