১৭ নভেম্বর ২০১৯

দৃষ্টিনন্দন ক্যামেলিয়া লেক

-

চারদিকে সারি সারি চা বাগান আর ছোট বড় পাহাড়ি টিলা। উপরে নীল আকাশ। সব সময়ই আকাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে ঝাঁকে ঝাঁকে পরিযায়ী পাখি (স্থানীয়রা বলে থাকেন অতিথি পাখি)। এরই মাঝে অবস্থিত এক দৃষ্টিনন্দন লেক। চা বাগানের শ্রমিকদের কাছে এ লেকটি ‘বিসলার বান’ বা ‘ক্যামেলিয়া বাঁধ’ নামে পরিচিত। তবে এর প্রকৃত নাম ‘ক্যামেলিয়া লেক’। দৃষ্টিনন্দন এ লেকটির অবস্থান মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ‘ডানকান ব্রাদার্স টি এস্টেট’-এর শমসেরনগর চা বাগানে। বাগানটির আয়তন ৪৩২৬.৪৭ একর। আমাদের দেশের চা বাগানগুলোতে শুষ্ক মওসুমে সেচের জন্য প্রায় সব বাগানেই ছোট বড় লেক দেখতে পাওয়া যায়। এসব বাগানের লেকগুলো সাধারণত চা বাগানের নিচু জমিতে বা পাহাড়ি টিলার পাদদেশে হয়ে থাকে। কিন্তু ক্যামেলিয়া লেকের বৈশিষ্ট্য হলো এটি বাগানের প্রায় শেষ প্রান্তে টিলার উপরাংশজুড়ে অবস্থিত। লেকটিতে যাওয়ার আঁকাবাঁকা মেঠোপথে চোখে পড়ে শত শত বানরের পাল। ‘বিসলার বান’ বা ‘ক্যামেলিয়া লেকটি’ পর্যটকদের সর্গোদ্যান হিসেবে দেশে-বিদেশে সুপরিচিত মৌলভীবাজার জেলার পর্যটন শিল্পে একটি নতুন সংযোজন। এখানে যেতে শমসেরনগর-চাতলাপুর চেকপোস্ট সড়ক ধরে দক্ষিণ দিকে প্রায় ২ কিলোমিটার সামনে গেলেই হাতের ডানে দেখা মেলে ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠিত ওই বাগানের শ্রমিক ও আশপাশের প্রায় ৯০ হাজার জনসংখ্যার নির্ভরযোগ্য চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান ক্যামেলিয়া হাসপাতালের। হাসপাতালটির নামকরণ করা হয়েছে ডানকান ব্রাদার্সের মাদার কো¤পানি ক্যামেলিয়া পিএলসির নাম অনুসারে। ক্যামেলিয়া পিএলসি লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত একটি প্রতিষ্ঠান। পৃথিবীব্যাপী তাদের কর্মীর সংখ্যা ৭৩ হাজারের অধিক। আর বাংলাদেশে তাদের কর্মী সংখ্যা প্রায় ১৮ হাজার। হাসপাতালটিকে পেছনে রেখে আরো ২ কিলোমিটার মেঠোপথ পাড়ি দিয়ে দেখা মিলবে এই প্রকৃতির নিজ হাতে তৈরি করা অপরূপ ও চোখ ধাঁধানো মায়াবী লেকটির। লেকের পাশের পুরোটাই বালুকাময়। লেকের পানিই এ বাগানের চা শ্রমিকদের একমাত্র পানির উৎস। সুনছড়া চা বাগান থেকে ক্যামেলিয়া লেকের সৌন্দর্য মুগ্ধতা জাগানিয়া। চা বাগান কর্তৃপক্ষ প্রাকৃতিক এ লেকটিতে কিছুটা কৃত্রিমতা জুড়ে দিয়েছেন। ইট-সিমেন্টের কিছু কৃত্রিম কাজ লেকটির সৌন্দর্য আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। লেকটির পানির উপরে একটি পাটাতন তৈরি করা হয়েছে। এখন ‘বিসলার বান’ বা ‘ক্যামেলিয়া লেক’ হয়ে উঠেছে অসাধারণ এক পর্যটন স্পট। লেকটির পাশে রয়েছে একটি ঘর। যেটি স্থানীয় চা শ্রমিকদের কাছে ‘ক্লাব ঘর’ নামে পরিচিত। এ ঘরে বা গাছের ছায়ায় পর্যাপ্ত সময় কাটানো সম্ভব। এখানে বিকেলে গেলে পরিযায়ী পাখির কলতান আর জলকেলির দৃশ্য আপনার মনে এনে দেবে পরম প্রশান্তি।
‘ক্যামেলিয়া লেক’ বা ‘বিসলার বান’ এখনো সুপরিচিত কোনো পর্যটন স্পট নয়। দেশী-বিদেশী পর্যটকদের কাছে এটি একেবারে নতুন। তাই সেখানে যেতে হলে একা নয়; গ্রুপ করে যাওয়াই ভালো। প্রয়োজনে স্থানীয় গাইডের সহায়তা নিতে পারেন। লেকের পানিতে গোসল করা এবং লেকের পাশের পাহাড়ের চূড়া পর্যন্ত যানবাহন নিয়ে যাওয়া যায়। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে যারা প্রকৃতির সুরম্য জেলা মৌলভীবাজার ভ্রমণে যেতে চান তারা অবশ্যই ক্যামেলিয়া লেকটিকে ভ্রমণের তালিকায় রাখবেন। তবে মনে রাখতে হবে এ লেকটি যেহেতু চা বাগানের অভ্যন্তরে অবস্থিত, সেহেতু লেকটিতে যাওয়ার আগে চা বাগান কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতি নিলে ভালো হয়। লেকটি দেখতে গেলে একই সাথে তিনটি পর্যটন স্পট দেখা সম্ভব। যে ‘রথ দেখা আর কলা বেচা’। লেকটির পাশেই অবস্থিত অসাধারণ কারো কার্যময় ক্যামেলিয়া হাসপাতাল এবং মনোমুগ্ধকর গলফ মাঠ। লেকটি দেখতে গেলে বোনাস হিসেবে দেখা যাবে এ দু’টি স্পট।


আরো সংবাদ

মাঠ সংস্কার উদ্বোধনে হাজী সেলিম অনুসারীদের হট্টগোল! চারুকলায় উৎসবে নবান্নকে বরণ ‘সুস্থ জীবনযাপনে মহানবীর জীবন অনুসরণের বিকল্প নেই’ খেলার মাঠগুলোকে বিশ্বমানের করা হচ্ছে : সাঈদ খোকন কেরানীগঞ্জেই হবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস : বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গার এমপি পদ ও পরিবহনের শীর্ষ পদ থেকে বহিষ্কার দাবি ঐক্যলীগের নতুন বাংলাদেশ গড়তে মুক্তিযোদ্ধাদের এগিয়ে আসতে হবে : জি এম কাদের রাস্তা প্রশস্ত করার খবরে মুগদাবাসীর উদ্বেগ তাঁতি দলের আলোচনা সভা পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধিতে সরকারই জড়িত : গয়েশ্বর সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান স্পিকারের যুদ্ধবিরতির পরও গাজায় ইসরাইলের বিমান হামলা

সকল