১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

৬০ ফুট ওপর থেকে থুবড়ে পড়লো হেলিকপ্টার 

দুর্ঘটনা কবলিত হেলিকাপ্টার। ইনসেটে (বাঁ থেকে ফরিদুর রেজা সাগর, ফেরদৌস আরা ও ফারজানা ব্রাউনিয়া - সংগৃহীত

৬০ ফুট ওপর থেকে থুবড়ে পড়লো হেলিকাপ্টার। এই হেলিকাপ্টারে যাত্রী হিসেবে ছিলেন চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ফরিদুর রেজা সাগরসহ মোট ছয়জন। বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার দিকে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। 

পুলিশ জানায়, গোদাগাড়ী থেকে উড্ডয়নের পরপরই হেলিকপ্টারটি ৬০ ফুট ওপর থেকে মুখ থুবড়ে পড়ে যায়। এ সময় হেলিকপ্টারে ছিলেন ফরিদুর রেজা সাগর, কণ্ঠশিল্পী ফেরদৌস আরা ও স্বর্ণকিশোরী ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ফারজানা ব্রাউনিয়া, রফিকুল ইসলাম, তুফান আলী ও সুমন আলী। দুর্ঘটনায় সবাই আঘাত পেয়েছেন। ফরিদুর রেজা সাগর, রফিকুল ইসলাম, তুফান আলী ও সুমন আলীকে অ্যাম্বুলেন্সে করে রাজশাহী বিমানবন্দরে নেওয়া হয়েছে। ঢাকায় নিয়ে তাদের চিকিৎসা দেওয়া হবে।

গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, রাজশাহীর আনোয়ারা ফাহিম জিয়াউদ্দীন পাইলট বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয় চ্যানেল আইয়ের ‘স্বর্ণকিশোরী’ অনুষ্ঠানের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানে যোগ দেন চ্যানেল আইয়ের এমডি ফরিদুর রেজা সাগর, কণ্ঠশিল্পী ফেরদৌস আরা ও স্বর্ণকিশোরী ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ফারজানা ব্রাউনিয়া।

অনুষ্ঠান শেষে তারা হেলিকপ্টারে করে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন। পাইলট জানিয়েছেন, হেলিকপ্টারটি ৬০ ফুট ওঠার পর নিয়ন্ত্রণ হারায়। পাইলট হেলিপ্যাডে অবতরণ করার চেষ্টা করেন। তবে এটি মুখ থুবড়ে পাশে পড়ে যায়। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ফায়ার সার্ভিস ও গোদাগাড়ী থানার পুলিশ। পুলিশ সবাইকে উদ্ধার করে প্রথমে গোদাগাড়ী উপজেলা সদরের একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে তাদের কারও আঘাতই গুরুতর নয়।

জাহাঙ্গীর আলম জানান, হেলিকপ্টারটি মাত্র ১০ হাত দূরে পড়লেই দুর্ঘটনা মারাত্মক হতে পারত।

আরো পড়ুন : কাঁচপুরে বাসচাপায় স্কুলছাত্রী আহত, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ
হাসান মাহমুদ রিপন, সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ) ০৪ অক্টোবর ২০১৮, ১১:৫৯

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে বাস চাপায় এক স্কুলছাত্রী আহত হয়েছে। আহত ছাত্রীর নাম সাদিয়া আক্তার। সে কাঁচপুর ওমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর ছাত্রী। ছাত্রী আহতের প্রতিবাদে সহপাঠিরা ঢাক-চট্টগ্রাম মহাসড়কের একপাশ অবরোধ করে রেখেছেন। আহত সাদিয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে কাঁচপুর থেকে মদনপুরগামী একটি ফিটনেসবিহীন লোকাল বাস স্কুলের সামনেই সাদিয়াকে চাপা দেয়। এতে মারাত্মক আহত হয়। একপর্যায়ে তার নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে। এতে স্কুলের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয়রা সড়কে অগ্নিসংযোগ ও গাড়ি ভাংচুর করে সড়ক অবরোধ করে রাখে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছেন। এ রিপোর্ট লেখা বেলা সোয়া ১১টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করে রাখে। আহত সাদিয়া কাঁচপুর সোনাপুর গ্রামের মিন্টু মিয়ার মেয়ে।

এলাকাবাসী জানায়, কাঁচপুর ওমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে সাদিয়া রাস্তা পার হচ্ছিল। এসময় কাঁচপুর থেকে মদনপুরগামী একটি লোকাল বাস (ঢাকা মেট্রো গ-১১-২১৫০) তাকে চাপা দেয়। এতে মারাত্মক আহত হয়। কিন্তু তার নিহতের খবর ছড়িয়ে পড়লে স্কুলের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী বাসটিকে আটক করে। পরে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বাসটিতে অগ্নিসংযোগ করে। এছাড়া মহাসড়কে চলাচলরত ১০-১২টি গাড়ি ভাংচুর করে। ঘাতক বাসের চালক ও হেলপার পালিয়ে যায়।

সোনারগাঁও থানার ওসি মোরশেদ আলম জানান, বাস চালক ও হেলপারকে গ্রেফতারের আশ্বাসে অবরোধকারীদের শান্ত করার চেষ্টা চলছে।

কাঁচপুর ওমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু বকর সিদ্দিক জানান, সাদিয়াকে আহত করার ঘটনায় বিচার চাই। দ্রুত বাস চালক ও হেলপারকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে বিচার দাবি করছি।


আরো সংবাদ