২১ জুন ২০১৮

টার্মিনালে সার্বক্ষণিক ভ্রাম্যমাণ আদালতের দাবি

টার্মিনালে সার্বক্ষণিক ভ্রাম্যমান আদালতের দাবি - সংগৃহীত

অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ও টিকিট কালোবাজারি বন্ধে সব গুরুত্বপূর্ণ বাস টার্মিনালে সার্বক্ষণিক ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রম শুরু এবং নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে সংগঠনের সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শহীদ মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে সরকারের কাছে এই দাবি জানান। সড়ক ও নৌ-নিরাপত্তায় জাতীয় কমিটির পক্ষ থেকে উত্থাপিত সাতটি করে মোট ১৪টি সুপারিশ অবিলম্বে কার্যকরের পাশাপাশি সেগুলো ঈদ-পরবর্তী এক সপ্তাহ বলবৎ রাখার দাবিও জানানো হয়েছে বিবৃতিতে।

সড়ক নিরাপত্তায় আরো সুপারিশ হচ্ছে দূরপাল্লার সড়কে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোসহ বেআইনিভাবে ওভারটেকিং বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। রেজিস্ট্রেশন, ফিটনেস ও রুট পারমিটবিহীন বাসসহ সব ধরনের যাত্রীবাহী যানবাহন চলাচল বন্ধে জাতীয় মহাসড়ক, আন্ত:জেলা সড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রমে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের নির্বাহী হাকিমদের সম্পৃক্তকরণ করতে হবে। চলন্ত অবস্থায় চালকদের মুঠো ফোন ব্যবহার, বাসের ছাদে ও ট্রাকে যাত্রী পরিবহন এবং জাল লাইসেন্সধারী চালকদের গাড়ি চালানো বন্ধে সংশ্লিষ্ট জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে ক্ষমতা প্রদানের সুপারিশও করা সংগঠনটির পক্ষ থেকে। ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-টাঙ্গাইল, ঢাকা-আরিচা ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের দু:সহ যানজট এড়াতে এসব মহাসড়কের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদেও দাবি জানান হয় সুপারিশ থেকে। এছাড়া সড়কপথে দক্ষিণ- পশ্ছিমাঞ্চলে যাতায়াতকারী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্থানের মানুষের সুবিধার্থে শিমুলিয়া ও পাটুরিয়া ফেরিঘাটের বিশৃঙ্খলা ও অব্যবস্থাপনা রোধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা জোরদারের সুপারিশ রয়েছে। তারা বলেন, জাতীয় মহাসড়ক ও আন্ত:জেলা সড়কে অটোরিক্সা, ইজিবাইকসহ তিনচাকার সব ধরনের যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ।

অপরদিকে নৌ-নিরাপত্তায় দেয়া সুপারিশগুলো হচ্ছে অবৈধ ও ক্রুটিপূ্র্ণ লঞ্চসহ সব ধরণের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধে সারা দেশে ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রম শুরু করতে হবে। নৌ-নিরাপত্তায় উপকূলীয় জনপদের জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে সম্পৃক্তকরণের দাবি জানান হয়। এছাড়া উপকূলীয় জেলাসমূহের নির্বাহী হাকিমদের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার ক্ষমতা প্রদান। এবং সদরঘাটসহ সারা দেশের সকল লঞ্চ টার্মিনালে কঠোর নিরাপত্তাসহ শৌচাগার সুবিধা ও পানির ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ এবং সকল নদীবন্দরে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার সুপারিশ করা হয়।


আরো সংবাদ