রাজশাহী

পরকীয়ায় আসক্ত শিক্ষক-শিক্ষিকা জনতার হাতে আটক

নওগাঁর সাপাহারে সোমবার বিকেলে পরকীয়ায় আসক্ত পত্নীতলা উপজেলার (বাঁকরইল) দিবর গ্রামের মৃত সাইফ উদ্দীন আহম্মেদ (মাষ্টার) এর পুত্র মাহবুবুর রহমান খোকন (৪০) ও উপজেলা সদরের কাজীপাড়া মহল্লার ঔষধ ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল ফয়সাল এর স্ত্রী রাইহানা মুস্তারী (৩৫) তাঁতইর বাখরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে পুলিশে দিলেন জনতা।

জানাগেছে, জিরো পয়েন্টে অবস্থিত লাবনী সুপার মার্কেটের পাশ্ববর্তী মার্কেট যার মালিক বেলাল হোসেনের দু’তলায় সেই শিক্ষক কম্পিউটার সর্ভিসের জন্য একটি দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে দীর্ঘ দিন যাবত সার্ভিস দিয়ে আসতেছিল। তাঁতইর বাখরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহবুবুর রহমান খোকনের দোকানে শিক্ষক শিক্ষিকার চলাফেরা ছিল। এ সুযোগে একই প্রতিষ্ঠানের সহকারী শিক্ষিকা দুই সন্তানের জননী রাইহানা মুস্তারী পরকীয়ায় আসক্ত হয়ে প্রেমিক খোকনের সাথে দেখা করতে আসে দুপুরে বৃষ্টির কারণে সাটারিং বন্ধ করে অনৈতিক কর্মকাণ্ড চলা অবস্থায় আপত্তিকর অবস্থায় দোকান ঘর থেকে পরকীয় আসক্ত শিক্ষক শিক্ষিকাকে জনতা ও শিক্ষিকার স্বামী আটক করে থানা পুলিশে দেন।

এবিষয়ে মঙ্গলবার দুপুরে সাপাহার সহকারী পুলিশ কমিশনার সামিউল আলম এর সাথে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আটককৃতরা থানা হেফাজতেই ছিল।

এ বিষয়ে তাঁতইর বাখরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান বিষয়টি নিয়ে আমরা প্রতিষ্ঠানে অনেক বার বসেছি এবং তাকে আমরা ভাল হওয়ার জন্য অনেক সুযোগ দিয়েছিলাম কিন্তু সে আমাদের কথা রাখেনি, তবে আমরা আগামি বৃহস্পতিবার স্কুল ম্যানেজিং কমিটির মিটিং এ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করব।

 

আরো দেখুন : পিয়নের নারী কেলেঙ্কারী ফাঁস

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ অফিসের পিয়ন আব্দুল মতিনের নারী কেলেঙ্কারী ফাঁস হওয়ার পর এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘটনাটি ধামা-চাপা দিতে গ্রামের কতিপয় প্রভাবশালী শালিসী-বৈঠকের মাধ্যমে মতিনের নারী কেলেঙ্কারী ধামাচাপা দিতে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। তবে গুঞ্জন চলছে জরিমানা’র পরিমাণ আরো বেশি করা হয়েছে। যে টাকা মেয়ে পক্ষকে না দিয়ে নানান কায়দায় ভাগবাটোয়ারার অভিযোগ উঠছে।

জানা গেছে, উপজেলার কালিগ্রাম ইউনিয়নের বেলঘড়িয়া গ্রামের রবি মাস্টারের ছেলে রাণীনগর বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ অফিসের পিয়ন আব্দুল মতিন (২৭) একই এলাকার জনৈক ব্যক্তির মেয়ের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। দীর্ঘ প্রায় দু’বছর সম্পর্ক চলাকালে মেয়েটি বার বার বিয়ের প্রস্তাব দিলেও তা কৌশলে এড়িয়ে চলে মতিন। গত মঙ্গলবার অন্যত্র বিয়ের জন্য পাত্রী পক্ষ মতিনের ঘর-বাড়ি দেখতে আসে। ওই দিন রাতেই আবার প্রেমিকাকে নিজ ঘরে ডেকে নেয় মতিন। এরপর চলে যেতে বললে মেয়েটি তাকে বিয়ে না করলে বাড়ি থেকে যাবে না সাফ জানিয়ে দেয়।


এ খবর জানাজানি হলে স্থানীয় মাতাব্বর প্রধান ও ইউপি মেম্বার ওই রাতেই শালিস বসায়। সেখানে সমাধান না হওয়ায় বুধবার বিকেলে শালিসের আয়োজন করে ঘটনাটি ধামা-চাপা দেয়ার জন্য মতিনের ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করে মাতব্বররা। অভিযুক্ত আব্দুল মতিন জানান, ঘটনার পর দিন বিকেলে বসে স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হয়েছে। স্থানীয় ইউপি মেম্বার এবাদুল হক জানান, প্রথম রাতে ঘটনা মীমাংসার জন্য আমরা বসেছিলাম। ওই সময় সমাধান না হওয়ায় পরের দিন ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হয়েছে।

তবে এই রকম ন্যাক্কারজনক ঘটনায় বরেন্দ্র অফিসের পিওন জরিত থাকার ঘটনা ফাঁস হলেও সহকারি প্রকৌশলী তিতুমীর রহমান পিয়নের পক্ষেই সাফাই গাইলেন। রাণীনগর বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সহকারি প্রকৌশলী তিতুমীর রহমান জানান, সে আমার অফিসের পিয়ন। শুনেছি বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, সামান্য ব্যাপার নিয়ে সাংবাদিকদের এত উৎসাহ কেন? আমি বুঝি না!

রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এএসএম সিদ্দিকুর রহমান জানান, এব্যাপারে এখন পর্যন্ত কেউ আমাকে জানায়নি। তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ