২০ আগস্ট ২০১৯

'দ্বিতীয়বার ধর্ষণ' হয় যেখানে

আইনের দুর্বলতায় পার পেয়ে যাচ্ছে ধর্ষণের আসামিরা - ছবি : সংগ্রহ

বাংলাদেশে আইনে দুর্বলতার কারণে ধর্ষণের মামলায় অনেক অভিযুক্ত পার পেয়ে যাচ্ছে বলে মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ। তারা বলছেন, আইনের মধ্যে এমন কিছু বিষয় রয়েছে, যেগুলো ধর্ষিতার বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্তরায় হিসেবে দেখা দিচ্ছে।

বেসরকারি সংস্থা নারীপক্ষ বলছে, তারা এক গবেষণার অংশ হিসাবে ২০১১ সাল থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত ছয়টি জেলায় ধর্ষণের মামলা পর্যবেক্ষণ করেছে। এ গবেষণাটির পরিচালক এবং নারীপক্ষের প্রকল্প পরিচালক রওশন আরা বলেন, এ সময়ে ৪৩৭২টি ধর্ষণের মামলা হয়েছে, কিন্তু সাজা হয়েছে মাত্র পাঁচ জনের।

সংস্থাটি বলছে, ঢাকা ছাড়াও অন্য যেসব জেলা থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে - ঝিনাইদহ, জামালপুর, জয়পুরহাট, সিরাজগঞ্জ, নোয়াখালী ।

এই গবেষণাটি পরিচালনার জন্য নারীপক্ষের তরফ থেকে থানা, হাসপাতাল এবং আদালত - এ তিনটি জায়গা থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ধর্ষণের ঘটনার পর বিচার প্রক্রিয়ার সাথে এ তিনটি জায়গা জড়িত। সাধারণত এ তিনটি জায়গায় নারীরা যায়। সেখানে তাদের সাথে কী ধরণের ব্যবহার করা হয় এবং মামলাগুলো কিভাবে দেখা হয় - এসব বিষয় উঠে এসেছে নারীপক্ষের গবেষণায়।

আইন এবং বিচার প্রক্রিয়া নারীর জন্য অবমাননাকর
ধর্ষণের মামলায় বেশিরভাগ অভিযুক্ত খালাস পেয়ে যাবার মূল কারণ সাক্ষীর অভাব।

কেন সাক্ষী পাওয়া যায় না - বিবিসির কাছে তার কিছু কারণ তুলে ধরেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সারা হোসেন।

"এখানে একটি বড় কারণ হচ্ছে, যিনি ঘটনার শিকার এবং অন্য সাক্ষীরা যদি থেকে থাকেন, তারা অনেক সময় নানা ধরণের হুমকির সম্মুখীন হয়। সেই হুমকির ক্ষেত্রে তাদের কোনো সুরক্ষা থাকে না," বলছিলেন সারা হোসেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এবং দণ্ডবিধিতে সাক্ষীদের রক্ষাকবচ সীমিত। কেউ ঘটনার শিকার হলে তার নাম প্রকাশ করা যাবেনা কিংবা প্রয়োজন হলে নিরাপদ জায়গার ব্যবস্থা করতে পারে আদালত। কিন্তু এর বাইরে তেমন কোনো সুরক্ষার ব্যবস্থার নেই।

বাংলাদেশে এখনো 'ধর্ষণ' সংজ্ঞায়িত করা হয় ১৮৬০ সালের দণ্ডবিধি অনুযায়ী।

সারা হোসেন বলেন, "আমাদের আইনে এখনো বলা আছে যে একজন যদি ধর্ষণের অভিযোগ করেন, তাহলে বিচারের সময় তার চরিত্র নিয়ে নানান ধরণের প্রশ্ন করা যাবে।"

আইনে এ ধরণের বিষয় থাকার বিষয়টি নারীর জন্য বেশ অবমাননাকর বিষয় বলে উল্লেখ করেন নারী অধিকার কর্মীরা।

আদালতের জেরা 'দ্বিতীয়বার ধর্ষণের' মতো
ধর্ষণের মামলা নিয়ে যেসব নারী আদালতে দাঁড়িয়েছে তাদের অনেকেরই অভিজ্ঞতা খুবই খারাপ। অভিযুক্তের আইনজীবীর দ্বারা তারা এমন জেরার মুখে পড়েন যা তাদের মর্যাদাকে আরো ভূলুণ্ঠিত করে - এমটাই মনে করেন নারীপক্ষের রওশন আরা।

"আদালতে প্রশ্ন করা হয়, কেন তাকে রেপ করা হলো? কেন সে ওখানে গিয়েছিল? অন্যদের তো ধর্ষণ করা হয়নি, তাহলে তোমাকে কেন করল? মানে দোষটা চাপানো হয় নারীর উপরে।"

সারা হোসেন বলেন, বিচারকের হাতে অনেক ক্ষমতা আছে। তিনি চাইলে এ ব্যাপারগুলো কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

"কেউ-কেউ করেন, কেউ-কেউ করতে পারেন না, কেউ-কেউ করেন না। একজন ধর্ষণের অভিযোগকারীকে তার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন করা যাবে - এ বিষয়টা যেহেতু আইনে রয়েছে. সেখানে এ ধরণের প্রশ্ন আসলে বিচারক একেবারে থামিয়ে দিতে পারেন না। উনি হয়তো প্রশ্নের ধরণ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন, কিন্তু জেরা একেবারে থামিয়ে দিতে পারেন না।"

তিনি বলেন, এই আইন সংস্কারের জন্য বাংলাদেশের আইন কমিশনের তরফ থেকে সুপারিশও করা হয়েছে। কিন্তু সে বিষয়ে এখনো কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

সরকার কী বলছে?
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ধর্ষণ সংক্রান্ত আইনের কিছু-কিছু বিষয় পরিবর্তন করা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

তিনি বলেন, নারী অধিকার এবং মানবাধিকার কর্মীরা যদি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবের মাধ্যমে আইনে পরিবর্তনের কথা বলেন তাহলে সে ব্যাপারে আলোচনা হতে পারে।

হক বলেন, "আলাপ আলোচনা করে যেখানে দেখা যাবে এটা অবমাননাকর বা এটা থাকা উচিত না, এসব না রাখলেও একটা ধর্ষণের মামলা প্রমাণ করা যায়, তাহলে সেগুলো করতে আমাদের কোনো বাধা নেই।"
সূত্র : বাসস


আরো সংবাদ

সিন্ডিকেট করে চামড়ার টাকা লুটপাটে প্রভাবশালীরা জড়িত : গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য ৫ দাবি পূরণ হলে মিয়ানমারে ফিরতে রাজি রোহিঙ্গারা কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বাড়লো এক বছর মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ছাত্রদলের প্রার্থীরা দেশে ফিরে ডেঙ্গুতে মারা গেলেন ডা. রেহানা বেগম এই সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ ও প্রতারক : মির্জা ফখরুল শেখ হাসিনার ট্রেনে হামলা : দণ্ডপ্রাপ্তদের আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ কাশ্মিরিদের অধিকার খর্ব হয়েছে, ভারতীয় হিসেবে আর গর্ব করি না : অমর্ত্য সেন ৫৮ হাজার বাসাবাড়ির মশার লার্ভা ধ্বংস করা হয়েছে : মেয়র সাঈদ খোকন ৫০ লাখ টাকার বাজেট প্রস্তাব : ভোক্তা অধিকারের পরিচালককে তলব পাওনা টাকা চাওয়ায় মারধর, দোকান লুটের অভিযোগ

সকল

স্ত্রীর ছলচাতুরীতে ফতুর প্রবাসী স্বামী (৩৬৭২৪)পুলিশ হেফাজতে বাসর রাত কাটলেও ভেঙ্গে গেল বিয়ে (২৩৯০৭)ইমরানকে ‘পেছন থেকে ছুরি মেরেছেন’ মোদি (২১৩৩১)ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার এখন ফ্যাসিস্ট মোদির হাতে : ইমরান খানের হুঁশিয়ারি (১৭৪৫৮)সন্ধ্যায় বাবার কিনে দেয়া মোটর সাইকেল সকালে কেড়ে নিল ছেলের প্রাণ (১৪৯৫২)নুরকে ‘খালেদা জিয়ার মতো পরিণতির’ হুমকি (১৩৯০০)স্বামীর সাথে ঘুরতে বেরিয়ে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ, ধর্ষক আটক (১২৫৭৯)সীমান্তে ফের পাল্টাপাল্টি গুলি, দুই ভারতীয় সেনাসহ নিহত ৪ (১১৩১৮)ব্যাগে টাকা আছে ভেবে শারমিনকে হত্যা করে রিকশা চালক রাজু উড়াও (১০৯৫০)গ্রীনল্যান্ড বিক্রির প্রস্তাব হাস্যকর : ড্যানিশ প্রধানমন্ত্রী (১০৫২৩)



bedava internet