১৯ নভেম্বর ২০১৮

মাহাথিরের রসিকতায় শ্রোতাদের মধ্যে হাসির রোল!

মাহাথিরের রসিকতায় শ্রোতাদের মধ্যে হাসির রোল! - সংগৃহীত

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ এবার আন্তর্জাতিক ফোরামেও ‘রসের’ ফোঁড়ন কাটলেন। রাবার বিষয়ক এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বক্তব্য দিতে গিয়ে তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার রাবার ছাড়া বিশ্বের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেত। এ কথায় উচ্চ হাসিতে ফেটে পড়েন উপস্থিত শ্রোতারা। মঙ্গলবার ৪ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয় এ সম্মেলন।

মালয়েশিয়ার রাবার দিয়ে জন্মনিয়ন্ত্রণের সামগ্রী কনডম তৈরি করা হয়। দেশটিতে চলমান ৯ম ইন্টারন্যাশনাল রাবার গ্লোভ কনফারেন্স অ্যান্ড এক্সিবিশন ২০১৮ সম্মেলনে মঙ্গলবার দেশটির রাবারের মান তুলে ধরতেই এ মন্তব্য করেন। দেশ-বিদেশের অসংখ্য ব্যবসায়ীসহ বহু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব তার উদাহরণ শুনে হাসতে শুরু করেন।

সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখছিলেন মাহাথির। এ সময় তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার ক্রমবর্ধমান রাবার শিল্প বিশাল অবদান রেখে যাচ্ছে। এটা শুধু যে অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করছে তা-ই নয়, একই সাথে মানবতার সেবাও করছে।

একটু হালকা মেজাজে তিনি বলেন, রাবার গ্লাভস (কনডম) অসংখ্য মানুষের জন্ম থামিয়ে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। কনডম ছাড়া বিশ্বকে কল্পনা করুন তো। যদি বর্তমান বিশ্বের জনসংখ্যা ৭০০ কোটি হয় তাহলে কোনো জন্মনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা না থাকলে তা এতদিনে ১০০০ কোটিতে পৌঁছে যেত। তাই আবারও বলি, রাবার মানবতার সেবায় বিরাট এক অবদান রেখে যাচ্ছে।

তার এ বক্তব্য দেয়ার সাথে সাথে উপস্থিত দর্শক ও শ্রোতাদের মধ্যে হাসির রোল পড়ে যায়। হাততালি দিয়ে তারা মাহাথিরকে অভিনন্দন জানান।

আমেরিকা একঘরে হয়ে পড়েছে : মাহাথির

২৫ আগস্ট ২০১৮

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মাদ বলেছেন, পাশ্চাত্যের সাথে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে আমেরিকা একঘরে হয়ে পড়েছে।

তিনি থাইল্যান্ডের বিপিএস বার্তা সংস্থাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, পরমাণু সমঝোতা ত্যাগ করার কারণে আমেরিকা আগের চেয়ে বেশি একঘরে হয়ে পড়েছে। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সমাজ এই আন্তর্জাতিক সমঝোতা বাস্তবায়নের দৃঢ় অঙ্গীকার করেছে।

মাহাথির মোহাম্মাদ বলেন, আন্তর্জাতিক চুক্তিগুলো থেকে একের পর এক আমেরিকার একতরফা বেরিয়ে যাওয়ার কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ওয়াশিংটনের ভূমিকা রাখার সুযোগ সংকুচিত হয়ে এসেছে।

এ ছাড়া এ ধরনের একতরফা পদক্ষেপ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এত বেশি সমালোচিত হচ্ছেন যে, তার পক্ষে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পাস করা সম্ভব নাও হতে পারে।

২০১৫ সালের জুলাই মাসে আমেরিকা, ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া, চীন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে পরমাণু সমঝোতা সই করে ইরান। ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে এ সমঝোতার বাস্তবায়ন শুরু হলেও চলতি ২০১৮ সালের মে মাসে ওই সমঝোতা থেকে আমেরিকাকে বের করে নেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। 


আরো সংবাদ