১৭ নভেম্বর ২০১৮

মালয়েশিয়ায় আটক ৩০ হাজার, বাংলাদেশি ৭ হাজার

মালয়েশিয়ায় আটক ৩০ হাজার, বাংলাদেশি ৭ হাজার - সংগৃহীত

মালয়েশিয়ায় চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত ৩০ হাজার অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক মুস্তাফার আলী বলেছেন, আটককৃতদের মধ্যে প্রায় ৭ হাজার বাংলাদেশি রয়েছেন।

অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক মুস্তাফার বলেন, আটককৃত ব্যক্তিদের মধ্যে বাংলাদেশ ছাড়াও ইন্দোনেশিয়া, নেপাল, ভারত, ফিলিপিন্স, কম্বোডিয়া ও মিয়ানমারের নাগরিক রয়েছেন। চলতি বছরের ২৯ আগস্ট পর্যন্ত ৫ হাজার নয়শ ৫৯ জন বাংলাদেশিকে আটক করেছে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ। তবে গত কয়েকদিনে আরো ১ হাজার বাংলাদেশিকে আটক করা হয়েছে বলে খবরে বলা হয়েছে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৯ আগস্টের মধ্যে ৫ হাজার ৯ শ’ ৫৯ জন বাংলাদেশিকে আটক করা হয়।

দেশটির কোটা কিনাবালু অঞ্চলে অবৈধ অধিবাসী আটক অভিযানের বরাত দিয়ে মুস্তাফার বলেন, অবৈধ অভিবাসীদের কাজ ও আশ্রয় দেয়ায় গত ৩ আগস্ট ১ হাজারের বেশি নিয়োগদাতাকেও আটক করা হয়েছে। দেশজুড়ে দশ হাজারের বেশি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এসময় প্রায় ১ লাখ বিদেশি শ্রমিককে জিজ্ঞাসাবাদ করে অবৈধ শ্রমিকদের আটক করা হয়েছে।

এর আগে অভিবাসীদের আত্মসমর্পণের জন্য ২০১৪ সালে থ্রি প্লাস ওয়ান কর্মসূচি হাতে নেয় মালয়েশিয়া সরকার। ওই কর্মসূচির আওতায় নামমাত্র জরিমানা দিয়ে সাধারণ ক্ষমার মাধ্যমে দেশে ফেরত যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল দেশটির কর্তৃপক্ষ। তবে ৩০ আগস্ট সাধারণ ক্ষমার সময়সীমা শেষ হয়।

দক্ষ বিদেশিদের নাগরিকত্ব দিবে মালয়েশিয়া
দ্য স্টার অনলাইন, ০১ জুলাই ২০১৮

আমেরিকান-মালয়েশিয়ান চেম্বার অব কমার্সের এক অনুষ্ঠানে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, মালয়েশিয়ায় দক্ষ বিদেশিদের নাগরিকত্ব দেয়া হবে। তথ্যপ্রযুক্তির মতো বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে দক্ষ বিদেশিদের মালয়েশিয়ায় আমন্ত্রণ জানাচ্ছে সরকার। মালয়েশিয়ায় কাজ করার পাশাপাশি দক্ষতার বিবেচনায় তাদের নাগরিকত্বও প্রদান করা হবে।

মাহাথির বলেন, বিদেশিরা আমাদের চাহিদা অনুযায়ী যারা বিশেষ ক্ষেত্রের দক্ষতা নিয়ে এ দেশে আসেন, আমরা তাদের থাকার জন্য অনুরোধ করব, এমনকি তাদের নাগরিকত্বও দেয়া হতে পারে যদি তারা চান।

তিনি বলেন, আমরা আরো বেশি জ্ঞানী ও বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষকে মালয়েশিয়া এসে থাকার আমন্ত্রণ জানাচ্ছি, যেন তারা শিল্পায়নের প্রকল্পগুলোতে অবদান রাখতে পারেন। বিদেশি শ্রমিকদের নিয়ে যথাযথ নীতি প্রণয়নের জন্য তার সরকার কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানান ৯২ বছর বয়সী এ প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বিদেশিরা যেসব প্রশ্নযোগ্য আচরণ করছেন সেগুলোও বিবেচনা করা হচ্ছে। আসলে আমরা স্টাডি করছি বিদেশিদের জন্য একটি উপযুক্ত নীতি তৈরি করার।বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের ক্ষেত্রে কোম্পানিগুলো সঠিক দরপত্র প্রক্রিয়া ছাড়াই নিয়োগ দিচ্ছে এবং ইচ্ছেমতো অর্থ আয় করছে। এই বিষয়গুলোও বিবেচনা করা হচ্ছে।মালয়েশিয়া বড়সংখ্যক পর্যটক আকর্ষণের চেষ্টা করছে।


আরো সংবাদ