২৩ অক্টোবর ২০১৮
বদর দিবসের আলোচনা সভা

ছাত্রশিবির একটি সুন্দর-সোনালি সমাজ প্রতিষ্ঠার ল্েয কাজ করছে

-

বিশিষ্ট সমাজসেবক শহীদুল্লাহ মুহাম্মদ শাহজাহান বলেন, বর্তমান আর্থসমাজিক ব্যবস্থায় ইভটিজিং, সন্ত্রাস আর মাদকের ভয়াবহতায় যুব সমাজ চরমভাবে কলুষিত। একশ্রেণীর দুষ্টচক্রের অশোভ চক্রান্তের ফলেই আমাদের সম্ভাবনাময় প্রজন্ম পড়ালেখা বাদ দিয়ে বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছে; কিন্তু এসব অপকর্ম সমাজে বিস্তার লাভের আগেই রাষ্ট্র যদি তার যথাযথ পদপে নিতে পারতো তাহলে পবিত্র রমজান মাসে মাদকের বিরুদ্ধে সরকারকে যুদ্ধ ঘোষণা করতে হতো না। সমাজের পবিত্রতা ধরে রাখতে ছাত্রশিবির প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এসব সামাজিক সমস্যা যাতে যুবক-তরুণদের গ্রাস করতে না পারে সেদিকে ল্য রেখে একটি সুন্দর সোনালি সমাজ গঠনে কাজ করে যাচ্ছে। ইসলামী ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগরী উত্তরের উদ্যোগে ঐতিহাসিক বদর দিবসের আলোচনা সভা ও এলাকাবাসীর সম্মানে আয়োজিত ইফতার মাহফিল প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহজাহান এ কথা বলেন।
চট্টগ্রাম মহানগরী উত্তর সভাপতি আহমেদ সাদমান সালেহের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি আ স ম রায়হানের পরিচালনায় এতে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কলেজ কার্যক্রম সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম। বক্তব্য রাখেন নগর বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, শহীদ জসিম উদ্দীন মাহমুদের বাবা সমাজসেবক ডা: আব্দুল খালেক, মিয়ার বাপের মসজিদ মুতোয়ালি আব্দুর রশিদ মেম্বার, পার্সিভিল হিল ওয়েল ফেয়ার সোসাইটির উপদেষ্টা হাসমত আলী মাসুদ, এ্যাকর্ড ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আমির খসরু, মহানগরী দক্ষিণের সাবেক সভাপতি মুহাম্মদ হাসান আলী, অধ্যাপক সেলিম উদ্দীন, এম এ হান্নান, শিবির নেতা কামাল হোসাইন, আমান উল্লাহ, আবু জোবায়ের প্রমুখ।
প্রধান বক্তা তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ছাত্রশিবির সৌহার্দ্য-সম্প্রীতির মাধ্যমে একটি সুন্দর-সোনালি সমাজ প্রতিষ্ঠার ল্েয কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, আল্লাহর নবী যখন প্রথমাবস্থায় মক্কায় ইসলামের দাওয়াত দিচ্ছিলেন তখন সেখানকার গোত্র সর্দাররা তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র শুরু করেন। একপর্যায়ে তাকে জন্মস্থান মক্কা ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য করেন। পরে পবিত্র মদিনায় গিয়ে তিনি সকল গোত্রকে একত্রিত করে সর্বপ্রথম ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করেন।

 


আরো সংবাদ