১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

দীঘি পুনঃখননেও বিদেশে প্রশিক্ষণ!

দীঘি পুনঃখননেও বিদেশে প্রশিক্ষণ! - ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশের অনেক পুকুর, জলাশয় ও দীঘি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে প্রায় ভরাট হয়ে যাচ্ছে। এ কারণে এগুলোর পানি ধারণক্ষমতাও কমে যাচ্ছে। সরকার এসব পুকুর ও দীঘি পুনঃখননের উদ্যোগ নিয়েছে। এ জন্য প্রশিক্ষণ নিতে বিদেশে যাবেন ১৬ জন কর্মকর্তা। এ জন্য মাথাপিছু ব্যয় হবে ৮ লাখ টাকা। 

প্রকল্প প্রস্তাবনা থেকে জানা গেছে, পুকুর পুনঃখননে প্রতি লাখ ঘন মিটারে ব্যয় হবে ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা এবং দীঘী পুনঃখননে ব্যয় হবে ১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদশে খাল খননের ওপর ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করার নজির রয়েছে, সে দেশ থেকে পুকুর ও দীঘি পুনঃখননের প্রশিক্ষণ নিতে বিদেশে যাওয়া রাষ্ট্রীয় অর্থের অপচয়। বিদেশী ঋণের এবং জনগণের দেয়া রাজস্বের অর্থ উন্নয়নের নামে অপচয় করা হচ্ছে। সরকারি কর্মকর্তাদের মনোরঞ্জনের জন্যই এসব ব্যয়ের খাত তৈরি করা হয়েছে। 

সরকারি জরিপের তথ্যানুযায়ী, ২০১৫ সালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে স্থানীয় সরকার বিভাগকে পুকুর ও খাল নিয়ে জরিপ করার নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর এলজিইডির পক্ষ থেকে সরেজমিন খাল ও পুকুর যাচাই-বাছাই করে জেলাভিত্তিক তালিকা করা হয়। সারা দেশে মোট ১৪ হাজার ৯১০টি খাস পুকুর, দীঘি, ৩ হাজার ৪৯৩টি প্রাতিষ্ঠানিক এবং ৬ হাজার ৫৩৬টি খাস খাল রয়েছে। এসব পুকুর, খালকে পুনঃখননের মাধ্যমে ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণ করে সেচসুবিধা সম্প্রসারণ করে বহুমুখী কাজে পানি ব্যবহার করা। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় বরেন্দ্র অঞ্চলে বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত কম। সেচকাজে মূলত ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। তাই ১২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে দেশের বরেন্দ্র অঞ্চলের ৪৩টি উপজেলায় পুকুর ও দীঘি পুনঃখননের প্রকল্প বাস্তবায়ন করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ প্রকল্পে ৭১৫টি পুকুর ও ১০টি দীঘি পুনঃখনন, ৮৫টি সৌরচালিত লো লিফট পাম্প স্থাপন, ৮০টি ভূ-গর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ, ৮৫টি প্রিপেইড মিটার ক্রয়, ৯ হাজার মিটার ফিতা পাইপ ক্রয় এবং দেড় লাখ বৃক্ষ রোপণ অন্তর্ভুক্ত আছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, পুকুর বা দীঘি পুনঃখননের মাধ্যমে বৃষ্টির পানি ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণ করে তিন হাজার হেক্টর জমিতে সেচসুবিধা সম্প্রসারণ করা হবে। এতে করে প্রতি বছর অতিরিক্ত প্রায় ১৮ হাজার ৩৪৮ মেট্রিক টন ফসল উৎপাদন ও মৎস্যচাষের সুযোগ সৃষ্টি হবে। পাশাপাশি বহুমুখী কাজে পুকুরের পানি ব্যবহারের সুযোগ হবে। 

ব্যয় বিভাজনে দেখা যায়, এ প্রকল্পে ১৮ জন কর্মকর্তা ও ৮ জন কর্মচারী কাজ করবেন। তাদের বেতন ধরা হয়েছে সাড়ে ৩ কোটি টাকার বেশি। তাদের ভাতা যাবে সোয়া ৭ কোটি টাকা। এখানে দুই ব্যাচে ১৬ জনকে বিদেশে প্রশিক্ষণ নিতে পাঠানো হবে। যাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ২৮ লাখ টাকা। ফলে জনপ্রতি ব্যয় হবে ৮ লাখ টাকা। এখানে ৭২৫টি পুকুর ও দিঘির জরিপে ব্যয় হবে সাড়ে ৭৩ লাখ টাকা। ভূ-গর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণের জন্য ইউপিভিসি পাইপ কেনা হবে এক হাজার মিটারের ৮৫টি, যাতে খরচ ধরা হয়েছে ৬ কোটি টাকা। ফলে প্রতিটি পাইপের মূল্য পড়ছে সাড়ে ৭ লাখ টাকা। আর এই পাইপ প্রতিটি বসাতে ব্যয় হবে ৪ লাখ টাকা। ৮০টি পাইপ বসাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা। 

উল্লেখ্য, বর্তমানে চলমান এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের সারা দেশে পুকুর পুনঃখনন প্রকল্পের ২৪ জনকে বিদেশে প্রশিক্ষণ খাতে ব্যয় ধরা হয় ১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। সেখানে তাদের জনপ্রতি ব্যয় ৬ লাখ টাকা। বিদেশে প্রশিক্ষণ, বিদেশ ট্যুর, স্টাডি ট্যুর খাত প্রতিটি উন্নয়ন প্রকল্পেই থাকতে হবে। আর সেগুলোতে সদস্য তালিকায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি পরিকল্পনা কমিশন, তার কার্যক্রম বিভাগ, ইআরডি, আইএমইডির প্রতিনিধি রাখার জন্য মূল্যায়ন কমিটির পক্ষ থেকে সব সময়ই সুপারিশ করা হয়। 
এ দিকে, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের যুগ্ম সম্পাদক মো: আলমগীর কবীরের মতে, বাংলাদেশের মতো একটি নদীমাতৃক দেশে পুকুর বা দিঘি খননের মতো কাজের জন্য বিদেশে প্রশিক্ষণ নেয়া হবে একটা হাস্যকর ঘটনা। একটা স্কুলের ছাত্রও বলতে পারবে কিভাবে পুকুর বা দিঘি খনন করতে হবে। এখানে বিদেশে প্রশিক্ষণের কোনো প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন, এটা প্রকল্পের অর্থ তছরুপ এবং লুটপাটের একটা খাত। সরকারি কর্মকর্তা বা আমলাদের মনোরঞ্জনের জন্যই এ ধরনের ব্যয়ের খাত রাখা হয় উন্নয়ন প্রকল্পে। এসবের কোনো যুক্তি নেই। 

পুকুর ও দিঘি খননে বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যাপারে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. বদিউল আলম মজুমদারের মতে, উন্নয়নের নামে অর্থের অপচয় করা হচ্ছে। অর্থ সঠিকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে না। এ কারণে প্রকল্পের ব্যয় বেড়েই চলছে। তিনি বলেন, সরকার যদি এ দিকে নজর না দেয় তাহলে জাতি হিসেবে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হবো। তিনি বলেন, আমাদের দেশে এসবসহ অনেক উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক বেশি। এই সবের মাধ্যমে লুটপাট ও দুর্নীতি হচ্ছে।


আরো সংবাদ

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ বছরে ১২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট, খরচে স্বচ্ছতা কতটা? সাভারে নদীতে নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার গৃহবধূর অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে চাঁদা দাবি : যুবক গ্রেফতার সাপ-কুমির নিয়ে মোদিকে হুমকি পাকিস্তানি শিল্পীর মহাদেবপুরে বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত মেয়েকে নিয়ে ট্রেনের নিচে লাফ দিয়ে মায়ের আত্মহত্যা শীঘ্রই ছাড়া পাচ্ছেন না ফারুক আবদুল্লাহ ডেঙ্গু জ্বরে খুলনায় শিশুর মৃত্যু ৫০ লাখ টাকা আত্মসাতের দায়ে বান্দরবানে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার ভাণ্ডারিয়ায় ইজিবাইক চাপায় স্কুলছাত্র নিহত মঙ্গলবার ১১টা পর্যন্ত ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষের যোগদান নয়

সকল