নগর মহানগর

প্রধান শিক্ষকের পরের গ্রেডে বেতন চান সহকারী শিক্ষকেরা

প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পরের গ্রেডে বেতন স্কেল চান প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকেরা। তাদের দীর্ঘ দিনের এই দাবি বাস্তবায়নের জন্য তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। গতকাল বুধবার ঢাকার সেগুনবাগিচায় এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোটের নেতৃবৃন্দ এই দাবি জানান। মহাজোটের সমন্বয়ক আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ।
তিনি বলেন, প্রধান শিক্ষকদের সাথে সহকারী শিক্ষকদের চরম বেতনবৈষম্য বিরাজমান। ১৯৭৩ সালে যেখানে একজন প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারী শিক্ষকের বেতন ব্যবধান ছিল মাত্র ১০ টাকা। ২০১৮ সালে এসে এই ব্যবধান হয়েছে ভাতাসহ প্রায় ৫ হাজার টাকা। বর্তমানে সহকারী শিক্ষকেরা প্রধান শিক্ষকের চেয়ে ৩ গ্রেড নিচে বেতন পান। এই বৈষম্য নিরসনের দাবিতে সহকারী শিক্ষকেরা দীর্ঘ দিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন। সম্প্রতি সহকারী শিক্ষকদের আমরণ অনশন কর্মসূচিতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী শিক্ষকদের দাবি যৌক্তিক হলে মেনে নেবেন এই প্রতিশ্রুতি দিলে শিক্ষকেরা অনশন স্থগিত করেন। কিন্তু দীর্ঘ ৯ মাস হয়ে গেলেও বেতনবৈষম্য নিরসনের অগ্রগতি খুবই ধীর। তাই শিক্ষক নেতারা বেতনবৈষম্য নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি হস্তক্ষেপ চান। এজন্য তারা প্রধানমন্ত্রীর সাথে দ্রুত সাক্ষাৎ চেয়েছেন। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ এবং বেতনবৈষম্য নিরসন না হলে ২০ সেপ্টম্বর থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষকেরা প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ কামনায় গণস্বাক্ষর করবেন। ২৫ সেপ্টেম্বর গণস্বাক্ষরের কপিসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারকলিপি পেশ করবেন। এরপরও দাবি আদায় না হলে তারা মহাসমাবেশসহ আরো কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন। আসছে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বেতনবৈষম্য নিরসন চান তারা।
সংবাদ সম্মেলনে কর্মসূচি ঘোষণা করেন সহকারী শিক্ষক সমাজের সভাপতি আনিসুর রহমান। সঞ্চালনা করেন মহাজোটের মুখপাত্র ও সহকারী শিক্ষক ফ্রন্টের সভাপতি ইউ এস খালেদা আক্তার। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেনÑ বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আসাদুজ্জামান দুর্জয়, বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি জাহিদুর রহমান বিশ্বাস, সহকারী শিক্ষক সমাজের সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকী রবিউল, সহকারী শিক্ষক ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন, সহকারী শিক্ষক সমিতির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের জিলানী ও প্রমথেশ দত্ত, সহসভাপতি জাকির হোসেন, গাজী সালাউদ্দিন, জসিম উদ্দিন, আব্দুর রহিম ফেরদউস, মোহাম্মদ আব্দুল আলী, ফিরোজ আলম, মতিউর রহমান, ইলিয়াস মিয়া, আব্দুর রহমান, ময়জুল হক, শিশির কীর্তনিয়া, কাশেম বিদ্যুৎ প্রমুখ।

আরো সংবাদ