টেলিভিশন

মৌ’র সঙ্গে লাবণ্য’র অভিনয়ে যাত্রা শুরু

১৯৯৫ সালে নন্দিত নাট্যরচয়িতা ও নির্মাতা ফারিয়া হোসেনের হাত ধরেই নাট্যাঙ্গনে জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী সাদিয়া ইসলাম মৌ’র অভিষেক হয়। তার নির্দেশনায় ‘অভিমানে অনুভবে’ নাটকে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে একজন অভিনেত্রী হিসেবে মৌ’কে প্রথম টেলিভিশন পর্দায় দেখেন। তখন দেশের একমাত্র টিভি চ্যানেল বিটিভি’তে নাটকটি প্রচার হবার পর একজন মডেল’র পাশাপাশি একজন অভিনেত্রী হিসেবেও তিনি দারুণ সাড়া পেয়েছিলেন। সেই যে শুরু হলো মৌ’র অভিনেত্রী হিসেবে পথচলা তা এখনো অব্যাহত আছে। সেই মৌ’র সঙ্গেই তার মেয়ের চরিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে ফারিয়া হোসেনের মেয়ে লাবন্য’র অভিনয়ে পথচলা শুরু হলো।

পান্থ শাহরিয়ারের রচনায় ও আরিফ খানের নির্দেশনায় ঈদ ধারাবাগিক নাটক ‘উড়ো চিঠি’তে মৌ ও শহীদুজ্জামান সেলিম দম্পতির কন্যা হিসেবে অভিনয় করেছে লাবন্য। ফারিয়া হোসেনের রচনায় ও প্রযোজনায় অনেক নাটক নির্মাণ করেছেন আরিফ খান। তবে ফারিয়া হোসেনের মেয়ে লাবন্য’র অভিনয়ে অভিষেক যে অন্য কারো প্রযোজনা সংস্থা থেকে হবে এটা ফারিয়া হোসেন কখনো ভাবেননি। কারণ তার মেয়েকে অভিনেত্রী হিসেবে গড়ে তোলার ইচ্ছেও অবশ্য কখনো ছিলোনা। তবে লাবন্য’র বাবা শফিকুল ইসলামের ইচ্ছে ছিলো মেয়েকে অভিনেত্রী হিসেবে টিভি পর্দায় দেখার। ফারিয়া হোসেন বলেন,‘ আমরাতো আসলে এখন আমেরিকা থাকি। কিছুদিন আগে ঢাকায় বেড়াতে এসেছি। কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই আরিফের নাটকে অভিনয় করা হয়েছে লাবন্য’র।

লাবন্য এতোটা ন্যাচারাল অ্যাক্টিং করতে পারবে, তা ভাবিনি আমি। আমি ভীষণ খুশি তার অভিনয়ে। আরো বেশি খুশি এ কারণে যে মৌ’র অভিনয়ের শুরুটা আমার হাত দিয়ে। সেই মৌ’রই মেয়ের চরিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে আমার মেয়ের অভিনয়ের শুরু।’ সাদিয়া ইসলাম মৌ বলেন,‘ লাবন্য প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে অভিনয় করলেও কোনরকম জড়তা ছাড়া সে খুউব ভালো অভিনয় করেছে। আমার কাছে মনে হয়েছে অভিনয়ের জন্য ওর মেধা আছে।’ লাবন্য আমেরিকাতেই পড়াশুনা করছে।

আরো সংবাদ