film izle
esans aroma Umraniye evden eve nakliyat gebze evden eve nakliyat Entrumpelung wien Installateur Notdienst Wien
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বাংলাদেশের কোচ হতে পেরে উচ্ছ্বসিত ডমিঙ্গো

বাংলাদেশের কোচ হতে পেরে উচ্ছ্বসিত ডমিঙ্গো - ছবি : সংগৃহীত

আপাতত দুই বছরের জন্য জাতীয় দলের কোচ হয়েছেন সাউথ আফ্রিকান রাসেল ডমিঙ্গো। টাইগারদের কোচ হতে পেরে অনেকটাই খুশি এ প্রোটিয়া। সাকিব তামিমদের সঙ্গে কাজ করতে নাকি মুখিয়ে আছেন তিনি। উচ্ছ্বসিত এই কোচ ছুটিও কাটাবেন না বলে বিসিবিকে জানিয়েছেন। দুই বছরের জন্য চুক্তি হওয়া ডমিঙ্গো বলেছেন, ‘আমার কোনো ছুটি দরকার নাই। আমার কোনো পিছু টান নাই। আমি এখানে থেকে খেলোয়াড়দের সঙ্গে সময় কাটাতে চাই।’

তার এমন বক্তব্যে বহুত খুশি বিসিবি কর্তারা। পাপন তো বলেই দিলেন, ‘এগুলোই হচ্ছে মূল জায়গা, যেখানটায় আমরা মনে করেছি ও অন্যদের চেয়ে এগিয়ে আছে।’

আপাতত দুই বছরের জন্য চুক্তি হলেও সব মিলে গেলে লম্বা সময়ের জন্য ডমিঙ্গোকে রেখে দেওয়ার ভাবনার কথা জানান পাপন, ‘আমাদের এখন সবচেয়ে বেশি দরকার ভালো একজন কোচ, যে নাকি এখানে থেকে, ছেলেদের সঙ্গে থেকে একটা পরিকল্পনা নিয়ে দুই-চার বছর কাজ করবে। ডমিঙ্গোর সঙ্গে সেভাবে ইন্টারঅ্যাকশন হয়নি, একটা সাক্ষাৎকার হয়েছে। সে এসে কাজ করুক, আমাদের দেখুক, আমরাও ওকে দেখি। যদি মিলে যায় তাহলে লম্বা সময়ই থাকতে পারে।’

বাংলাদেশকে দিয়ে দুই বছর পর আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোচিংয়ে ফিরছেন ডমিঙ্গো। যে কোনো পর্যায়েই উপমহাদেশের কোনো দলকে কোচিং করানোর অভিজ্ঞতা তার হতে যাচ্ছে এই প্রথম। নতুন কোচ জানিয়েছেন, দায়িত্ব নিতে মুখিয়ে আছেন তিনি। ‘বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ নিযুক্ত হওয়া এক বিশাল সম্মানের বিষয়। কোচ হিসেবে নিয়োগ পাওয়া আমার জন্য অনেক বড় এক সম্মান। গভীর আগ্রহ নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটের অগ্রগতি অনুসরণ করেছি আমি এবং যে লক্ষ্য পূরণের সামর্থ্য তাদের আছে, সেটিতে সহায়তা করার সুযোগ পেয়ে আমি দারুণ রোমাঞ্চিত ও উচ্ছ্বসিত।’

দক্ষিণ আফ্রিকা ছেড়ে কেন বাংলাদেশে কোচ হয়ে আসতে চান ডমিঙ্গো সেই প্রশ্ন ৪৪ বছর বয়সী এই কোচকে করেছিল বিসিবি। জবাবে ডমিঙ্গো বলেছিল, ‘বাংলাদেশে এসে সে যত বড় দেশই হোক না কেন তার জন্য জেতা কঠিন। সামনে বিশ্বকাপ হবে ভারতে। বাংলাদেশেরও শিরোপার অন্যতম দাবিদার হওয়া উচিত। ভারতের পর উপমহাদেশে বাংলাদেশই সবচেয়ে বড় শক্তি। এই ধরনের চিন্তা তার। আমরাও বিশ্বাস করি, আগামী (ওয়ানডে) বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অন্যতম দাবিদার হওয়া উচিত।’

দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলের দায়িত্ব নেয়ার আগে দীর্ঘদিন বয়সভিত্তিক ও ঘরোয়া ক্রিকেটে কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন ডমিঙ্গো। নানা সময়ে কাজ করেছেন দক্ষিণ আফ্রিকা ‘এ’ দলে। তরুণ ক্রিকেটারদের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা তাই তার আছে অনেক। বাংলাদেশের কোচ হিসেবেও বের করে আনতে চান তরুণ তারকাদের, ‘দলে এখনকার ক্রিকেটারদের উন্নতির ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে সহায়তা করতে চাই আমি। পাশাপাশি বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রতিভার ভান্ডার থেকে নতুন উজ্জ্বল তারকাদের উন্নতির পথে এগিয়ে নিতে চাই।’

 


আরো সংবাদ