২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

তাজিয়া মিছিলে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে : ডিএমপি কমিশনার

তাজিয়া মিছিলে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে : ডিএমপি কমিশনার - নয়া দিগন্ত

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া শোক মিছিলে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর হোসাইনী দালান ইমামবাড়া কেন্দ্রীক নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা জানান। এ সময় শিয়া সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ও ডিএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, তাজিয়া শোক মিছিল উপলক্ষে রাজধানীর বড় কাটারা ইমামবাড়া, খোজা শিয়া অনুসারী ইমামবাড়া এবং বিবিকা রওজায় নেয়া হয়েছে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা। প্রতিবারের ন্যায় এবারও শান্তিপূর্ণভাবে ১০ মহরমে বড় তাজিয়া শোক মিছিল অনুষ্ঠিত হবে। সমন্বিত ও কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যদিয়ে পালিত হবে তাজিয়া শোক। সে লক্ষ্যে আমাদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতিটি ইমামবাড়া সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। আর্চওয়ে ও মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে প্রত্যেক দর্শনার্থীর দেহ তল্লাশী করে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করতে দেয়া হবে।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ডিএমপি’র ডগ স্কোয়াড ও পুলিশের বিশেষ শাখা (এসবি) অনুষ্ঠান শুরুর আগে প্রতিটি অনুষ্ঠানস্থল সুইপিং করবে। যেসব রুট দিয়ে শোক মিছিল যাবে সেসব রুটে থাকবে আমাদের রুফটপ ডিউটি, রোড ব্যারিকেড ব্যবস্থা ও গাড়ি ওফুট পেট্রোলিং।

ডিএমপি’রএই শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, তাজিয়া মিছিলে থাকবে পর্যাপ্ত পুলিশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। শোক মিছিলের নিরাপত্তায় সাদা পোশাকে ও ইউনিফর্মে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন থাকবে।তিনি বলেন, নিরাপত্তার স্বার্থে শোক মিছিলে ব্যবহৃত নিশানের উচ্চতা ১২ ফুট এর বেশী হবে না। মিছিলে কোন পাইক অংশগ্রহণ করতে পারবে না। তাজিয়া শোক মিছিলকে ঘিরে আয়োজকরা পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বেচ্চাসেবক নিয়োগ করবেন। স্বেচ্ছাসেবকরা নির্ধারিত পোশাক ও আর্মড ব্যান্ডসহ ছবি সম্বলিত আইডি কার্ড প্রকাশ্যে ঝুলিয়ে রাখবেন।

আছাদুজ্জামান মিয়া আরো বলেন, রাস্তার মাঝে বিভিন্ন অলি গলি থেকে তাজিয়া শোক মিছিলে অংশগ্রহণ করতে দেয়া হবে না। তল্লাশী ছাড়া কোন অবস্থায় কাউকে মিছিলে ঢুকতে দেয়া হবে না। কমিশনার বলেন, তাজিয়া শোক মিছিলে কোন প্রকার ধারালো অস্ত্র, ধাতব পদার্থ, দাহ্য পদার্থ, ব্যাগ, পোটলা, চায়ের ফ্লাক্স, পেসার কুকার, লাঠি, ছোঁড়া, চাকু, তরবারি ও বর্শা বহন করা যাবে না। এছাড়া ঢাক-ঢোল বাজানো, উচ্চ শব্দে সেট বাজানো, আগুন ও আতশবাজির ব্যবহার নিষিদ্ধ থাকবে। 


আরো সংবাদ