১৫ নভেম্বর ২০১৮

‘সড়ক দুর্ঘটনা নিহত ৩৩৯ নয়, ১৫২ জন’

-

ঈদের আগে ও পরে সড়ক দুর্ঘটনা সম্পর্কে যাত্রী কল্যাণ সমিতির দেয়া তথ্য ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ।
সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে এই সমিতির দেয়া ভুল ও ভিত্তিহীন তথ্যে জনগণকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্যও অনুরোধ জানানো হয়েছে।
আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘সম্প্রতি যাত্রী কল্যাণ সমিতি নামে একটি সংগঠন এক সংবাদ সম্মেলনে ঈদের আগে-পরে ১৩ দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৩৯ জন নিহত হয়েছে বলে উল্লেখ করে, যা সঠিক তথ্য নয়। প্রকৃতপক্ষে বিআরটিএ’র জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন অফিস, পুলিশ রেকর্ড এবং সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ১২ জুন থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত দেশব্যাপী ১০৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫২ জন নিহত এবং সাড়ে ৩শ’জন আহত হন।’
যাত্রী কল্যাণের নামে নিবন্ধনহীন এ সংগঠন বিভিন্ন সময়ে সংবাদ সম্মেলনে বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করে আসছে উল্লেখ করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নানান পেশার সম্মানিত ব্যক্তিবর্গকে নিবন্ধনহীন এ সংগঠন কৌশলে সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানায়। সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ক তথ্যাদি উদ্দেশ্যমূলকভাবে বাড়িয়ে উপস্থাপন করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে এই সংগঠন।
সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনারোধে প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত ৫-দফা অনুশাসন বাস্তবায়নে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সকল স্টেক-হোল্ডারদের নিয়ে কার্যক্রম জোরদার করতে যাচ্ছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।
এতে আরও বলা হয়, এসডিজি’র লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা অর্ধেকে নামিয়ে আনতে মন্ত্রণালয় সচেষ্ট। সড়ক-মহাসড়কের নির্মাণজনিত ত্রুটি দূর করার পাশাপাশি ট্রাফিক আইন মেনে চলতে জনসচেতনতার বিকল্প নেই। সড়ক ব্যবহারকারীদের সচেতনতা বাড়াতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি অংশগ্রহণ আরও জোরদার করা জরুরি। এরই মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উদ্যোগে দেশের সড়ক-মহাসড়কের দুর্ঘটনাপ্রবণ স্পটসমূহ ডিভাইডারসহ প্রশস্তকরণের কাজ প্রায় শেষ হতে চলেছে।


আরো সংবাদ