২১ মে ২০১৯

মসজিদে হামলার বিষয়ে বলতে গিয়ে গলা বন্ধ হয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর

নিউজিল্যান্ড
জাসিন্ডা আরডার্ন - ছবি: সংগৃহীত

ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলাকে নিউজিল্যান্ডের অন্ধকারতম দিন বলে বর্ণনা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন।

এক সংবাদ সম্মেলনে যখন তিনি এ নিয়ে কথা বলছিলেন তখন তাকে খুবই বিমর্ষ দেখাচ্ছিল। গলার স্বর নিয়ন্ত্রণে খুব কষ্ট হচ্ছিল বলে মনে হয়।

তিনি বলেন, এখানে যা ঘটেছে তা অভাবনীয় এবং অগ্রহণযোগ্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। এ গুলিবর্ষণের ঘটনায় যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের অনেকেই নিউজিল্যান্ডে অভিবাসী ছিলেন।

‘তারা এখানে শরণার্থী ছিলেন। তারা নিউজিল্যান্ডকে তাদের আবাসস্থল হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন এবং এটা তাদের আবাসস্থল’, বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, ‘এরা আমাদের লোক। যে আমাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা চালিয়েছেন, তিনি নন। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের স্থান হবে না।’

‘এটা এখন আমার ভাবনা এবং আমি নিশ্চিত আমার সাথে সব নিউজিল্যান্ডবাসীও যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন এবং তাদের পরিবার নিয়ে ভাবছে’, যোগ করেন তিনি।

এ সময় ক্রাইস্টচার্চের নাগরিকদের পুলিশের নির্দেশনা মেনে বাড়িতে অবস্থানের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

আরডার্ন হামলার সময় নিউ প্লাইমাউথ হোটেলে বেশ কয়েকটি কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার জন্য অবস্থান করছিলেন। কিন্তু হামলার খবর শোনার পর সেসব কর্মসূচি তিনি বাতিল করে দেন। সূত্র : নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড

আরো পড়ুন :
মসজিদে হামলা : দলের জন্য দোয়া চেয়েছেন তামিম
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটাররা। এ দু’টি মসজিদের একটিতে তাদের জুমার নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন না। কিন্তু সেখানে পৌঁছার আগেই এ ঘটনা ঘটায় অল্পের জন্য বেঁচে যান তারা।

ওই ঘটনাকে ‘ভীতিকর অভিজ্ঞতা’ বলে বর্ণনা করেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্য তামিম ইকবাল। তিনি পুরো দলের জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন।

আজ শুক্রবার স্থানীয় সময় বেলা দেড়টার দিকে জুম্মার নামাজের সময় আল নূর নামের ক্রাইস্টচার্চের ওই মসজিদে বন্দুকধারী হামলা চালায়। লিটন দাস ও নাঈম হাসান ছাড়া বাংলাদেশ দলের সবাই মাঠে অনুশীলনে ছিলেন। অনুশীলন শেষে তারা ওই মসজিদে জুমার নামাজ আদায়ে যান। মসজিদে প্রবেশের মুহূর্তে স্থানীয় একজন তাদের মসজিদে ঢুকতে নিষেধ করেন। বলেন, এখানে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। আতঙ্কিত খেলোয়াড়েরা এ সময় দৌড়ে হ্যাগলি ওভালে ফেরত আসেন। খেলোয়াড়দের সবাইকে মাঠের ভেতর থাকতে বলা হয়েছে।

এ ঘটনার পর ক্রিকেটার তামিম ইকবাল টুইটে জানান, এটা তাদের জন্য ‘ভীতিকর অভিজ্ঞতা’ ছিল, বন্দুকধারীরা সেখানে হামলা চালিয়েছিল।

তামিম টুইটে লেখেন, ‘পুরো দল বন্দুকধারীর হামলা থেকে রক্ষা পেয়েছে। এটা ভীতিকর অভিজ্ঞতা। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’


আরো সংবাদ

agario agario - agario