১৯ জুলাই ২০১৯

রাখাইনে হেলিকপ্টার হামলা, ৬ ‍মুসলিম নিহত

নিহতদের জানাজা পড়ছেন স্থানীয়রা - ছবি : সংগৃহীত


মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে এবার সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার হামলায় নিহত হয়েছে অন্তত ৬ রোহিঙ্গা মুসলিম। গত বুধবার বিকেলে এলাকাটিতে এই হামলা চালায় সেনাবাহিনী। এতে আহত হয়েছে কমপক্ষে ১৩ জন। উত্তর রাখাইনের বুথিডং শহরের পার্শ্ববর্তী এলাকায় এই হামলা হয়।

নিহতরা সবাই দিন মজুর। ঘটনার সময় তারা বাশ কাটার কাজে নিয়োজিত ছিলো। ঘটনা স্থলে সেদিন কয়েকশ শ্রমিক সমবেত হয়ে কাজে যোগ দিয়েছিল। তবে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র এই হামলার ব্যাপারে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। মেজর জেনারেল তুন তুন নাই বলেছেন, হামলার অভিযোগের ব্যাপারে যথাসময়ে সঠিক তথ্য প্রকাশ করবে সেনাবাহিনী।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত প্রায় এক দশক ধরে চলছে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর সেনাবাহিনীর নির্যাতন। গত দুই বছরে এই নির্যাতনের মাত্রা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। ২০১৭ সালের আগস্ট থেকে সরাসরি সেনা অভিযানে হত্যাকাণ্ড চালানো হয় রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। সেনাবাহিনীর হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগের হাত থেকে বাঁচতে ৭ লাখ ৩০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। জাতিসংঘ বলছে, মিয়ানমার ইচ্ছাকৃতভাবে বিশ্বের সবচেয়ে নিপীড়িত এবং রাষ্ট্রহীন এই গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন অভিযান পরিচালনা করেছে।

সম্প্রতি দেশটির সেনাবাহিনী রাখাইনের বৌদ্ধ বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির সঙ্গে বেশ কয়েকবার সংঘর্ষে জড়িয়েছে। রাখাইনের কিন তুয়াং গ্রামের কমিউনিটি নেতা জাকির আহমেদ বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে টেলিফোনে বলেন, সামরিক বিমান হামলায় ৬ জন নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে একজন আমাদের গ্রামের। বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টার দিকে এ হামলা হয়।
তিনি বলেন, ‘লোকজন গ্রামের বাইরে যাওয়ার সাহস পাচ্ছে না। তারা ভীত-সন্ত্রস্ত্র।’

২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর অভিযানের সময় রাখাইনের বুথিডংয়ের অনেক বাড়ি-ঘর ধ্বংস করা হয়। তবে বুধবারের সামরিক হামলায় এই গ্রামের বাসিন্দারাও হতাহত হয়েছে।


আরো সংবাদ

gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi