বিবিধ

সহযোগিতা বাড়াচ্ছে পাকিস্তান-চীন

পাকিস্তান ও চীনের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা আরো বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই তিনদিনের সফরে ইসলামাবাদ গেছেন। আমেরিকার সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্কে যখন বড় রকমের টানাপড়েন চলছে তখন চীন ইসলামাবাদের সঙ্গে সম্পর্ক আরো গভীর করার উদ্যোগ নিয়েছে।  

ইসলামাবাদ পৌঁছে ওয়াং ই গতকাল পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেহমুদ কোরেশীর সঙ্গে বৈঠকে করেছেন। বৈঠক শেষে ওয়াং ই সংবাদ সম্মেলনে বলেন, পাকিস্তানের জন্য কোনো রকমের বোঝা না হয়ে বরং চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডর নজিরবিহীন সমৃদ্ধি নিয়ে আত্মপ্রকাশ করবে।

চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডর সম্পর্কে সমালোচনা নাকচ করে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ প্রকল্প থেকে লাভবান হওয়ার জন্য দু পক্ষ অগ্রাধিকারগুলো পুনর্বিন্যাস করতে রাজি হয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে পাকিস্তানের ওপর কোনোভাবেই ঋণের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয় নি। তিনি বলেন, এ প্রকল্প যখন শেষ হবে এবং চালু হয়ে যাবে তখন তা বিশাল অর্থনৈতিক লাভ বয়ে আনবে; পাকিস্তানের অর্থনীতির জন্য উল্লেখযোগ্য সুবিধা দেবে।  

চীন হচ্ছে পাকিস্তানের দীর্ঘদিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং গত কয়েক বছরে বিভিন্ন অবকাঠামোর উন্নয়নে ব্যাপক অর্থনৈতিক বিনিয়োগ করেছে।

সামরিক সক্ষমতা বাড়াচ্ছে পাকিস্তান, চীন থেকে কিনছেই যুদ্ধজাহাজ
আনাদুলো এজেন্সি, ০২ জুন ২০১৮

পাকিস্তান চীন থেকে দুটি যুদ্ধ জাহাজ ক্রয় করতে যাচ্ছে। শুক্রবার পাকিস্তানের নৌবাহিনীর বরাতে এ তথ্য জানানো হয়।  

বাহিনীটি আশা প্রকাশ করে বলেন, এই যুদ্ধ জাহাজ ক্রয় করার মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক নিরাপত্তা বন্ধন জোড়ালো হবে।


চায়না শিপিং ট্রেডিং কোম্পানি লিমিটেড এবং রাওয়ালপিন্ডির গ্যারিসন শহরের প্রতিরক্ষা প্রোডাকশন মন্ত্রণালয়ের মধ্যকার এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

তবে এ চুক্তি সম্পর্কে এখনো বিস্তারিত জানানো হয়নি।     

সূত্রের বরাতে বলা হয়, এ যুদ্ধজাহাজ ক্রয় করার মাধ্যমে পাকিস্তানের নৌবাহিনী আরোও শক্তিশালী হবে এবং তাদের কর্মতৎপরতা বৃদ্ধি পাবে।    

পর্যবেক্ষকদের মতে, ভারতকে চাপে রাখতেই অত্যাধুনিক যুদ্ধ জাহাজ কিনছে পাকিস্তান। এর মাধ্যমে ভারত পাকিস্তানের মধ্যকার উত্তেজনা ফের বৃদ্ধি পেতে পারে মন্তব্য করেছেন তারা। তবে এই যুদ্ধজাহাজ পাকিস্তান নৌবাহিনীর আলাদা শক্তি যোগান দেবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।   

আরো সংবাদ