২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

রাস্তায় বাস প্রয়োজনের তুলনায় কম

-

সকাল ৭টায় রাস্তায় এতটা ভিড় সচরাচর চোখে পড়ে না। কিন্তু গতকাল সকালেই মোহাম্মদপুরের রাস্তায় প্রচণ্ড ভিড়। গণপরিবহনের অপেক্ষায় হাজার মানুষ। কিন্তু গণপরিবহন নেই। বিআরটিসিসহ হাতেগোনা কয়েকটি বাস চলছে। চলছে প্রাইভেট কার, হিউম্যান হলার, মোটরসাইকেল, সিএনজিচালিত অটোরিকশা আর রিকশা। এসব যানে সঙ্কুলান হচ্ছে না এত মানুষের। বাস না থাকায় তাই অসংখ্য মানুষ রাস্তার দু’পাশে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন।
ফার্মগেটমুখী যাত্রীদের ভিড় বেশি। মোহাম্মদপুর থেকে মতিঝিলে অফিসে যাবেন রহমান তালুকদার। তিনি বলছিলেন, সিএনজিতে ভাড়া চাচ্ছে ৭০০ টাকা। পাঁচ দিন ধরে প্রতিদিন ২০০-৩০০ টাকা খরচ করে রিকশায় অফিসে যাচ্ছি।
অনেকেরই ভরসা দুই পা। পথে কথা হয় লুবনা মাহবুবের সাথে। মেয়েকে কোচিং করাতে নিয়ে তিনি যাবেন ফার্মগেটে। ১০টায় কোচিং। যানবাহন পাবেন না, তাই এত তাড়াতাড়ি বের হওয়া। রাজধানীতে সবচেয়ে দুর্ভোগে রয়েছে মিরপুরে বসবাসকারীরা। মিরপুরে রাস্তার মাঝখানজুড়ে চলছে মেট্রোরেলের কাজ। এ সড়কে চলা মানুষের দুর্গতি অনেক দিন থেকেই। সড়ক সরু হওয়ায় দিনভর যানবাহনের ভিড় লেগে থাকে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত ছড়িয়েছে মেট্রোরেলের কাজ। এ কারণে এই সড়কে যানজট আর যানবাহনের চাপ লেগেই থাকে। কিন্তু গতকাল ছিল একেবারেই ব্যতিক্রম। গণপরিবহন না থাকায় সড়ক ছিল অনেকটাই ফাঁকা। রাজধানীর বিমানবন্দর সড়ক, মিরপুর সড়ক, মতিঝিল, আরামবাগ, প্রগতি সরণিতে বাসের দেখা মেলেনি। কিছু বিআরটিসির বাস চলতে করতে দেখা গেছে।


আরো সংবাদ