২১ এপ্রিল ২০১৯

২৫ বছর বয়সেই মন্ত্রী (ভিডিও)

মালয়েশিয়া
২৫ বছর বয়সেই মালয়েশিয়ার মন্ত্রী হলেন সাদিক আবদুল রহমান - ছবি: দ্য স্ট্রেইটস টাইমস

মাত্র ২৫ বছর বয়সেই মালয়েশিয়ার মন্ত্রী হলেন সাঈদ সাদিক আবদুল রহমান। দেশের সর্বকনিষ্ঠ মন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর এক বিবৃতিতে সাঈদ সাদিক বলেন, যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী হিসেবে তাকে নিয়োগ দেয়ার বিষয়টি এটাই প্রমাণ করে যে, সরকার তরুণদের নেতৃত্বকে স্বাগত জানিয়েছে। তিনি বলেন, সরকার বিশ্বাস করে যে, দেশের তরুণদের ভাগ্য এবং তাদের ভবিষ্যত তাদের নিজেদের মাধ্যমেই নির্ধারিত হবে।

তরুণ মন্ত্রী আরও বলেন, এই নিয়োগের মাধ্যমে দেশের ভবিষ্যতের চালিকাশক্তি নির্ধারণে তরুণরা আরও বেশি সুযোগ পাবেন। সোমবার যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী পদে শপথ নিয়েছেন এই তরুণ। এত অল্প বয়সে মন্ত্রী পদে নিয়োগ পেয়ে বেশ প্রশংসিত হচ্ছেন সাদিক।

তবে অনেকেই আবার প্রশ্ন তুলেছেন যে, একটি মন্ত্রণালয়কে নেতৃত্ব দেয়ার মতো যোগ্যতা তার আছে কিনা।

মন্ত্রী পদে নিয়োগ পাওয়ার বিষয়ে সাদিক বলেন, এটা অনেক বড় দায়িত্ব। তিনি নিজের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

সাদিক বলেন, আমি বিশ্বাস করি আমরা সবাই একটি দল হয়ে একত্রে কাজ করলে অবশ্যই সফলতা অর্জন করতে পারব।

এর আগে ২০১৩ সালে দেশটির সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রী খাইরি জামাল উদ্দিন ৩৭ বছর বয়সে মন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান।

ভিডিওতে সংক্ষেপে সাঈদ সাদিক আব্দুল রহমান : 

আরো পড়ুন :

নেপোলিয়নের পর সবচেয়ে কম বয়সী প্রেসিডেন্ট
রয়টার্স, ০৯ মে ২০১৭
ফ্রান্সের দিগ্বিজয়ী বীর নেপোলিয়নের পর সবচেয়ে তরুণ বয়সে দেশটির মতার শীর্ষে উঠেছেন মাত্র তিন বছর আগেও জনসাধারণের কাছে অপরিচিত ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। নিজের ৪০তম জন্মদিনের কয়েক মাস আগে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

এক বছর আগেও তার নিজের কোনো রাজনৈতিক দল ছিল না। ছিলেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদের একজন উপদেষ্টা। মাত্র এক বছর আগে সরকারি পদ ছেড়ে নিজের রাজনৈতিক দল ‘এন মার্চ’ বা ‘এগিয়ে যাও’ গঠন করেই বাজিমাত করলেন ম্যাক্রোঁ। সাবেক ব্যাংকার ম্যাক্রোঁ ফরাসি রাজনীতির প্রজন্ম বদলের দীর্ঘ অপোর অবসান ঘটিয়েছেন। যে রাজনীতিতে বছরের পর বছর ধরে কতগুলো পরিচিত মুখই সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করেছে।

জি-৭ দেশগুলোর মধ্যে এখন ম্যাক্রোঁই সবচেয়ে তরুণ নেতা। এসব দেশের সব নতুন-পুরনো তরুণ নেতার চেয়েও ম্যাক্রোঁ তরুণতর, তা হালের কানাডীয় প্রেসিডেন্ট জাস্টিন ট্রুডোই হোন আর সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডি হোন।

ফ্রান্সের অভিজাত ন্যাশনাল স্কুল অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের গ্র্যাজুয়েট ম্যাক্রোঁ। এই স্কুল থেকেই ফ্রান্সের ভবিষ্যৎ শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তারা বের হয়ে আসেন। সাবেক ছাত্রদের মধ্যে তিনজন ফরাসি প্রেসিডেন্ট রয়েছেন, এবার ম্যাক্রোঁকে নিয়ে তা চারে দাঁড়াল।

গ্র্যাজুয়েশন শেষ করার পর ম্যাক্রোঁ ফ্রান্সের অর্থ মন্ত্রণালয়ে ফিন্যান্সিয়াল ইন্সপেক্টর হিসেবে কাজ করেন। এর বিনিয়োগ ব্যাংকার হিসেবে রথচাইল্ড অ্যান্ড সি ব্যাংকে যোগ দেন। ২০০৯ সালে স্বাধীন রাজনীতিক হওয়ার আগে তিনি তিন বছর ফরাসি সমাজতান্ত্রিক দলের সদস্য ছিলেন। পরে বর্তমান ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদের ব্যক্তিগত কর্মীদলের সদস্য হন এবং পরে প্রধানমন্ত্রী ম্যানুয়েল ভালাসের নেতৃত্বাধীন সরকারের অর্থ, শিল্প ও ডিজিটাল অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু দুই বছর মন্ত্রিত্ব করার পরই তাতে ইস্তাফা দিয়ে ২০১৬ সালে নিজের দল ‘এগিয়ে যাও’ আন্দোলন প্রতিষ্ঠা করেন। তার মাত্র এক বছরের মধ্যেই তিনি ফরাসি রাজনীতির প্রতিষ্ঠিত সব ধারাকে ধরাশায়ী করে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন।

উত্তর ফ্রান্সের আমিয়েঁর চিকিৎসক দম্পতির ঘরে জন্ম নেয়া ম্যাক্রোঁ তার চেয়ে বয়সে ২৪ বছরের বড় নিজের স্কুল টিচারকে বিয়ে করেন।

মাহাথির মোহাম্মদ কেন অনন্য, কেন অসাধারণ
নয়া দিগন্ত অনলাইন, ১৯ মে ২০১৮
ড. মাহাথির বিন মোহাম্মদ ৯২ বছর বয়সেও ভীষণ ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন সরকারি দায়িত্ব নিয়ে। এতে যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু ঘুম না হওয়ায় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন বলে উদ্বিগ্ন তার স্ত্রী ড. সিতি হাসমাহ।

ড. সিতি ফেসবুকে এক পোস্টে লিখেছেন, মাহাথির যখন ঘুমাতে যাওয়ার কথা সে সময়ও তিনি সরকারি ডকুমেন্ট নিয়ে বসে থাকছেন। এক রাতে তাকে আমি ভোর ৪/৫টা পর্যন্ত এমন ডকুমেন্ট যাচাই করতে দেখেছি। তিনি ওই রাতে ২০০ ডকুমেন্ট যাচাই করেছেন। আবার সকাল ৭টায় তিনি অফিসে গিয়ে হাজির। এ জন্য তার স্বাস্থ্য নিয়ে আমি উদ্বিগ্ন।

কর্মব্যস্ত থাকতে পারেন বলেই মাহাথির অনন্য। কাজে ডুবে থাকেন বলে তার স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে স্বজনেরা দুশ্চিন্তা করেন। টাইম ম্যাগাজিন একবার তার অফিসে আসার সময় রেকর্ড করেছিল। পরপর পাঁচ দিন তার অফিসে প্রবেশের সময় ছিল সকাল ৭:৫৭, ৭:৫৬, ৭:৫৭, ৭:৫৯, ৭:৫৭। কর্মব্যস্ত মাহাথিরের জীবনের স‍ার্থকতা তিনি দেশ ও জাতিকে কিছু দিতে পেরেছেন; অর্থবহ কাজে ব্যস্ত থেকে সময়কে কাজে লাগাতে পেরেই তিনি সুখী।

মাহাথির বলেছেন- আমাদের ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করতে হবে। পেছনের আবর্জনা ঘাঁটার সময় আমাদের হাতে নেই। আমি কোনো প্রতিশোধ নিতে চাই না। জনগণকে নির্যাতন করার জন্য তৈরি করা কোনো আইন রাখা হবে না। আমরা সংবিধান সমুন্নত রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করতে চাই। আইনের শাসনমতে দেশ চালাতে চাই।

তিনি আরো বলেছেন- খান কম, অনুশীলন করুন বেশি, বই পড়ুন বেশি। প্রত্যেকের নিজ পরিবার একটি নিরাপদ জায়গা - যা আমাদের এই জটিল সমাজে স্থিরতা আনে। সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করা হলে ধর্ম কখনো অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য বাধা হতে পারে না। চিকিৎসা বিদ্যায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত লোকের জন্য রাজনীতি একটি ভালো পেশা। একজন ডাক্তার রোগীকে পর্যবেক্ষণ করেন, স্বাস্থ্যগত ইতিহাস রেকর্ড করেন, স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন, ল্যাব পরীক্ষা করেন এবং চূড়ান্তভাবে রোগ নির্ণয় করেন। এ প্রক্রিয়াটি রাজনীতির মতোই।


আরো সংবাদ

iptv al Epoksi boya epoksi zemin kaplama Daftar Situs Agen Judi Bola Net Online Terpercaya Resmi

Hacklink

Bursa evden eve nakliyat
arsa fiyatları tesettür giyim
Canlı Radyo Dinle hd film izle instagram takipçi satın al ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme

instagram takipçi satın al
hd film izle
gebze evden eve nakliyat