২২ জুলাই ২০১৯

পার্বতীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হামের টিকা সঙ্কট : ঝুঁকিতে শিশুরা

-

পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দীর্ঘ দিন ধরে হাম-রুবেলা (এমআর) টিকার সরবরাহ নেই। টিকা সঙ্কটের কারণে বিপুলসংখ্যক শিশু বর্তমানে স্বাস্থ্য ঝুঁকির মুখে পড়েছে। নির্দিষ্ট সময়ে এসব টিকা দিতে না পারলে শিশুদের মাম্পস, জ্বর, র্যাশ ওঠা ও নিউমোনিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। দীর্ঘ দিন ধরে এসব টিকা দিতে না পারায় দুশ্চিন্তায় ভুগছেন শিশুর মা-বাবারা।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৫০ শয্যাবিশিষ্ট পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দীর্ঘ দিন ধরে হাম-রুবেলা টিকার সরবরাহ নেই। এ ছাড়া চলতি মাসের শুরু থেকে শিশুদের জন্য মারাত্মক রোগের ছয় ধরনের রোগ প্রতিরোধক টিকার মধ্যে অন্যগুলোরও সঙ্কট দেখা দেয়। নিয়ম অনুযায়ী এক থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশুদের এ সময়ের মধ্যে একবার হাম-রুবেলা টিকা পাওয়ার কথা। কিন্তু টিকা সঙ্কটের কারণে শহর-গ্রামাঞ্চল থেকে প্রতিদিন বিপুলসংখ্যক অভিভাবক শিশুসন্তানকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এসে টিকা না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। কমপ্লেক্সে আসা একাধিক শিশুর মা জানান, নির্দিষ্ট সময়ে টিকা দিতে না পারলে শিশুর ক্ষতি হতে পারে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, টিকাদান কেন্দ্রের সামনে শিশুদের নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন কয়েকজন মা। তাদের টিকাদানের কার্ডে টিকা দেয়ার নির্দিষ্ট সময় লেখা থাকলেও তা এরই মধ্যে পার হয়ে গেছে অনেকের। এতে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তারা। ৯ মাস বয়সী মেয়ে নাজিফা জাহানের জন্য হামের টিকা নিতে আসা ভবানীপুর ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক মোস্তাফা কামাল ও স্ত্রী সানজিদা খাতুন বলেন, মেয়েকে দীর্ঘ দিন ধরে হামের টিকা দেয়ার জন্য হাসপাতালে ধরনা দিচ্ছি। টিকার সরবরাহ নেই বলে অন্য দিনের মতো আজো আমাদের টিকা না নিয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে। গত পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি/ইপিআই) আজহারুল আনাম ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য সহকারী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, প্রতিদিন অসংখ্য মা-বাবা হাম-রুবেলার টিকা দেয়ার জন্য শিশুদের নিয়ে এসে টিকা না পেয়ে হাসপাতাল থেকে ফিরে যাচ্ছেন। সরবরাহ না থাকায় টিকা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। জেলা সিভিল সার্জন অফিস এসব টিকার সরবরাহ দিয়ে থাকে।
পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো: আবদুল্লাহেল মাফি বলেন, শুধু পার্বতীপুরে নয়, বর্তমানে সারা দেশে কোথাও এসব টিকার সরবরাহ নেই। তবে শিগগির এ সঙ্কট কেটে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। নির্দিষ্ট সময়ে শিশুকে (১-৫ বছর) হাম-রুবেলার টিকা প্রয়োগ করা না গেলে মামস, জ্বর ও নিউমোনিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায় বলে যোগ করেন তিনি।


আরো সংবাদ

gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi