২৫ মার্চ ২০১৯

নিউজিল্যান্ডে হামলাকারীর সাথে সম্পর্ক আছে কানাডার মসজিদে হামলাকারীর

হামলার পর আল নুর মসজিদের সামনে নিরাপত্তারক্ষা কর্মীরা। ইনসেটে হামলাকারী ব্রেন্টন টারান্ট - এএফপি

২০১৭ সালে কানাডার মসজিদে হামলাকারীর মতাদর্শের সাথে মিল আছে নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলাকারীদের। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হামলার প্রাথমিক তদন্ত শেষে এই তথ্য পাওয়া গেছে। ক্রাইস্টচার্চে দুইটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় যে বন্দুকধারীরা নির্বিচারে গুলি চালিয়ে হত্যা করেছে মুসল্লিদের, তাদের মধ্যে এক জন ২৮ বছরের অস্ট্রেলীয় নাগরিক। বন্দুক নিয়ে হামলা চালানোর কিছু ক্ষণ আগে ইন্টারনেটে সে একটি ৩৭ পাতার ইস্তেহারও প্রকাশ করে। সেই ইস্তেহারের লাইনে লাইনে ছিল মুসলিম বিদ্বেষ ঘৃণা আর শেতাঙ্গ আধিপত্যের চরম মতাদর্শের কথা।

প্রাথমিক তদন্তে দেখা গেছে, বন্দুকধারী হামলার ভিডিয়ো সরাসরি ফেসবুকে সম্প্রচার করছিল, তার নাম ব্রেন্টন টারান্ট। এই নামে টুইটারেও একটি অ্যাকাউন্ট আছে তার। ফেসবুকেও সে নিজেই ১৭ মিনিট ধরে এই হামলা চালানোর ভিডিয়ো দেখিয়েছে। যদিও হামলার ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরই সেই অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে টুইটার কর্তৃপক্ষ। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টটিও। এই সামাজিক মাধ্যম অ্যাকাউন্ট থেকেই সে প্রকাশ করেছিল তার ৩৭ পাতার ইস্তেহার। এই ব্রেন্টন টারান্ট যে অস্ট্রেলীয় নাগরিক, তা জানিয়েছেন সে দেশের প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনও। ঘটনার কড়া নিন্দা করে এই বন্দুকবাজকে তিনি বলেছেন, ‘চরমপন্থী, দক্ষিণপন্থী, খুনি এবং এক জন হিংস্র জঙ্গি’।


সামাজিক মাধ্যমে এই বন্দুকধারী যে মতাদর্শ প্রকাশ করেছে, তাতে রয়েছে মোট ৩৭টি পাতা এবং প্রায় ১৬ হাজার৫০০ শব্দ। এই ইস্তেহারটিকে সে প্রকাশ করেছে ‘দ্য গ্রেট রিপ্লেসমেন্ট’ নাম দিয়ে। সেখানে এই মতাদর্শের মাধ্যমে ‘নতুন সমাজ গড়ার লক্ষ্যে পদক্ষেপ’ করার কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি অনুপ্রবেশকারী এবং শরণার্থীদেরকেই পৃথিবী জুড়ে সমস্ত সঙ্কটের মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ইউরোপের মাটি থেকে বিদেশিদের তাড়াতে এবং ইউরোপের লক্ষ লক্ষ শ্বেতাঙ্গ মানুষকে দাসত্ব থেকে মুক্ত করার কথাও বলা হয়েছে এই ইস্তাহারে। শ্বেতাঙ্গ আধিপত্য নিয়ে একটি স্লোগানও দেয়া হয়েছে এই ইস্তেহারে। বলা হয়েছে, ‘আমাদের নিজেদের মানুষদের অস্তিত্বের বিষয়টি আমাদেরকেই দেখতে হবে। কারণ, আমাদের শ্বেতাঙ্গ শিশুদের ভবিষ্যত আমাদেরই হাতে।’

প্রাথমিক তদন্তে জানা যাচ্ছে, এই অস্ট্রেলীয় নাগরিক বেশ কিছু দিন ধরেই ঘাঁটি গেড়েছিলেন নিউজিল্যান্ডে। কিন্তু নিউজিল্যান্ড পুলিশের সন্দেহভাজনদের তালিকায় তিনি ছিলেন না। সামাজিক মাধ্যমে বেশ কিছু দিন ধরে চরমপন্থী মতাদর্শের কথা প্রচার করলেও তাকে কেন নজরদারির তালিকায় রাখা হয়নি, তা নিয়ে সরব হয়েছে নিউজিল্যান্ডের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।

এই ভয়াবহ নাশকতার আগের মুহূর্তেও সে ছিল অস্বাভাবিক রকমের শান্ত। মসজিদের সামনে গাড়ি পার্ক করে ভিতরে প্রবেশের আগে সে শুরু করে লাইভ ভিডিয়ো। আর শুরুতেই সে বলে, ‘তা হলে শুরু হয়ে যাক আজকের পার্টি।’এর পরই সে বন্দুক হাতে নিয়ে ঢুকে যায় মসজিদের ভিতরে।

সেই লাইভ ভিডিয়ো থেকে দেখা যায়, তার বন্দুকে লেখা আছে আলেসান্দ্রে বিসনেত্তা এবং লুকা ত্রাইনির নাম। ২০১৭ সালে কানাডাতে একটি মসজিদে হামলা চালিয়ে ছয় নিরপরাধকে হত্যা করেছিল আলেসান্দ্রে বিসনেত্তা। ২০১৮ সালে ইতালিতে আসা শরণার্থী আফ্রিকানদের উপর গুলি চালিয়েছিল লুকা ত্রাইনি। এর থেকেই স্পষ্ট, কৃষ্ণাঙ্গ এবং মুসলিম বিদ্বেষই ছিল এই শ্বেতাঙ্গ বন্দুকবাজের মতাদর্শের মূল কথা।

কৃষ্ণাঙ্গ এবং মুসলিম বিরোধী ভাবধারায় অনুপ্রাণিত হলেও কোনও দলের সাথে সে যুক্ত নয়, এমনটাই জানানো হয়েছে তার ইস্তেহারে। এমনকি নিজের কাজের জন্য তার কোনও অনুশোচনা থাকবে না বলেও জানিয়েছে এই বন্দুকধারী।


আরো সংবাদ




iptv al Epoksi boya epoksi zemin kaplama Daftar Situs Agen Judi Bola Net Online Terpercaya Resmi

Hacklink

Canlı Radyo Dinle hd film izle instagram takipçi satın al ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme

instagram takipçi satın al