২২ জুলাই ২০১৯
উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য

সখীপুরের কিরণনগর উচ্চবিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন

-

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখীপুরে কিরণ নগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন না করার জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছেন হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ। গত ১ জুলাই উচ্চ আদালতের বিচারপতি শেখ হাসান আলী ও রাজিক আল জলিল রিটের শুনানি শেষে আগামী ছয় মাসের জন্য কিরণ নগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের সব ধরনেরর কার্যাদি স্থগিত করার আদেশ প্রদান করেন। তার পরেও আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিদ্যালয়ের মূল ফটকে নতুন সাইনবোর্ড ঝুলানো হয়েছে।
ভেদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ মাসুম বালা ও বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৭ সালে শরীয়তপুর জেলা বিএনপির সভাপতি, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান কিরণ ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখীপুর থানার কিরণ নগর গ্রামে দেড় একর জমি দান করে কিরণ নগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। ২০০৪ সালে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হয়। এরপর ২০১৯ সালের জুন মাসে স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান শাহ জালাল মালসহ তিনজনের স্বাক্ষরিত কিরণ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় নাম পরিবর্তন করে দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়ন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় নামকরণ করার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে একটি আবেদন করা হয়। এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৫ জুন ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক মো: জাহাঙ্গীর হোসেন বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করে গত ১৭ জুন পরিদর্শন প্রতিবেদন দাখিল করেন এবং ১৮ জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব (মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক) বরাবর প্রেরণ করেন। ১৮ জুন বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা শফিকুর রহমান কিরণ ‘কিরণ নগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়’-এর নাম পরিবর্তন না করার জন্য উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন করেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গত ১ জুলাই হাইকোর্ট রিটের শুনানি শেষে আগামী ছয় মাসের জন্য কিরণ নগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের নামকরণ পরিবর্তনের সব ধরনের কার্যাদি স্থগিত করার আদেশ প্রদান করেন।
বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা শফিকুর রহমান কিরণ বলেন, পশ্চাৎপদ এলাকার পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর শিক্ষাব্যবস্থাকে উন্নীত করতে প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি উচ্চ বিদ্যালয় নিজ অর্থায়নে প্রতিষ্ঠা করি। প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ইতোমধ্যে জাতীয়করণ হয়ে গেছে; কিন্তু ইদানীং একটি কুচক্রী মহল পেশিশক্তি ব্যবহার করে কিরণ নগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়টিকে ধ্বংস করার পাঁয়তারা করছে। তারই ফলে প্রথমে তারা স্কুলের নাম পরিবর্তনের একটি নোংরা খেলায় মেতেছে।

 

 


আরো সংবাদ

gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi