খুলনা

মাশরাফির বিবাহ বার্ষিকীতে ভক্তদের শুভেচ্ছা

এক যুগে যুগলবন্দী তারা। দেখতে দেখতে কেটে গেছে ১২টি বছর। দাম্পত্য জীবনে দুই সন্তানের জনক-জননী তারা। বলছি-‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি বিন মর্তুজা দম্পতির কথা। স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে সুখের সংসার তাদের। ক্রিকেট অঙ্গনের এ দম্পতির (মাশরাফি-সুমি) ৭ সেপ্টেম্বর ছিল ১২তম বিবাহবার্ষিকী। এইদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাশরাফি ভক্তসহ তার বন্ধুরা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গত ৬ সেপ্টেম্বর (বৃস্পতিবার) রাত ১০টার পর থেকেই মাশরাফি দম্পতির জন্য শুভ কামনা জানান তার ভক্তরা।

শেখ নয়ন নামে এক ভক্ত ফেসবুকে লিখেছেন-‘শুভ বিবাহবার্ষিকী ভাই-ভাবি।’ এমবিএ লিংকন লিখেছেন-‘নড়াইল তথা বাংলার ১৭ কোটি মানুষের মধ্যমনি ও গর্ব, ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি বিন মর্তুজা কৌশিকের শুভ বিবাহবার্ষিকী। শুভ হোক আগামীর দিনগুলি।’

হিরা সারথীর মন্তব্য-‘হ্যাপি অ্যানিভারস্যারি বন্ধু, অনেক অনেক ভালো থাকো সবসময়। জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নিলয় রায় বাঁধন শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এভাবেই-‘শুভ বিবাহবার্ষিকী ভাই-ভাবী, শুভ কামনা ও আপনাদের সফলতা কামনা করি নিরন্তর...।’ এছাড়া ফেসবুকবন্ধুরা মাশরাফির বিয়ের দিনের ছবিসহ তার স্ত্রী ও সন্তানদের ছবিও পোস্ট করেছেন। বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেটদলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার জন্য দোয়াসহ ভালো ক্রিকেট খেলার প্রত্যশা করেন ভক্তরা।

জানা যায়, ২০০৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর নড়াইল চিত্রাপাড়ের মেয়ে সুমনা হক সুমিকে বিয়ে করেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি বিন মর্তুজা। নড়াইল শহরের রূপগঞ্জে একটি কমিউনিটি সেন্টারে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। পরের দিন ৮ সেপ্টেম্বর চিত্রা রিসোর্টে বৌ ভাত অনুষ্ঠিত হয়। এসব অনুষ্ঠান ঘিরে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তৎকালীন সভাপতি, কোচ, খেলোয়াড়, প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন পেশার মানুষের মিলন মেলা হয়েছিল।

এদিকে, মাশরাফি ও তার পরিবার কখনোই বিবাহবার্ষিকী এবং জন্মদিন ধুমধাম করে পালন করেন না। এক্ষেত্রে সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন তারা। মাশরাফি-সুমির দাম্পত্য জীবনে হুমায়রা এবং সাহেল নামে দুই সন্তান রয়েছে।

আরো সংবাদ